• বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ০৯:৪৭ অপরাহ্ন

সাকিব ঝলকে জিম্বাবুয়েতে এক যুগ পর সিরিজ জিতলো বাংলাদেশ

/ ৭৩ বার পঠিত
প্রকাশকাল : সোমবার, ১৯ জুলাই, ২০২১

অনেক দিন ধরেই রান খরায় ভুগছিলেন সাকিব আল হাসান। বাংলাদেশের জার্সি গায়ে কিছুতেই যেন পাচ্ছিলেন না রানের দেখা। অবশেষে হাসল তার ব্যাট। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার পেলেন বড় ইনিংসের দেখা। সুবাদে পাঁচ বল হাতে রেখেই টাইগাররা দ্বিতীয় ওয়ানডে জিতল ৩ উইকেটে। আর তাতেই সিরিজ জিতল বাংলাদেশ। ওই ম্যাচ জিতে ৩ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ২-০ ব্যবধানে নিশ্চিত করেছে টাইগাররা। ২০০৯ সালের পর মানে দীর্ঘ ১২ বছর পর জিম্বাবুয়ের মাটিতে ওয়ানডে সিরিজ জিতল বাংলাদেশ। সঙ্গে বিশ্বকাপ সুপার লিগে বাংলাদেশ পেল মূল্যবান আরো দশটি পয়েন্ট। ১১ ম্যাচ খেলে ৭ জয় আর ৪ হারে ৭০ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে এখন লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। তবে ৪ রানের আক্ষেপ রয়ে গেল সাকিব আল হাসানের। দূরন্ত ব্যাটিংয়ে সেঞ্চুরির আশা জাগিয়েও জাদুকরী তিন অঙ্কের দেখা পেলেন না এ ক্রিকেট মহাতারকা। ৯৬ রানের হার না মানা দাপুটে ইনিংস খেলে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিয়ে তবেই মাঠ ছাড়েন সাকিব। তার শতক হাঁকানোর আগেই দলের জয় নিশ্চিত হয়ে যায়। যে কারণে সুযোগ থাকলেও সেঞ্চুরি থেকে বঞ্চিত হন সাকিব। তবে সন্দেহ নেই শতক মিসের আক্ষেপের আগুনটা তাকে পুড়িয়ে যাবে অনেকদিন। তার ব্যাটিং দৃঢ়তায় জয়ের লক্ষ্য টপকে ৭ উইকেটের বিনিময়ে ৪৯.১ ওভারে ২৪২ রান সংগ্রহ করেছে বাংলাদেশ। ২৮ রান নিয়ে অপরাজিত থেকে যান তার সঙ্গী মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন।

সাকিবকে সঙ্গ দেওয়া মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ফিরেছেন ২৬ রান নিয়ে। তার পথ ধরে সাজঘরে ফিরে গেছেন মেহেদী হাসান মিরাজও (৬)। প্রথম ম্যাচে দাপুটে ব্যাটিং করা আফিফ হোসেন সংগ্রহ করেছেন মাত্র ১৫ রান। তার আগে ব্যাটিংয়ে নেমে বিপদেই পড়ে গিয়েছিল বাংলার দামাল ছেলেরা। ব্যাট হাতে দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও সুবিধা করতে পারেননি তামিম ইকবাল। ২০ রান নিয়ে সাজঘরে ফিরেছেন এ টাইগার ক্যাপ্টেন। আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান লিটন দাস ফিরেছেন ২১ রান নিয়ে। আউট হয়েছেন মোহাম্মদ মিঠুন (২) ও মোসাদ্দেক হোসেন (৫)। জিম্বাবুয়ের হয়ে দুটি উইকেট নেন লুক জঙ্গে। তার আগে টস জিতে শুরুতে ব্যাটিংয়ে নেমে জয়ের জন্য বাংলাদেশের সামনে ২৪১ রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে দেয় জিম্বাবুয়ে। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ২৪০ রানের লড়াকু পুঁজি সংগ্রহ করে স্বাগতিকরা। ব্রেন্ডন টেলর ৪৬ রান করে ফেরেন শরিফুল ইসলামের ব্যাটে। তরুণ এ পেসার পরে পান আরও তিনটি উইকেট। তিনি ফিরিয়ে দেন ফিফটি করা ওয়েসলি মাধেভেরেকে (৫৬), লুক জঙ্গে ও বেøসিং মুজারাবানিকে। সব মিলিয়ে পেস তোপে শরিফুল শিকার করেন চার উইকেট। সিকান্দার রাজা দলীয় স্কোরে যোগ করেন ৩০ রান। ষষ্ঠ উইকেটে মাধেভেরের সঙ্গে ৬৩ রানের পার্টনারশিপ গড়ে তিনি দলকে এনে দেন বড় সংগ্রহ। যদিও জিম্বাবুয়ে ১৪৬ রানে হারিয়ে ফেলেছিল ৫ উইকেট।

বিশ্বসেরা এ অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান বিদায় করেন রেগিস চাকাভাকে। ২৬ রান নিয়ে সাকিবের স্পিন জাদুতে বোল্ড হয়েছেন চাকাভা। পরে আরও একটি উইকেট পেয়েছেন সাকিব। ৩৪ রান নিয়ে সাকিবের বলে সাজঘরে ফিরেছেন ডিওন মেয়ার্স। সাকিব উইকেট নেন দুটি।

অবশ্য ব্যাট হাতে শুরুতে মাঠে নেমে শুরুটা মোটেই ভালো করতে পারেনি জিম্বাবুয়ে। দলীয় স্কোরে ৩ রানের মাথায় স্বাগতিকরা হারিয়ে ফেলে ওপেনার তিনাশে কামুনহুকামউইয়ের উইকেট। পেসার তাসকিন আহমেদের বলে এক রান নিয়ে আফিফ হোসেনের তালুবন্দী হন তিনাশে। পরে স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজ ফিরিয়ে দেন তাদিওয়ানাশে মারুমানিকে। মিরাজের বলে বোল্ড হওয়ার আগে এ ওপেনার যোগ করেন ১৩ রান।

প্রথম ওয়ানডের মতো দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও টস জিততে পারেননি টাইগার ক্যাপ্টেন তামিম ইকবাল। হারারে স্পোর্টস ক্লাবে টস জিতে ব্যাটিং বেছে নেন জিম্বাবুয়ে ক্যাপ্টেন ব্রেন্ডন টেলর। ফলে শুরুতে বল হাতে মাঠে নামে বাংলাদেশ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: জিম্বাবুয়ে: ২৪০/৯, ৫০ ওভার (কামুনহুকামউই ১, মারুমানি ১৩, চাকাভা ২৬, টেইলর ৪৬, মায়ার্স ৩৪, মাধেভেরে ৫৬, রাজা ৩০, জঙ্গুয়ে ৮, মুজারাবানি ০, চাতারা ৪*, এনগারভা ৭*; তাসকিন ১০-০-৩৮-১, সাইফ ১০-০-৫৪-১, মিরাজ ৭.২-০-৩৪-১, শরিফুল ১০-০-৪৬-৪, সাকিব ১০-০-৪২-২, মোসাদ্দেক ১.৪-০-৭-০, আফিফ ১-০-১১-০)।

বাংলাদেশ: ২৪২/৭, ৪৯.১ ওভার (তামিম ২০, লিটন ২১, সাকিব ৯৬*, মিঠুন ২, মোসাদ্দেক ৫, মাহমুদউল্লাহ ২৬, মিরাজ ৬, আফিফ ১৫, সাইফ ২৮*; মুজারাবানি ৯.১-১-৩১-১, চাতারা ৭-১-৫২-০, জঙ্গুয়ে ৮-০-৪৬-২, এনগারাভা ৯-১-৩৩-১, মাধেভেরে ১০-০-৩৯-১, রাজা ৬-০-৩৩-১)। ফল: বাংলাদেশ ৩ উইকেটে জয়ী।

সিরিজ: ৩ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ২-০ তে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ। ম্যাচসেরা: সাকিব আল হাসান।


এই বিভাগের আরও খবর
error: বিষয়বস্তু সুরক্ষিত !!
error: বিষয়বস্তু সুরক্ষিত !!