• বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৫৭ পূর্বাহ্ন

শ্রীবরদীতে চাকরির প্রলোভনে পাচারের চেষ্টা ॥ পালিয়ে রক্ষা পেল কিশোরী, গ্রেফতার ১

রেজাউল করিম বকুল
/ ৯৮৩ বার পঠিত
প্রকাশকাল : বৃহস্পতিবার, ৮ এপ্রিল, ২০২১

শেরপুরের শ্রীবরদীতে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে পাচারকালে পাচারকারীদের হাত থেকে পালিয়ে রক্ষা পেয়েছে এক অসহায় কিশোরী (১৪)। ওই কিশোরী উপজেলার কাকিলাকুড়া চৌরাস্তা বাজারের হতদরিদ্র চা বিক্রেতার মেয়ে। ওই ঘটনায় ৮ এপ্রিল বৃহস্পতিবার রঞ্জু মিয়া (২২) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করেছে পুলিশ। রঞ্জু পার্শ্ববর্তী চিংগুতার গ্রামের দুদা মিয়ার ছেলে। ঘটনাটি নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

জানা যায়, গত ২৭ মার্চ রাতে ওই কিশোরীকে চাকরি দেয়ার নাম করে বাসা থেকে পার্শ্ববর্তী মুদি দোকান মালিক মুছা মিয়ার ছেলে স্বাধীন (২৫) ও কামারদহ গ্রামের সামছুল হকের ছেলে মোরাদুজ্জামান ফুডা (৪৫) নিয়ে যায়। এরপর আর তাকে খুঁজে পাচ্ছিল না তার মা। ঘটনার ৬ দিন পর তার মেয়ে বাড়ি ফিরে আসে। তখন ভিকটিম জানায়, স্বাধীন ও ফুডা তাকে চাকরি দেয়ার কথা বলে বাসা থেকে নিয়ে ময়মনসিংহ শহরের এক বাসায় রেখে দিয়েছিল। সেখানে ৬ দিন পর ওই বাসার মালিক ওদের গতিবিধি দেখে পাচারকারী সন্দেহে বিক্রি করার পায়তাঁরা করছে বলে কিশোরীকে জানায়। পরে ওই কিশোরী বাসা থেকে পালিয়ে বাড়িতে এলে ঘটনাটি জানাজানি হয়। এ নিয়ে গ্রাম্য শালিসের আয়োজন হলে এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে ঘটনাটি। পরে পুলিশ খবর পেয়ে ওই কিশোরীকে তার বাড়ি থেকে ডেকে থানায় নিয়ে যায়। ওই সময় পুলিশ অভিযান চালিয়ে ওই চক্রের সাথে জড়িত অভিযোগে রঞ্জু মিয়াকে গ্রেফতার করে। কিন্তু ওই চক্রের মূল হোতা স্বাধীন ও ফুডা পলাতক রয়েছে। ভিকটিমের মা বলেন, আমরা গরিব মানুষ। চা বিক্রি করে কোনো মতে সংসার চালাই। ওদের বিরুদ্ধে কথা বলার মতো সাহস আমগোর নাই।
এ ব্যাপারে শ্রীবরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোখলেছুর রহমান বলেন, ওই ঘটনায় মানব পাচার আইনে থানায় ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। একজনকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। পলাতকদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখা হচ্ছে।


এই বিভাগের আরও খবর