ads

শনিবার , ২৩ জুন ২০১৮ | ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

৬ জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরে গেল ৩২ প্রাণ

শ্যামলবাংলা ডেস্ক
জুন ২৩, ২০১৮ ২:০৮ অপরাহ্ণ

শ্যামলবাংলা ডেস্ক : গাইবান্ধা, রংপুর, নাটোর, সিরাজগঞ্জ, গোপালগঞ্জ, লক্ষ্মীপুর, ঢাকার সাভার ও রাজবাড়ীতে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ৩২ জন নিহত হয়েছেন। এসব দুর্ঘটনায় কমপক্ষে ৮৩ জন আহত হয়েছেন। এর মধ্যে গাইবান্ধায় নৈশ কোচের চালক নিয়ন্ত্রণ হারালে বাসটি পাশের গাছের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে ১৭ জন নিহত হন। এছাড়া ফরিদপুরের ভাঙ্গায় বাসের চালক নিয়ন্ত্রণ হারালে সড়কের পাশে গাছের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে গাছসহ সড়কের পাশে খাদে পড়ে ২ জন নিহত হন। রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলায় বিকল বিআরটিসি বাসের পেছনে ট্রাকের ধাক্কায় ৬ জন নিহত হন। নাটোর শহরে বালুবোঝাই ট্রাকের ধাক্কায় অটোরিকশার ২ আরোহী এবং সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলায় যাত্রীবাহী বাস ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে ২ জন নিহত হয়েছেন।

Shamol Bangla Ads

রংপুরের দুর্ঘটনা ঘটে গতকাল শুক্রবার দিবাগত রাতে। অন্য ৪ টি দুর্ঘটনা ঘটে ২৩ জুন শনিবার ভোর ও সকালে। গাছের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে দুমড়েমুচড়ে যায় বাসটি। এতে ১৬ জন নিহত হন।

গাইবান্ধা: গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আকতারুজ্জামান জানান, ঢাকা থেকে ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈলের উদ্দেশে ছেড়ে আসে আলম এন্টারপ্রাইজ নামক যাত্রীবাহী নৈশ কোচটি। ভোররাত ৪টার দিকে পলাশবাড়ী উপজেলার ব্র্যাক মোড়ের অদূরে বাঁশকাটা এলাকায় পৌঁছানোর পর চালক নিয়ন্ত্রণ হারালে বাসটি সড়কের বা পাশে এক বিশাল রেইনট্রিগাছের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে উল্টে যায়। এতে গোটা বাসটি দুমড়েমুচড়ে যায়। ঘটনাস্থলে মারা যান ৭ জন আর পলাশবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মারা যান ৯ জন।

Shamol Bangla Ads

ফরিদপুর: বরিশাল থেকে রাজশাহীগামী তুহিন পরিবহনের একটি বাস পথে ভাঙ্গায় এলে বাসের চালক নিয়ন্ত্রণ হারালে বাসটি সড়কের পাশে গাছের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে গাছসহ সড়কের পাশে খাদে পড়ে যায়। এতে ২ জন নিহত ও ১৯ জন আহত হয়েছেন। ২৩ জুন সকাল ৮ টার দিকে ভাঙ্গার চুমরদি ইউনিয়নের পূর্ব সদরদী এলাকায় ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে ওই দুর্ঘটনা ঘটে। আহত ব্যক্তিদের মধ্য ৭ জনকে ফরিদপুর মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। একজন ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি আছেন। আর অন্যরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে চলে গেছেন ।

রংপুর: পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা গেছে, দিনাজপুর থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী বিআরটিসির একটি দোতলা বাসের পেছনের একটি চাকা ঠাকুরটারী এলাকায় রাত দেড়টার দিকে ফেটে যায়। চাকাটি বদল করছিলেন বিআরটিসির চালক ও তার সহকারী। মহাসড়কে দাঁড়িয়ে দেখছিলেন কয়েকজন যাত্রী। রাত ২টার দিকে রংপুরগামী একটি ট্রাক পেছন থেকে সড়কে দাঁড়িয়ে থাকা যাত্রীসহ বিআরটিসির বাসটিকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই ৬ জন নিহত হন। আহত হন ১৩ জন। খবর পেয়ে রাত আড়াইটার দিকে তারাগঞ্জ ও রংপুর থেকে ফায়ার সার্ভিসের ৩ টি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ২ জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন দিনাজপুর সদর উপজেলার নিমতলী গ্রামের নিশাদ আলী (২০) ও সাজ্জাদ হোসেন (১৯)। লাশ ও গাড়ি ২ টি তারাগঞ্জ হাইওয়ে থানার পুলিশের হেফাজতে রয়েছে।

ফায়ার সার্ভিসের একজন কর্মী জানান, নিহত ব্যক্তিদের শরীরের অবস্থা এতটাই ছিন্নভিন্ন যে তাঁদের শনাক্ত করা যাচ্ছে না। সবাই বাসটির যাত্রী ছিলেন।

নাটোর: সদর থানার উপপরিদর্শক রুবেল হোসেন প্রত্যক্ষদর্শী ব্যক্তিদের বরাত দিয়ে জানান, সকাল সাড়ে ৬ টার দিকে নাটোর স্টেশন এলাকা থেকে একটি অটোরিকশা ৪ জন যাত্রী নিয়ে হরিশপুর এলাকার মিশন হাসপাতালে যাচ্ছিল। আলাইপুর মসজিদ এলাকায় বালুবোঝাই একটি ট্রাক পেছন থেকে ওই অটোরিকশাকে ধাক্কা দেয়। এতে অটোরিকশার যাত্রী জেলার নলডাঙ্গা উপজেলার পূর্ব সোনাপাতিল এলাকার সুদিস্মা দেবনাথ (৪৫) ও তার প্রতিবেশী কানাই চন্দ্রের (৩৫) মৃত্যু হয়। আহত হন সুদিস্মা দেবনাথের স্বামী মঙ্গল দেবনাথ (৫০) ও মেয়ে আঁখি দেবনাথ (১৬)। আহত ব্যক্তিদের প্রথমে নাটোর সদর হাসপাতালে, পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। পুলিশ ট্রাকটি আটক করলেও চালক ও সহকারী পালিয়েছেন।

সিরাজগঞ্জ: ভোর সাড়ে ৫ টার দিকে ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কে ঢাকা থেকে বগুড়াগামী যাত্রীবাহী একটি বাসের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ২ জন নিহত হয়েছেন এবং আহত ১১ জন। খবর পেয়ে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় রায়গঞ্জ ফায়ার সার্ভিস ও হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার পুলিশ উদ্ধার অভিযান শুরু করে।
নিহত ব্যক্তিরা হলেন উপজেলার ঘুড়কা ইউনিয়নের ভুঁইয়াগাঁতী এলাকার জসিম উদ্দিন ফকিরের ছেলে শফি উদ্দিন ফকির (৪৫) ও একই ইউনিয়নের শ্যামনাই গ্রামের দুহা শেখের ছেলে রফিকুল ইসলাম (৩৫)। নিহত দুজনই ট্রাকের যাত্রী ছিলেন।

রায়গঞ্জ ফায়ার সার্ভিস স্টেশন কর্মকর্তা (এসও) মোজাম্মেল হকের জানান, ঘটনাস্থল থেকে ২ নের লাশ উদ্ধার করা হয়। আহত ১১ জনকে রায়গঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়েছে।

সর্বশেষ - ব্রেকিং নিউজ

error: কপি হবে না!