ads

সোমবার , ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

শেরপুরে শিশু ধর্ষণ মামলায় ধর্ষক গ্রেফতার

শ্যামলবাংলা ডেস্ক
সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৭ ৫:১৬ অপরাহ্ণ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শেরপুরে হতদরিদ্র পরিবারের ৬ বছরের শিশু ধর্ষনের চাঞ্চল্যকর মামলায় ধর্ষক নবী হোসেন (৪৫)কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।সোমবার দুপুরে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা, সদর থানার এসআই শুভ্র কুমার সাহার নেতৃত্বে একদল পুলিশ শ্রীবরদী থানার ভটপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে। নবী হোসেন সদর উপজলোর বাজিতখিলা গ্রামের ধনাঢ্য সৈয়দ আলীর ছেলে। তবে ঘটনা ধামাচাপার চেষ্টায় জড়িত নবী হোসেনের ভাই সাইদুর রহমান (৫০)ও ভাতিজা রফিকুল ইসলাম (২৬) এখনও পলাতক রয়ছে। অন্যদিকে একইদিন সকালে জেলা সদর হাসপাতালে ধর্ষিতা শিশুর ডাক্তারী পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। তবে তার শারীরিক অবস্থা এখনও অপরিবর্তিত রয়েছে।
শেরপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আমিনুল ইসলাম ধর্ষক নবী হোসেনকে গ্রেফতার ও ভিকটিমের ডাক্তারী পরীক্ষা সম্পন্ন হওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এর মধ্য দিয়ে মামলাটির তদন্তে যথেষ্ট অগ্রগতি হয়েছে। ঘটনা ধামাচাপার অভিযোগ থাকায় মামলার অপর ২ আসামীকেও গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান চলছে।
উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার বিকেলে সদর উপজেলার বাজিতখিলা গ্রামে ৬ বছরের ওই শিশুকে স্থানীয় প্রভাবশালী নবী হোসেন চকলেট দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে পরিত্যক্ত এক ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করে। ওই সময় শিশুটির ডাক-চিৎকারে তার আত্মীয়-স্বজন ও প্রতিবেশীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করে। ওই সময় নবী পালিয়ে যায়। পরে ধর্ষকের আত্মীয়-স্বজন ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে থানা-পুলিশকে বিষয়টি না জানানোর জন্য শিশুটির পরিবারের ওপর চাপ প্রয়োগ করে। কিন্তু ধর্ষণের শিকার শিশুটির শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে এলাকাবাসীর সহায়তায় রবিবার বিকেলে পুলিশ ওই শিশুকে উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করায়। এরপর ধর্ষিতার বাবা বাদী হয়ে ধর্ষক নবী হোসেনকে প্রধান আসামী এবং ঘটনা ধামাচাপার চেষ্টায় জড়িত অপর ২ জনসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এর পরপরই আসামীদের গ্রেফতারে তৎপর হয়ে ওঠে পুলিশ।

error: কপি হবে না!