ads

বৃহস্পতিবার , ৩ আগস্ট ২০১৭ | ৩১শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

ঝিনাইগাতী সরকারি খাদ্য গুদামে কোটি টাকার চাল অরক্ষিত

শ্যামলবাংলা ডেস্ক
আগস্ট ৩, ২০১৭ ৯:১৭ অপরাহ্ণ

ঝিনাইগাতী (শেরপুর) প্রতিনিধি ॥ শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলা খাদ্য গুদামের দুই পাশের সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে পড়েছে। এ কারনে খাদ্য গুদামে রক্ষিত সরকারের কোটি টাকা মূল্যের চাল অরক্ষিত হয়ে পড়েছে। এতে গুদামের নিরাপত্তা নিয়ে দুঃশ্চিন্তায় পড়েছে খাদ্য গুদামের কর্মকর্তারা।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সরকারি খাদ্য গুদামের মূল গেইটে লেখা রয়েছে ‘সংরক্ষিত এলাকা’ বিনা অনুমতিতে প্রবেশকারী ৩ বৎসর পর্যন্ত জেল অথবা জরিমানা অথবা উভয় প্রকার শাস্তি দ্বারা দ-ীয়। কিন্তু খাদ্য গুদামের উত্তর ও পূর্ব পাশের প্রায় দেড়’শ ফুট সীমানা প্রাচীর (বাউ-ারি দালান) ভেঙ্গে পড়ে আছে। যেটুকু আছে ওইটুকুও যেকোন সময় ভেঙ্গে পড়বে। গুদামের প্রধান প্রাচীরের ভেঙ্গে যাওয়া অংশে বাঁশের বেড়া দিয়ে নিরাপত্তা রক্ষার চেষ্টা করা হয়েছে। এছাড়া খাদ্যগুদামের উত্তর পাশের্^র সীমানা প্রাচীর ও ঝিনাইগাতী-ধানশাইল সড়কের উচ্চতা প্রায় সমান হয়ে পড়েছে। এতে অরক্ষিত অবস্থায় রয়েছে ৩ হাজার ৫’শ মেট্রিক টন ধান-চাল ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন ৫টি খাদ্যগুদাম।
খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (এলএসডি) এর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এ উপজেলার সরকারি খাদ্যগুদামের সীমানা প্রাচীরটি ১৯৮৩-১৯৮৪ সাল অর্থ বছরে নির্মাণ করে গণপূর্ত বিভাগ। দুই যুগের অধিক সময় আগে নির্মিত সীমানা প্রাচীরের প্রায় দেড়’শ ফুট গত ২০০৯ সালের মার্চ মাসে ভেঙ্গে পড়ে। ভেঙ্গে পড়ার কয়েকদিন পরেই জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ে মেরামতের আবেদন জানানো হয়। কিন্তু দীর্ঘ ৮ বছর পেরিয়ে গেলেও সীমানা প্রাচীর পূণঃনির্মাণ বা মেরামত করার বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।
খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (এলএসডি) বিকাশ চন্দ্র দেবনাথ বলেন, আমি গত ৪ মাস আগে এখানে যোগদান করি। অফিসের নথিপত্র দেখে জানতে পেরেছি সীমানা প্রাচীর সংস্কারের জন্য অর্থ বরাদ্দের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে একাধিকবার আবেদন জানানো হয়েছে। খাদ্য গুদামের সংশ্লিষ্ট দফতরে একাধিক বার আবেদন করেও কোন কাজ হচ্ছে না। কিন্তু খাদ্যগুদামের সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে পড়ায় গুদামের নিরাপত্তা ঝুঁকিতে রয়েছে বলে জানান তিনি।
এ ব্যাপারে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. মাহবুবুর রহমান খান বলেন, গুদামের সীমানা প্রাচীর নির্মাণ অতীব জরুরী। এ ব্যাপারে প্রাক্কলন তৈরি করে ঢাকায় পাঠিয়েছি। আশা করছি, এই অর্থ বছরে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ কাজের জন্য প্রকল্প পাওয়া যেতে পারে।

error: কপি হবে না!