ads

রবিবার , ৩০ জুলাই ২০১৭ | ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

শেরপুরে লাইসেন্স বাতিল হওয়া সেই ২ কাজী ফের বহাল

শ্যামলবাংলা ডেস্ক
জুলাই ৩০, ২০১৭ ৪:১৫ অপরাহ্ণ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শেরপুরে লাইসেন্স বাতিল হওয়া সেই ২ কাজী ফের বহাল হয়েছেন। উচ্চ আদালতে বিচারাধীন একটি রিট পিটিশনের নির্দেশনার আলোকে তাদের লাইসেন্স বাতিলের আদেশ স্থগিত করেছে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগ। ১২ জুলাই ওই মন্ত্রণালয়ের বিচার শাখার সিনিয়র সহকারী সচিব জিএম নাজমুছ শাহাদাৎ সাক্ষরিত এক পত্রে ওই স্থগিতের বিষয়টি জানানো হয়েছে শেরপুরের জেলা রেজিস্টার, সদর সাব-রেজিস্টারসহ সেই সহোদর ২ কাজী জুবায়ের ইবনে সালেহ ও আবু জর মোঃ আল আমিনকে। এর আগে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক ২ জুলাই তাদের লাইসেন্স বাতিল করে শূন্য পদ পূরণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পত্র দিয়েছিল ওই মন্ত্রণালয়ের একই বিভাগ।
১২ জুলাই আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগের সিনিয়র সহকারী সচিব জিএম নাজমুছ শাহাদাৎ সাক্ষরিত এক পত্রে বলা হয়, শেরপুর পৌরসভার নিকাহ রেজিস্টারের অধিক্ষেত্র সংক্রান্ত বিষয়ে হাইকোর্ট বিভাগের দায়েরকৃত রিট পিটিশন নং-২২৯৮/১৩ এর ১৬/০৮/১৬ তারিখে উচ্চ আদালত ‘let the order of stay granted earlier by this court the extended till disposal of the role’ আদেশ প্রদান করায় মন্ত্রণালয়ের গত ২ জুলাই পৃথক স্মারকে প্রেরিত পত্রদ্বয় স্থগিত করা হলো। এর আগে লাইসেন্স বাতিলের বিষয়ে প্রকাশিত খবর প্রসঙ্গে প্রয়াত আবু জর সালেহ উদ্দিন কাজীর ২ পুত্র জুবায়ের ইবনে সালেহ ও আবু জর মোঃ আল আমিন দাবি করেন, পৌরসভার তাদের কর্মরত এলাকায় কাজী নিয়োগের আবেদন করে ব্যর্থ হয়ে একটি পক্ষ তাদের বিরুদ্ধে অপতৎপরতা চালাচ্ছে।

Shamol Bangla Ads

এদিকে ফের বহালের মধ্য দিয়ে শেরপুর পৌর এলাকায় একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তারের সুযোগও ফিরে পেয়েছে তারা। কারণ নানা কৌশলে জুবায়ের ইবনে সালেহ পৌরসভার ১,২,৩,৪,৫,৬ নং ওয়ার্ডের কাজী এবং তারই অনুজ আবু জর মোঃ আল আমিন ৭,৮,৯ নং ওয়ার্ডের কাজী নিয়োগ পেলেও জুবায়ের ইবনে সালেহ বরাবরের মতো এখনও রাজধানী ঢাকাসহ শেরপুরের বাইরে অবস্থান করে আসছেন। সংশ্লিষ্ট এলাকায় তার নেই কোন বসবাস ও অফিস। ফলে আবু জর মোঃ আলামিন ‘টু ইন ওয়ান’ হয়ে এককভাবে সব কাজ করছেন।
এ ব্যাপারে শেরপুরের জেলা রেজিস্টারের দায়িত্বে থাকা সদর সাব-রেজিস্টার তাপস কুমার রায় বলেন, শেরপুর পৌরসভার ২ জন কাজীর লাইসেন্স বাতিল হওয়ার আদেশ দু’টি স্থগিতকরণে আইন মন্ত্রণালয়ের চিঠি ২৭ জুলাই হাতে হাতে পাওয়া গেছে। তবে জেলা রেজিস্টার ছুটিতে থাকায় ওই বিষয়ে বিস্তারিত কিছু বলা সম্ভব হচ্ছে না। অন্যদিকে জুবায়ের ইবনে সালেহ এলাকায় অবস্থান না করেও পৌরসভার দুই তৃতীয়াংশ এলাকার কাজীর দায়িত্ব থাকেন কিভাবে- এমন প্রশ্নের উত্তরও এড়িয়ে যান তিনি।

error: কপি হবে না!