ads

রবিবার , ২৮ মে ২০১৭ | ৩১শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

শ্রীবরদীতে বাল্য বিয়ে ও যৌতুককে লাল কার্ড প্রদর্শন

শ্যামলবাংলা ডেস্ক
মে ২৮, ২০১৭ ১২:১৭ অপরাহ্ণ

শ্রীবরদী (শেরপুর) প্রতিনিধি ॥ বাল্য বিয়ে ও যৌতুককে না বললেন শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলার ১৫শ লোক। ২৭ মে শনিবার দুপুরে পৌর শহরের এমএনবি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে লাল কার্ড দেখিয়ে বাল্য বিয়ে ও যৌতুককে না বলেন তারা। ওই সময় প্রশাসনিক কর্মকর্তা, কর্মচারী, শিক্ষক, ছাত্রছাত্রী, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি ও সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার লোক অংশ নেন। শ্রীবরদী উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বাল্য বিয়ে ও যৌতুককে লাল কার্ড শীর্ষক অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক ড. মল্লিক আনোয়ার হোসেন। তিনি বক্তব্যের এক পর্যায়ে ১৫শ লোককে বাল্য বিয়ে ও যৌতুকের বিরুদ্ধে শপথ বাক্য পাঠ করান। ওইসময় তিনি বলেন, মেয়েদের উচ্চ শিক্ষা লাভ করতে হবে। আজকের মেয়েরা ৪১ সালে উন্নত দেশ গড়ার নেতৃত্বে অংশ নেবে। তিনি আরও বলেন, মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী গণসচেতনতা গড়ে তুলতে হবে। কারণ দেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে। ওই সময় তিনি সবাইকে এ ব্যাপারে সজাগ থাকার আহবান জানান।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খালেদা নাছরিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শামছুল আলম। তিনি বক্তব্যের এক পর্যায়ে বলেন, বাল্য বিয়ে বা যৌতক লেনদেনে আপনারা বাঁধা দেবেন। প্রয়োজনে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনকে অবহিত করবেন। এর পরেও যদি বাল্য বিয়ে বন্ধ করতে না পারেন তাহলে হটলাইন ১০৯ নাম্বারে ফোন করে জানাবেন। উপজেলা এডিপি ওয়ার্ল্ড ভিশনের সহায়তায় ও উপজেলা মাধ্যমিক অফিসার রহুল আলম তালুকদারের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা ভূমি কমিশনার সানজিদা বেগম, পৌর মেয়র আবু সাইদ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লা আল মামুন দুলাল, এমএনবি সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা জীবন নাহার, এডিপি ম্যানেজার অরবিন্দ সিলভেষ্টার গমেজ প্রমূখ। পরে এসএসসি পরীক্ষায় ৭৬জন জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ছাত্রছাত্রীকে আনুষ্ঠানিকভাবে সংবর্ধনা দেয়া হয়।

error: কপি হবে না!