ads

রবিবার , ৩০ এপ্রিল ২০১৭ | ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

শেরপুরে শিশু ধর্ষণ মামলায় কিশোরের ৫ বছরের আটকাদেশ

শ্যামলবাংলা ডেস্ক
এপ্রিল ৩০, ২০১৭ ৮:৪৫ অপরাহ্ণ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শেরপুরে শিশু ধর্ষণ মামলায় লিমন মিয়া (১৪) নামে এক কিশোরের ৫ বছরের আটকাদেশ দিয়েছেন শিশু আদালত। ৩০ এপ্রিল রবিবার দুপুরে ওই রায় ঘোষণা করেন শিশু আদালতের বিচারক (অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ) মোহাম্মদ মোসলেহ উদ্দিন। লিমন শহরের কসবা কাচারীপাড়া মহল্লার নুর মোহাম্মদের ছেলে। আদালতে তার উপস্থিতিতে ওই রায় প্রদান করা হয়।
জানা যায়, ২০১৪ সালের ১৮ জুন বিকেলে শেরপুর শহরের কসবা কাচারীপাড়া মহল্লার দরিদ্র পরিবারের ১১ বছরের এক শিশু পার্শ্ববর্তী মসজিদে আরবী পড়া শেষে বাড়ি ফেরার পথে স্থানীয় কিশোর লিমন মিয়া কাপড় দিয়ে মুখ বেঁধে তাকে পার্শ্ববর্তী পরিত্যক্ত এক দালানের ভেতর নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। ওই ঘটনায় ধর্ষিতা শিশুর মা বাদী হয়ে ২৩ জুন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে সংশ্লিষ্ট আইনের ৯ (১) ধারায় লিমন মিয়ার বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। ১ জুলাই সদর থানায় ওই মামলাটি রেকর্ড হয় এবং পরের দিন ধর্ষিতা শিশু আদালতে জবানবন্দি প্রদান করে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই সুফিয়া বেগম তদন্ত শেষে একমাত্র আসামী লিমন মিয়ার বিরুদ্ধে ২৩ অক্টোবর ট্রাইব্যুনালে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। পরবর্তীতে মামলার আসামী ও ভিকটিম শিশু হওয়ায় মামলাটি শিশু আদালতে বিচারের জন্য বদলি হয়। ২০১৫ সালের ৮ জানুয়ারি কিশোর লিমন শিশু আদালতে স্বেচ্ছায় আত্মসমর্পণ করলে তাকে গাজীপুরের টঙ্গী কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠানো হয়। দীর্ঘ প্রায় এক বছর ওই কেন্দ্রে আটক থাকার পর সে ২০১৬ সালের ১১ জানুয়ারি জামিনে মুক্তি পায়। বিচারিক পর্যায়ে ১১ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে রবিবার শিশু আদালতের বিচারক লিমনকে সংশ্লিষ্ট আইনে দোষী সাব্যস্ত করে ৫ বছরের আটকাদেশ প্রদান করেন।
মামলাটি রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাডভোকেট গোলাম কিবরিয়া বুলু পিপি ও আসামী পক্ষে অ্যাডভোকেট শাহনুর রহমান রুবেল পরিচালনা করেন।

error: কপি হবে না!