ads

রবিবার , ৩১ আগস্ট ২০১৪ | ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

পেকুয়ায় এবার বরের অমতে বাল্যবিয়ে : কনের বয়স ১৩, বরের বয়স ৩০

রফিকুল ইসলাম আধার , সম্পাদক
আগস্ট ৩১, ২০১৪ ৬:০৮ অপরাহ্ণ
পেকুয়ায় এবার বরের অমতে বাল্যবিয়ে : কনের বয়স ১৩, বরের বয়স ৩০

এম.আবদুল্লাহ আনসারী, পেকুয়া (কক্সবাজার) : পেকুয়ায় এবার বরের ও তার পরিবারের অমতে অনেকটা জোর করে বাল্য বিয়ের আয়োজন হয়েছে। ১৩বছরের কিশোরীকে বরণ করতে বাধ্য করা হয়েছে ৩০ বছরের যুবককে। জানাযায়, ২৮ আগষ্ট পেকুয়া উপজেলার টটং ইউনিয়নের হিরাবুনিয়া এলাকার আবদুল হাকিমের মেয়ে হেপি আকতারের(১৩)সাথে জাফর আলমের ছেলে আবু তালেবের সাথে(৩০) জোর করে বিয়ে দেয়া হয়েছে। অভিযোগ ওঠেছে আবু তালেব এ বিয়েতে রাজি না হওয়ায় মেয়ে পক্ষ বিষয়টি থানা পুলিশ পর্যন্ত গড়িয়ে তার থেকে ১৭বছরের বয়সের ব্যবধানের একটি কিশোরীকে বিয়ে করতে বাধ্য করেছে। স্থানীয় লোকজনের অভিযোগ বিয়েতে রাজি না হওয়ায় বর ও বরের পিতাকে মারধর করা হয়েছে। এদিকে সর্ব সাধারণের মনে প্রশ্নের উদ্রেক হয়েছে কেন কোন কারণে সংসার স্বামী শশুরালয় সম্পর্কে জ্ঞানহীন এক অবুঝ কিশোরীকে এভাবে বিয়ে দিতে হলো। বাল্য বিয়ের কারণেই অকালে অনেক কিশোরী পৃথিবী থেকে বিদায় নিয়েছে। স্বামী সংসার সম্পর্কে ধারণা অর্জনের আগে বিয়ে দেয়ায় নিত্য দিন পারিবারিক কলহ লেগেই আছে।
আর ওই বিয়েতে উপস্থিত থেকে বাল্য বিয়ে দিতে সাহায্যে করার অভিযেগ ওঠেছে ওই এলাকার স্থানীয় জনপ্রতিনিধি আবুল কাশেম ও ৭/৮/৯ এর সংরক্ষিত আসনের মহিলা এমইউপি আয়েশা বেগমের বিরুদ্ধে। আয়েশা বেগমতো ওই বাল্য বিয়েতে উপস্থিত হতে পেরে আকাশছুয়া খুশি। তার দম্বোক্তি তার কত বড় বড় সাংবাদিক আছে তোমাদের মতো টুনকো সাংবাদিকরা পত্রিকায় লিখে কি হবে। এ বিয়ে আমি অবশ্যই দিব। অন্যদিকে এমইউপি কাশেম দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, এই রকম ভুল আর হবেনা।
সূত্রে জানা গেছে, এখনো পর্যন্ত ওই বিয়ে হলেও হয়নি মুসলিম ফরায়েজ মত আকদ। স্বামী স্ত্রী দুজন দু রুমে। শেষ পর্যন্ত তাদের পরিনতি কি হবে বিধাতাই জানেন বলে উ্েল্লখ করেন স্থানীয়রা।
স্থানীয় সুশীল সমাজের একটি অংশ এ বিয়ের প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, প্রশাসন, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা যদি একটু কঠোর হলে এ বাল্য বিয়ে বন্ধ হতো।

Shamol Bangla Ads

পেকুয়ায় মগনামা-বরইতলী অটো-রিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নের জরুরী সভা অনুষ্ঠিত

মগনামা-বরইতলী অটো রিক্সা টেম্পু পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের এক জরুরী সভা পেকুয়া বাজারস্থ সংগঠনের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৩০আগষ্ঠ সন্ধ্যা ৭টায় সংগঠনের সভাপতি ছৈয়দুল হকের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক হারুনর রশিদের পরিচালনায় এক জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন সভাপতি ছৈয়দুল হক, কার্যকরী কমিটির সভাপতি জয়নাল আবদীন, সহ সভাপতি জসিম উদ্দিন, শামশুল আলম, যুগ্ম সম্পাদক শওকত, সহ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন, মনির, সাংগঠনিক সম্পাদক এরশাদ, অর্থ সম্পাদক ইসমাইল, দপ্তর সম্পাদক দেলোয়ার, প্রচার সম্পাদক নাসির উদ্দিন, লাইন সম্পাদক, মনির উদ্দিন মনু, সদস্য হামিদ,নেজাম, বেলাল, মনজুর আলম, আনিছ। বক্তারা বলেন, মগনামা বরইতলী অটো রিক্সা টেম্পু পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের শ্রমিকরা আজ বড় ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। কিছু স্বার্থন্বেষী মহল অনাধিকার চর্চা করে সংগঠনের গঠনতন্ত্র পরিপন্থি ও সম্পূর্ণ নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে অনেকটা পেশী শক্তির জোরে পরিবহন রোড়ে বিশৃংখলা সৃষ্টি করছে। সভাপতির বক্তব্যে ছৈয়দুল হক পোষ্টারিং ও ব্যানার টাঙ্গিয়ে নেতা হওয়া যায়না উল্লেখ করে বলেন, এটি রাজনৈতিক সংগঠন নয় এটি শ্রমিক সংগঠন। এশ্রমিক সংগঠনের গঠনতন্ত্রতে তোয়াক্কা না করে জেলা কমিটি তাদের কমিটিকে বাতিল না করে তাদের কোন প্রকার অব্যাহতি পত্র ও পরিপত্র না দিয়ে একজন কুখ্যাত ডাকাত যিনি এস.টি মামলার অভিযুক্ত আসামী ও সংগঠনের তহবিল আত্মসাতকারী নাছিরকে সভাপতি ও বারেককে সাধারণ সম্পাদক করে জেলা কার্যকরী কমিটির কোন প্রকার রেজুলেশন ছাড়া সংগঠনের আওতাধীন শ্রমিক পরিবহন সভ্যকার্ড ছাড়া ব্যক্তিকে সংগঠনের কর্মকর্তা নিয়োগ দিয়ে সংগঠনের গঠনতন্ত্রকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে আজ চরম বিশৃংখল পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে। তিনি আরো বলেন, একজন শ্রমিক কার্ডধারীর বয়স একবছর না হলে তিনি কখনো সংগঠনের কর্মকর্তা নির্বাচিত হতে বা নিয়োগ হতে পারেনা সে ক্ষেত্রে বারেক কিভাবে সাধারণ সম্পাদক নিয়োগ হয় তা জেলা কমিটিকে জবাব দিতে হবে। মাত্র দুবছরের জন্যে নির্বাচিত হয়ে ডাকাত নাছির-হারুন দীর্ঘ দশ বছর এসংগঠন পরিচালনা করেন তার যাবতীয় হিসাবও সাধারণ শ্রমিকদের উপস্থাপনের জন্য অনুরোধ করেন। একটি অবৈধ মনগড়া কমিটিকে পশ্রয় দিয়ে জেলা কমিটি ও স্থানীয় আইনশৃংখলা বাহিনী চরম খেয়ালীপনা করে অরাজক পরিস্থিতির সৃষ্টি করার জন্যে দায়ী করে অনতিবিলম্বে বিবধমান সংকট সামাধানের জন্যে জেলা কমিটি ও স্থানীয় আইনশৃংখলা বাহিনীকে সমঝোতার ব্যবস্থা করতে অনুরোধ করে বলেন, অন্যাতায় যে কোন উদ্ভুত পরিস্থিতি মারা মারি হানাহানির দায়দায়িত্ব তাদের বহন করতে হবে। মগনামা-বরইতলী পরিবহন সড়কের নির্যাতিত নিপিড়িত শ্রমিকদের পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত শান্ত ও সুশৃংখল থাকারও অনুরোধ করেন।

Shamol Bangla Ads

পেকুয়ায় বখাটের হামলায় এক গৃহবধূ গুরুতর আহত

পেকুয়া উপজেলার রাজাখালী ইউনিয়নের রকবত আলী পাড়া গ্রামে সংঘবদ্ধ বখাটেদের হামলায় এক প্রবাসীর স্ত্রী গুরুতর আহত হয়েছে। আহতকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে পেকুয়া হাসপাতালে ভর্তি করেছে।
স্থানীয় এলাকাবাসীদের সূত্রে জানা গেছে, ওই গ্রামের প্রবাসী আবদুল গণির স্ত্রী রোকসানা বেগম (২৫) কে প্রায় সময় অশালীন কথা বলে উত্যক্ত করে আসছিল একই এলাকার কিছু বখাটে। এরই ধারাবাহিকতায় ঘটনার দিন ওই প্রবাসীর স্ত্রীর বসতঘরে হামলা চালায় একই এলাকার আবুল কাসেম এর দুই বখাটে ছেলে ইলিয়াছ ও মো: ইদ্রিছ। এসময় প্রবাসীর স্ত্রী তাদের বাধা দিতে চেষ্টা চালালে বখাটেরা তাকে এলোপাতাড়ি মারধর করে গুরুতর আহত করে। পরে প্রবাসীর বসতঘরের আলমিরা ভেঙ্গে দুই ভরি স্বর্ণ ও নগদ ৭০হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে আহত গৃহবধূকে উদ্ধার পেকুয়া সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করে।

গৃহবধুর শাশুড়ী শাহাজাহান বেগম অভিযোগ করে জানান, বাড়ির ভিতর ধস্তাধস্তি ও চিৎকার শুনে গিয়ে দেখি আমার পুত্র বধুকে ব্যাপক মারধর করতেছে। এক পর্যায়ে তার শাড়ি ধরে টানাটানি করলে আমার চিৎকার শুনে এলাকাবাসী এসে ইলিয়াস ও ইদ্রিসকে ধাওয়া দিলে তারা পালিয়ে যায়।

তবে শীলনতাহানীর বিষয়টি অস্বীকার করে ইলিয়াস জানান, টাকা বিরোধ নিয়ে তার সাথে কথাকাটাকাটি হয়েছে মাত্র। এখানে কোন ধরণের টাকা ও স্বর্ণালংকার লুট করা হয়নি।

চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম চৌধুরী বাবুল বিষয়টি তাকে কেউ জানানি বলে জানান।
পেকুয়া থানার অফিসার ইচার্জ আবদুর রকিব বলেন, বিষয়টি এখনো কেউ অভিযোগ দেয়নি। পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেব।

পেকুয়ায় আওয়ামীলীগ ও ছাত্রলীগের কর্মী সমাবেশ অনুষ্ঠিত

পেকুয়া সদর ইউনিয়ন আওয়ালীগের আওতাধীন ১নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের অফিস উদ্বোধন, ছাত্রলীগের ২নং ওয়ার্ডের কর্মী সমাবেশ ও কাউন্সিল অনুষ্টিত হয়েছে। ৩০আগষ্ট শুক্রবার বিকেল ৩টায় সদর ইউনিয়নের বটতলিয়া পাড়া ষ্টেশন ও পেকুয়া কবির আহমদ চৌধুরী বাজার গ্রামীণ ব্যাংকস্থ নিজ তলায় পৃথক এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ওয়ার্ড় ছাত্রলীগের সভাপতি ফারুক আজাদের সভাপতিত্বে ফয়সাল বিন মিকাতের পরিচালনায় অনুষ্টিত এ সভায় প্রধান অতিথি বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আকম সাহাবউদ্দিন ফরাজী, বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম। প্রধান বক্তা হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ন সম্পাদক মোঃ বারেক। বক্তব্য রাখেন উপজেলা সেচ্ছাসেবকলীগের সম্পাদক নেজাম উদ্দিন, উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক কপিল উদ্দিন বাহাদুর, যুগ্ন আহবায়ক শাহিদুল ইসলাম শাহেদ, ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সভাপতি নাসির উদ্দিন, ছাত্রলীগ নেতা নাসির উদ্দিন, রেজাউল করিম, জাকারিয়া, আসাদলু হক চৌধুরীও নুরুল আমিন। উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সৈনিক লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. ফারুক, শ্রমিক লীগের আ্হবায়ক নুরুল আবছার, যুগ্ন আহবায়ক বাবুল।
অন্যদিকে বটতলীয়া পাড়া ১নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের অফিস উদ্বোধন ও কর্মী সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন, প্রবীণ আওয়ামীলীগ নেতা মোজাফ্ফর। প্রধান অতিথি বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আকম সাহাবউদ্দিন চৌধুরী, বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম। উপস্থিত ছিলেন সদর আওয়ামীলীগের সভাপতি আযম খান, সম্পাদক বেলাল উদ্দিনসহ কয়েক শতাধীক নেতাকর্মী।

 

সর্বশেষ - ব্রেকিং নিউজ

error: কপি হবে না!