ads

রবিবার , ১৭ আগস্ট ২০১৪ | ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

কুষ্টিয়ায় আব্দুর রউফ চৌধুরী স্মরণে নাগরিক শোকসভা

রফিকুল ইসলাম আধার , সম্পাদক
আগস্ট ১৭, ২০১৪ ২:৩২ অপরাহ্ণ

DSC07241কুষ্টিয়ার প্রতিনিধি : কুষ্টিয়ার কৃতি রাজনৈতিক, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, মুক্তিযুদ্ধকালীন দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের জোনাল কাউন্সিল চেয়ারম্যান, কুষ্টিয়া-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুর রউফ চৌধুরীর স্মরণে নাগরিক শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

Shamol Bangla Ads

শনিবার বিকেল সাড়ে ৪টায় কুষ্টিয়া জেলা পরিষদ মিলনায়তনে এ নাগরিক শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়।
এতে সভাপতিত্ব করেন সাবেক এমপি ও পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান বদরুদ্দোজা গামা।
নাগরিক শোক সভায় আব্দুর রউফ চৌধুরীর স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া জেলা বিএনপির সভাপতি সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমী, সাধারন সম্পাদক অধ্যক্ষ সোহরাব উদ্দিন, জেলা জাসদের সভাপতি গোলাম মহসিন, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য, জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও সাবেক এমপি আহসান হাবীব লিংকন, কুষ্টিয়া ‘ল’ কলেজের অধ্যক্ষ এ্যাড. আমিরুল ইসলাম, কুষ্টিয়া সদর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান জাফর উল্লাহ খান চৌধুরী, কুষ্টিয়া সরকারী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক ইদ্রিস আলী, কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আব্দুল হামিদ রায়হান, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আ স ম আক্তারুজ্জামান মাসুম, জেলা গণতন্ত্রী পার্টির সভাপতি এ্যাড. জহুরুল ইসলাম, জাপা নেতা সাবেক পিপি মিঞা মোঃ রেজাউল হক, প্রবীণ হিতৈষী সংঘ কুষ্টিয়া জেলা শাখার সাধারন সম্পাদক ও জেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তরের সাবেক উপ-পরিচালক নজরুল ইসলাম, কুষ্টিয়া ছাত্রকল্যাণ ফাউন্ডেশনের সাধারন সম্পাদক ও প্রবীণ হিতৈষী সংঘ কুষ্টিয়া জেলা শাখার ট্রেজারার কামরুল ইসলাম জানি, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নাসিম উদ্দিন আহমেদ, মিরপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক কমান্ডার আফতাব উদ্দিন খান, সাবেক সিভিল সার্জন ডাঃ আবু দাউদ, আকতার উদ্দিন আহমেদ, অধ্যাপক আসাদুর রহমান, রাইসুল হক মাসুক, মিজানুর রহমান মির্জা, মাহমুদুর রহমান চৌধুরী।
আব্দুর রউফ চৌধুরীর স্মৃতিচারণ করে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, তার ছেলে ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আইনজীবি ফোরামের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিষ্টার রাগীব রউফ চৌধুরী।
বক্তারা বলেন, কুষ্টিয়ার কৃতি রাজনৈতিক, কুষ্টিয়া-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুর রউফ চৌধুরী শুধু রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ছিলেন না, তিনি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এবং মুক্তিযুদ্ধকালীন দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জোনাল কাউন্সিল চেয়ারম্যান ছিলেন তিনি। সেসময় তিনি কোন দয়া-দক্ষিণার মাধ্যমে জোনাল কাউন্সিল চেয়ারম্যান হিসেবে লাভ করেননি। তিনি তাঁর যোগ্যতা এবং তার কর্মদক্ষতার কারনেই তাঁকে জোনাল কাউন্সিল চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচন করা হয়েছিলো।
তাকে সাফল্য বয়ে আনার জন্যই তাঁকে এ পদে অধিষ্ঠিত করা হয়েছিলো। সেসময় বিডিআর ডিজি কুষ্টিয়ায় অস্থায়ী হেডকোর্য়ার্টার করে এখানকার ৫০০যুবককে হত্যার নির্দেশ দেন। আব্দুর রউফ চৌধুরী সেসময় তার তীব্র প্রতিবাদ করেন।
বক্তারা বলেন, কুষ্টিয়া জেলা শাখা ছাত্রলীগের অন্যতম নেতা হিসেবে আব্দুর রউফ চৌধুরী ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশ নেন। এরপর তিনি ১৯৬২ সালে ফাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি হন। ১৯৬৩ সালে তিনি ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির “গঠনতন্ত্র ও কর্মসূচী” প্রণয়ন সাব-কমিটির আহবায়ক নির্বাচিত হন। ১৯৬৩ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাবর্তন উৎসবে গভর্নর মোনায়েম খানের বিরুদ্ধে আন্দোলনে তিনি নেতৃত্ব দেন এসময় তিনি গ্রেফতার হন। এরপর ১৯৬৬ সালের তিনি কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৭০ সালের নির্বাচনে তিনি তদানীন্তন পুর্ব পাকিস্থান প্রাদেশিক পরিষদের (এমপিএ) নির্বাচিত হন। মুক্তিযুদ্ধকারীন সময়ে কুষ্টিয়া থানা মোড়ের বাসবভনকে মুক্তিযুদ্ধের দুর্গ হিসেবে ব্যবহার করে হানাদার অন্যতম অবস্থান কুষ্টিয়া থানা ও টিএনটি ভবনে হামলা পরিচালনা করে। পরবর্তীকালে হানাদার বাহিনী তাঁর বাসভবনে হামলা চালায়।
বক্তারা আরও বলেন, ভালো সংগঠক হতে হলে যেমন ভালো মানুষ হতে হবে। আব্দুর রউফ চৌধুরী তেমনি একজন ভালো মানুষ ছিলেন। তিনি একাগ্রতা, সততা ও ভদ্রতার মধ্য দিয়ে একজন ভালো সংগঠক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।
সমাজ দেশ ও মানুষের জন্য তিনি তার পৈত্রিক সম্পত্তি বিলিয়ে দিয়ে রাজনীতি করেছেন। তার মতো মানুষের মৃত্যু হওয়ায় জাতি ও সমাজের যে অপূরণীয় ক্ষতি হলো তা কোনদিন পোষাবার নয়।
এসময় জেলার রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক, সামাজিক সংগঠনের ব্যক্তিসহ মরহুমের বন্ধুবান্ধব ও আত্মিয়স্বজনেরা উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, গত ২৪শে জুলাই বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।
পরদিন শুক্রবার কুষ্টিয়ার কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ও ছত্রগাছা হাইস্কুল মাঠে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাঁকে দাফন করা হয়। ১৯৪৬ সাল থেকে তিনি রাজনীতিতে প্রবেশ করেন এবং বিভিন্ন সক্রিয় আন্দোলনে অংশ নেন। তিনি ১৯৭০, ১৯৭৩ ও ১৯৯১ সালের জাতীয় নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

সর্বশেষ - ব্রেকিং নিউজ

error: কপি হবে না!