ads

সোমবার , ১১ আগস্ট ২০১৪ | ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

শেরপুরে চাঞ্চল্যকর কবদুল হত্যার ঘটনায় লাশ পুনঃময়নাতদন্তের নির্দেশ

শ্যামলবাংলা ডেস্ক
আগস্ট ১১, ২০১৪ ৮:১২ অপরাহ্ণ
শেরপুরে চাঞ্চল্যকর কবদুল হত্যার ঘটনায় লাশ পুনঃময়নাতদন্তের নির্দেশ

 শেরপুর প্রতিনিধি:     শেরপুরে চাঞ্চল্যকর কবদুল শেখ হত্যার ঘটনায় লাশ পুনঃময়নাতদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। শেরপুরের মুখ্য বিচারিক হাকিম (ভারপ্রাপ্ত) আ.ন.ম. ইলিয়াছ  ১০ আগস্ট রোববার বিকেলে এ আদেশ দেন। আদেশে আদালত একজন নির্বাহী হাকিমের উপস্থিতিতে নিহত কবদুল শেখের মৃতদেহ বিধিমতে কবর হতে উত্তোলন করে সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুতপূর্বক ময়নাতদন্তের জন্য তা ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (মচিমহা) প্রেরণ করতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন।
শেরপুর কোর্ট পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ইতিপূর্বে আদালতে দাখিলকৃত ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে মৃত কবদুল শেখের জ্যেষ্ঠ ছেলে ও মামলার বাদি মো. মঞ্জুরুল হকের নারাজী আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত পুনঃময়নাতদন্তের এ আদেশ দেন।
আদালত সূত্রে জানা গেছে, প্রদত্ত আদেশে আদালত ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের সমন্বয়ে বোর্ড গঠন করে মৃত কবদুল শেখের মৃতদেহ পুনঃময়নাতদন্তের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে মচিমহার পরিচালক, শেরপুরের জেলা হাকিম ও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) নির্দেশ দেন।
উল্লেখ্য, জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে চলতি বছরের ৪ ফেব্র“য়ারী রাতে শেরপুর সদর উপজেলার কামারিয়া ইউনিয়নের রঘুনাথপুর ভূঁইয়ারচর গ্রামের মৃত ময়েন সেখের ছেলে কবদুল সেখকে প্রতিপক্ষ দেলোয়ার হোসেনের সহযোগি আব্দুল হক ভীমগঞ্জ বাজার থেকে ডেকে নিয়ে যান। পরদিন ৫ ফেব্র“য়ারী রাতে উপজেলার খুনুয়ারচর জঙ্গলদী গ্রামের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত মৃগি নদীর উত্তর পাড়ে পানিতে অর্ধডুবা ও জি.আই তার দিয়ে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় কবদুলের লাশ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় কবদুলের ছেলে মঞ্জুরুল হক বাদি হয়ে গত ৬ ফেব্র“য়ারী শেরপুর সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
পুলিশের সুরতহাল প্রতিবেদনে কবদুলের শরীরে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চি‎েহ্নর কথা উলে­খ‎‎‎‎ থাকলেও‎ গত ২৪ মার্চ শেরপুর জেলা সদর হাসপাতালের তৎকালিন আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ও ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক ডা. আবুল বাশার মো. হাবিবুল­াহ ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে উলে­খ করেন ফুসফুসের জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে কবদুলের মৃত্যু হয়েছে।
নিহত কবদুলের ছেলে ও মামলার বাদি মঞ্জুরুল হক গত ১৬ জুন এ ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে শেরপুরের মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালতে নারাজী দেন। নিহত কবদুলের পরিবারের অভিযোগ, অর্থের বিনিময়ে সংশ্লিষ্ট ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক কবদুলের মৃত্যুর সঠিক কারণ গোপন করেছেন। তবে ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক ডা. আবুল বাশার মো. হাবিবুল­াহ এ অভিযোগ অস্বীকার করেন।

সর্বশেষ - ব্রেকিং নিউজ

error: কপি হবে না!