ads

মঙ্গলবার , ১৫ জুলাই ২০১৪ | ২৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

রমজান মাসকে ঘিরে মহাদেবপুরে ফিরে এসেছে লেবুচাষীদের সুদিন

রফিকুল ইসলাম আধার , সম্পাদক
জুলাই ১৫, ২০১৪ ৯:২৮ অপরাহ্ণ

Mohadevpur Picture_15-07-2014এম এ ছালাম, মহাদেবপুর (নওগাঁ) : নওগাঁর মহাদেবপুরে লেবুচাষীদের সুদিন ফিরে এসেছে। বিশেষ করে রমজান মাসকে ঘিরে লেবুর চাহিদা ব্যাপকহারে বেড়ে যাওয়ায় চাষীদের কপাল খুলে গেছে। লেবু চাষের জন্য এখানকার মাটি এবং আবহাওয়া খুবই সহায়ক বলে কৃষি সংশ্লিষ্টরা জানান। এ কারণে গুণেমানে খুবই উৎকৃষ্ট হওয়ায় এখানে উৎপাদিত লেবু স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে চলে যায় রাজধানী ঢাকাসহ অন্যান্য বিভাগীয় শহরে। নিকট অতীতেও এখানে পরিকল্পিত কোন লেবুচাষ ছিলনা বলে সংশ্লিষ্টরা জানান। কন্তুু ভিটামিন সি’তে ঠাসা রসালো এ লেবুর গুরুত্ব, চাহিদা এবং বাজারমূল্যে অধিক লাভ দেখতে পাওয়ায় এখন অনেকেই ওই লেবু চাষে ব্যাপক উদ্যোগী হয়েছেন। ব্যাপক বিস্তৃত এ উপজেলার অনেক স্থানে কৃষক থেকে শুরু করে সৌখিন মানুষজনও লেবু চাষে সম্পৃক্ত হয়েছেন। কেউ আবার পরিকল্পিত চাষাবাদ না করলেও অন্তত বাড়ির আঙ্গিনায় একটি হলেও লেবুগাছ লাগিয়ে রেখেছেন। এতে পরিবারের ভিটামিন সি’র চাহিদা মিটছে। একগ্লাস শরবতের সাথে লেবু রসের সামান্য মিশ্রণে রোজাদারদের বাড়তি তৃপ্তি যোগ করে দেয় ইফতারীতে। উপজেলার এনায়েতপুর, সফাপুর, খাজুর, চান্দাস, হাতুড়, উত্তরগ্রাম, ভীমপুর, রাইগাঁ ও সদর ইউনিয়নের একাধিক স্থানে পরিকল্পিতভাতে উৎকৃষ্টমানের লেবুচাষ করে বহু কৃষক পরিবার বাড়তি আয়ের পথ বেছে নিয়েছেন। পরিবারগুলোতে ফিরে আসছে স্বচ্ছলতা। এসব লেবু রাজধানী ঢাকাসহ দেশের অন্যান্য স্থানের চাহিদা পুরণেও ব্যাপক ভূমিকা রাখছে। কৃষি অভিজ্ঞরা জানান, উৎকৃষ্টমানের লেবুচাষের জন্য উপজেলার চান্দাস, খাজুর, সফাপুর, উত্তরগ্রাম, রাইগাঁ, হাতুড় ইউনিয়নের প্রায় জমি এবং মহাদেবপুর সদর, চেরাগপুর, ভীমপুর ও এনায়েতপুর ইউনিয়নের কিছু এলাকা খুবই উপযোগী। এসব এলাকায় আরো ব্যাপক পরিকল্পনার ভিত্তিতে চাষের মাধ্যমে প্রতিবছর যে পরিমাণ লেবু উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে, তা থেকে গ্রামীণ অর্থনীতির চাকা আরো দ্রুত সচল ও সবল হবে বলে দৃঢ় মত পোষণ করেন কৃষি সংশ্লিষ্টরা। তারা জানান, এখানে ছড়িয়ে-ছিঁটিয়ে কয়েক হাজার হেক্টর জমি রয়েছে যেসব জামিতে অনায়াসে সারা বছর উৎকৃষ্টমানের লেবুচাষ করা সম্ভব। স্থানীয়ভাবে লেবুচাষীদের মধ্যে আঃ মালেক, আইউব হোসেন, হাফিজুর রহমান, বিদ্যুৎ ও সোহেল রানা জানান, তারা পতিত থাকা জমি এবং কোথাও ফসলী জমির আইলে পরিকল্পিত লেবুর চাষ করেছেন। তেমন বাড়তি যতœ নিতেই হয়না। খুব স্বল্প শ্রম আর সামান্য খরচে অনায়াসে গড়ে তোলা এসব বাগান থেকে তারা এখন প্রতি ১০০ লেবু ২৫০ থেকে ৩০০ টাকায় বিক্রি করছেন। প্রতিটি গাছে কয়েকশ’ করে লেবু ধরে থাকে। এসব লেবু বিক্রির জন্য বাজারেও যেতে হয়না। পাইকাররা এসে বাগান থেকেই ক্রয় করে নিয়ে যান। লেবুর পাইকারী ব্যবসায়ীরা জানান, ব্যাপক চাহিদার বিপরীতে চাষীরা লেবুর সরবরাহই দিতে পারেননা।

error: কপি হবে না!