ads

শনিবার , ১২ জুলাই ২০১৪ | ৭ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

রাজারহাটে দশম শ্রেণীর ছাত্রীর বাল্যবিয়ে

রফিকুল ইসলাম আধার , সম্পাদক
জুলাই ১২, ২০১৪ ৫:৪৫ অপরাহ্ণ
রাজারহাটে দশম শ্রেণীর ছাত্রীর বাল্যবিয়ে

মাহফুজার রহমান (মনু) রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) : কুড়িগ্রামের রাজারহাটে শুক্রবার রাতে প্রেম ঘটিত এক শালিস বৈঠকে ইউপি চেয়ারম্যানসহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে অবশেষে উভয় পক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দশম শ্রেণীর ছাত্রী নিশু আক্তার (১৪) বাল্য বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। এ ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার সদর ইউপি’র পুনকর গ্রামে। ওই এলাকার এরশাদুল হকের স্কুল পড়–য়া কন্যা ও রাজারহাট সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রী নিশু আক্তার (১৪) এর সঙ্গে পার্শ্ববর্তী সৈয়দ আলীর পুত্র মো. আদম আলী (২৪)’র দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিল। এরই সূত্র ধরে শুক্রবার রাত ৯টার দিকে আদম আলী পরিবারের সকলের অজান্তে নিশু আক্তারের ঘরে প্রবেশ করলে পার্শ্ববর্তী লোকজন দেখে ফেলে। পরে স্থানীয় লোকজন আদম আলীকে আটক করে। এক পর্যায়ে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সমন্বয়ে সদর ইউপি চেয়ারম্যান মো. এনামুল হককে অবহিত করে বিয়ের কাজ সম্পন্ন করে। এ বিষয়ে সদর ইউপি চেয়ারম্যান মো. এনামুল হক বলেন, খবর শুনে ঘটনাস্থলে গিয়েছি। আটককৃত প্রেমিক আদম আলীকে তাৎক্ষণিক দু’একটি চড়-থাপ্পড় দিলেও সে নিশুকে বিয়ে ছাড়া কিছু বুঝে না। পরে সকলের সম্মতিক্রমে বিয়ে সম্পন্ন হয়। রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সাজেদুর রহমান বলেন, বিষয়টি আমার জানা ছিলনা। তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

রাজারহাটে ১০ হাজার পলিথিন ব্যাগ উদ্ধার

Shamol Bangla Ads

কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলা সদর বাজারের চাউল শেড থেকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে একদল পুলিশ নিয়ে পরিত্যক্ত অবস্থায় শনিবার ৩ বস্তা প্রায় ১০ হাজার পলিব্যাগ উদ্ধার করেছে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. সাজেদুর রহমান। উদ্ধারকৃত পলিথিনগুলো উপজেলা পরিষদ চত্বরে নিয়ে অগ্নি সংযোগ করে ধ্বংস করা হয়। যার আনুমানিক মূল্য প্রায় ১৫ হাজার টাকা। সূত্রে জানা যায়, উপজেলা সদরের দেবী চরণ এলাকার মোহাম্মদ আলীর পুত্র মো. কামরুল ইসলাম (৩০) দীর্ঘদিন ধরে সদর বাজারে কামরুল ভ্যারাইটি ষ্টোরের অন্তরালে নিষিদ্ধ ঘোষিত পলিব্যাগের ব্যবসা চালিয়ে আসছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক ব্যবসায়ী এ প্রতিবেদককে জানান, শনিবার দুপুরে কুড়িগ্রাম থেকে ভ্রাম্যমান আদালত চলাকালীন সময়ে কামরুল তার দোকান থেকে ওই ব্যাগগুলো চাউল শেডে রেখে সটকে পড়ে।

error: কপি হবে না!