ads

রবিবার , ২৯ জুন ২০১৪ | ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

সুষমা স্বরাজ, ব্রাহ্মণ, মোল্লাপুত্র ও তিন মাথাওয়ালার গপ্পো

রফিকুল ইসলাম আধার , সম্পাদক
জুন ২৯, ২০১৪ ২:২০ অপরাহ্ণ

এম. লুত্ফর রহমান

Lutfar Rahmanযুগ যুগ ধরে বাঙ্গালীর শিল্প-সাহিত্যে দখল রয়েছে চুটকি শিল্প বা চুটকি সাহিত্যের। অর্ধ বা স্বল্প শিক্ষিত মানুষ এই চুটকি শিল্পের ছড়া বা গল্পের মাধ্যমে তাদের মনের অনুভুতি এবং ঘটনার সরল ও সরস প্রকাশ ঘটিয়ে থাকে। গানের মতই এই চুটকি একটি বিমূর্ত শিল্প বিধায় মানুষের মধ্যে এর গ্রহনযোগ্যতাও বেশী। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের বাংলাদেশ সফর এবং সফরের ফলাফল নিয়ে রাজনৈতিক মহলের মত দেশের স্বল্প শিক্ষিত মানুষের মধ্যেও সৃষ্টি হয়েছে বহুমূখী প্রতিক্রিয়া। দেশ-বিদেশের টিভি চ্যানেল ও পত্র পত্রিকায় সুষমা স্বরাজের সফরের প্রাপ্তি নিয়ে সরকার, সরকারী দল আওয়ামী লীগ ও বিরোধী দল বিএনপির নেতৃবৃন্দের মধ্যে যখন চলছে ব্যাপক আলোচনা ও সমালোচনা এবং বাক-বিতন্ডা, তখন সাধারন স্বল্প শিক্ষিত মানুষও এ নিয়ে বিভিন্ন বিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ছে। চা স্টল, গাড়ী, স্টেশন সহ বিভিন্ন আড্ডা ও জনবহুল স্থানগুলোতে চলছে আলোচনা ও সমালোচনার ঝড়। গত শুক্রবার রাতে নরসিংদী রেল স্টেশন এলাকার একটি চা স্টলে সুষমা স্বরাজের আগমন, প্রত্যাগমন, সরকার, সরকারী দল ও বিরোধী দলের নেতৃবৃন্দের সাথে সাক্ষাত প্রসঙ্গে আলোচনা সমালোচনার এক পর্যায়ে ষাটোর্ধ এক অর্ধ শিক্ষিত ব্যক্তি তার অনুভূতি ব্যক্ত করেছেন একটি চুটকি ছড়ার মাধ্যমে।
তিনি বলেছেন, কোন এক কালে এক ব্রাহ্মনপুত্র ও এক মোল্লাপুত্রের মধ্যে গভীর বন্ধুত্ব ছিল। এই দুই বন্ধু প্রায়ই ভ্রমনে বের হত। একদিন দুই বন্ধু ভ্রমনে বেরিয়ে ক্লান্ত-শান্ত হয়ে একটি নদীর ধারে বাজারের পাশে বট বৃক্ষের নিচে গিয়ে জিরোচ্ছিল। এমন সময় গাছের মগ ডালে বসে একটি পাখি মনের আনন্দে মধুর সুরে ডেকে উঠল। পাখিটির এই সুমধুর আওয়াজ শুনে মোল্লাপুত্র তার বন্ধু ব্রাহ্মনপুত্রকে প্রশ্ন করলো, বলত বন্ধু পাখিটি কি বলেছে? প্রত্যুত্তরে ব্রাহ্মনপুত্র বলল তুমিই বল। তখন মোল্লাপুত্র বলল পাখিটি বলেছে “আল্লাহ রসুল খোদা”। এ কথা শুনে ব্রাহ্মনপুত্র বলল না, পাখিটি বলেছে “হরে কৃষ্ণ রাধা”। এ কথা নিয়ে দু’জনের মধ্যে ব্যপক বাক-বিতন্ডার এক পর্যায়ে দুজনেই অদূরে নদীতে মাছ ধরায়রত এক জেলেকে জিজ্ঞেস করল পাখিটি কি বলেছে। জেলে পাল্টা জিজ্ঞেস করল তোমরা কে কি বলেছ? ব্রাহ্মনপুত্র বলল, আমি বলেছি “হরে কৃষ্ণ রাধা”। মোল্লাপুত্র বলল, আমি বলেছি “আল্লাহ রসুল খোদা”। দুজনের কথা শুনে জেলে বলল, তোমাদের দু’জনের কথাই ভুল। প্রকৃতপক্ষে পাখিটি বলেছে “খইলা পুটি ভেদা”। জেলের কথা নিয়ে শুরু হল ত্রিমুখী বিতন্ডা। এরপর তিনজন মিলে ঘটনা মিমাংসার জন্য গেল নদীর ধারে বসা রাখালের নিকট। সেখানে তিনজন তাদের কথা বলার পর রাখাল বলল তোমাদের তিন জনের কথাই ভুল। আসলে পাখিটি বলেছে “গরু মহিষ গাধা”। রাখালের কথায় দ্বন্দ্ব আরো প্রকট হয়ে উঠল। চতুর্মূখী দ্বন্দ্ব নিরসনে তারা গেল পার্শ্ববর্তী এক পান বিক্রেতার কাছে। পান বিক্রেতা চারজনের কথা শুনে বলে উঠল তোমাদের চারজনের কারও কথাই ঠিক নয়। আসলে পাখিটি বলেছে “পান সুপারী হাদা (সাদা)”। শুরু হলো পঞ্চমুখী দ্বন্দ্ব। পাঁচজন মিলে গেল নিকটবর্তী মুদি দোকানীর কাছে। মুদি দোকানী পাঁচজনের কথা শুনে বলে উঠল পাখিটি প্রায়ই এখানে বসে শুধু বলে “পেয়াজ রশুন আদা”। এবার দ্বন্দ্ব চরম আকার ধারন করলে ছয়জন যুক্তি করে সিদ্ধান্ত নেয় তারা অদূরে রাস্তার ধারে বসা তিন মাথাওয়ালা ক্ষৌরকারের কাছে যাবে। সেখানে গিয়ে ছয়জন ছয়জনের কথা বলতে লাগল। ছয়জনের কথা শুনে তিন মাথাওয়ালা ক্ষৌরকার বলল পাখিটি “হরে কৃষ্ণ রাধা, আল্লাহ রসুল খোদা, খইলা পুটি ভেদা, গরু মহিষ গাধা, পান সুপারী হাদা, পেয়াজ রশুন আদা এসব কথার কিছুই বলেনি। কারও কথাই বলেনি। পাখিটি ডালে বসে শুধু মাত্র পাখির ডাকই ডেকেছে।
এরপর ছড়াসমৃদ্ধ এই চুটকিটি বলে ৬০ বছর বয়সী ব্যক্তিটি বলল, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বাংলাদেশ, সরকারী দল এবং বিরোধী দল কারও স্বার্থেই কাজ করতে আসেননি। তিনি ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী, ঠিক ভারতের স্বার্থ নিয়ে এসেছেন, ভারতের স্বার্থে কথা বলে, ভারতের কাজ করেই তিনি চলে গেছেন।

Shamol Bangla Ads

লেখক : সাংবাদিক, নরসিংদী।

error: কপি হবে না!