ads

বৃহস্পতিবার , ৫ জুন ২০১৪ | ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

শেরপুরের বর্ষীয়ান রাজনীতিক ভাষা সৈনিক আব্দুর রশীদ আর নেই : বিভিন্ন মহলের শোক

রফিকুল ইসলাম আধার , সম্পাদক
জুন ৫, ২০১৪ ৩:৩১ অপরাহ্ণ

Abdur-Rashid_2স্টাফ রিপোর্টার : শেরপুরের বর্ষীয়ান রাজনীতিক, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ভাষা সৈনিক মো. আব্দুর রশীদ (৮৪) আর নেই। তিনি ৫ জুন বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৩ টায় শহরের গৃর্দানারায়ন এলাকার নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করেন। বেশ কিছুদিন যাবত তিনি হৃদরোগ, উচ্চ রক্তচাপ, কিডনী ও লিভার সংক্রান্ত জটিলতায় শয্যাশায়ী ছিলেন। তিনি এটিএন বাংলা, দৈনিক যুগান্তর ও বিডি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকমের শেরপুর প্রতিনিধি এডভোকেট আব্দুর রহিম বাদলের বাবা। তার মৃত্যুর সংবাদে শেরপুরের সর্বস্তরের মানুষের মাঝে শোকের ছায়া নেমে আসে।

Shamol Bangla Ads

তার মৃত্যুতে কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী, হুইপ আতিউর রহমান আতিক, পৌর মেয়র হুমায়ুন কবীর রুমান, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ইলিয়াছ উদ্দিন, চেম্বার সভাপতি গোলাম মোহাম্মদ কিবরিয়া, শেরপুর জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট রফিকুল ইসলাম আধার, শ্যামলবাংলা২৪ডটকম এর নির্বাহী সম্পাদক শাহ্ আলম বাবুল, জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা (জাসাস) এর শেরপুর জেলা সভাপতি এডভোকেট আলমগীর কিবরিয়া কামরুলসহ শেরপুর প্রেসক্লাব, টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরাম, শেরপুর সাংবাদিক কল্যাণ সমিতি, অনলাইন নিউজ পোর্টাল রিপোর্টারস এসোসিয়েশন, বাংলাদেশ অনলাইন জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনশেরপুর জেলা শাখা, শেরপুর টাইমস ডটকম এর পক্ষ থেকে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।
মরহুমের নামাজে জানাযা বৃহস্পতিবার বেলা আড়াইটায় পৌর শহীদ দারোগালি পার্কে অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে বেলা ১ টা থেকে ২ টা পর্যন্ত মরহুমের মৃতদেহ শেরপুর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য রাখা হয়। বিকেলে জানাযা শেষে চাপাতলী পৌর কবরস্থানে মরহুমের দাফন সম্পন্ন করা হয়।
বর্ষীয়ান রজানীতিক আব্দুর রশীদ ১৯৩১ সালের ২৫ জানুয়ারি শেরপুর পৌর শহরের শেখহাটিতে এক সাধারণ কৃষক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। শেরপুরের ঐতিহ্যবাহী ভিক্টোরিয়া একাডেমীতে অধ্যয়নকালে ছাত্রাবস্থায় তিনি ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। এরপর ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্ট, ৬২’র শিক্ষা কমিশন আন্দোলন, ৬৯’র গণঅভ্যূত্থান, ৭০’র নির্বাচন, ৭১’র মহান মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে অবদান রাখেন। এ ছাড়া স্বাধীনতার পরে বিভিন্ন গনতান্ত্রিক, সাংস্কৃতিক ও প্রগতিশীল আন্দোলন এবং শেরপুরের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডেও অবদান রেখেছেন। আইয়ুব বিরোধী আন্দোলনে সক্রিয় থাকায় তৎকালীন সরকার তাকে ষ্টেট প্রিজনার হিসেবে গ্রেপ্তার করলে তিনি ময়মনসিংহ জেলা কারাগারে এক মাস কারাভোগ করেন। বর্নাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী এই মানুষটি মুক্তিযুদ্ধের চেতনার এবং প্রগতিশীল চিন্তা চেতনার প্রশ্নে কোন আপোষ করেননি। কোন ধরনের লোভ লালসা তাকে তার নীতি থেকে বিচ্যূত করতে পারে নি। ১৯৭৫ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বপরিবারে নিহত হলে এর প্রতিবাদ করায় তৎকালীন জিয়াউর রহমান সরকার তাকে ময়মনসিংহ জেলা কারাগারে ৯ মাস কারারুদ্ধ করে রাখেন। আব্দুর রশীদ তার সুদীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে, শেরে বাংলা একে ফজলুল হক, মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রফেসর মোজাফ্ফর আহমেদ, জেনারেল এমএজি ওসমানী ও বিপ্লবী রবি নিয়োগীসহ দেশ বরেণ্য বিভিন্ন রাজনীতিবিদদের সান্নিধ্য লাভ করেন এবং তাদের সঙ্গে বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে অংশগ্রহণ করেন। তিনি দীর্ঘ দিন ধরে স্বাধীনতা বিরোধী রাজাকার, আলবদর ও জামায়াত-শিবির এবং যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে আন্দোলন করে আসছিলেন। বিশেষ করে শেরপুরের কুখ্যাত আল বদর জামায়াত নেতা কামারুজ্জামানের বিরুদ্ধে তিনি সর্বদাই প্রতিবাদী ভুমিকা পালন করেন এবং যুদ্ধাপরাধী কামারুজ্জামানকে সামাজিকভাবে বয়কট করে শেরপুরে এক অন্যন্য নজীর স্থাপন করেন। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত তিনি শেরপুর জেলা ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির আহবায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

error: কপি হবে না!