ads

রবিবার , ২৫ মে ২০১৪ | ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

রৌমারীতে বাড়িতে ঢুকে যুবতীকে অপহরণ চেষ্টা

রফিকুল ইসলাম আধার , সম্পাদক
মে ২৫, ২০১৪ ৪:৩৫ অপরাহ্ণ
রৌমারীতে বাড়িতে ঢুকে যুবতীকে অপহরণ চেষ্টা

জিয়াউর রহমান জিয়া, রাজিবপুর (কুড়িগ্রাম) : বাড়িতে ঢুকে যুবতীকে অপহরণের চেষ্টা করা হয়েছে। এমন লোমহর্ষক ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। ভয়ে ওই মেয়েটি বাড়িতে থাকার সাহস পাচ্ছে না। ঘটনাটি ঘটেছে রৌমারী উপজেলার যাদুরচর ইউনিয়নের প্রত্যন্ত সীমান্ত ঘেঁষা বকবান্ধা নামা পাড়া গ্রামে।

Shamol Bangla Ads

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ওই এলাকার বকবান্ধা নামা পাড়া গ্রামের আ. করিমের কন্যা কল্পনা খাতুন (১৯)কে দীর্ঘদিন যাবৎ উত্ত্যক্ত করে আসছিল একই এলাকার বকবান্ধা নামা পাড়া গ্রামের প্রভাবশালী কারী মো. আশরাফ বারী (৬০)। বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে মেয়েটিকে বাড়ি থেকে অপহরণ করার সময় কল্পনার চিৎকারে তার বাবা মা ও প্রতিবেশীরা এগিয়ে এলে তারা পালিয়ে যান।

মেয়েটি মা বেগম জানান, ‘আমার মাইয়ার অন্য জায়গায় বিয়া অইছিল। ওই ভন্ড কারী সংসার কারনে আমার বেডির সংসার ভাঙছে। অহন বুড়া বয়সে তার পাগলামি ধরছে হে আমার মাইয়ারে বিয়া করবার চায়। আমরা ওই বিয়াতে রাজি অয় নাই দেইহ্যা আমার বাড়িত থিকা রাইতে কল্পনারে তুইলা নিবার আইছিল। গ্রামের মানুষ না আইলে আমাগো মাইরা ওরে তুইলা নিত ওই কারীর লোকজন।’

Shamol Bangla Ads

মেয়েটির বাবা দিনমজুর আ. করিম জানায়, আমি খুব গরিব বইলা আমার বেডির (কন্যা) সংসার ভাঙছে ওই বদমেশ কাজি। অহন আমার বাড়িত আইস্যা গেদির মারে ফুসলায় গেদিরে বিয়া করবার চায়। আমরা না করি দেইখ্যা তার বাহিনী দিয়া আইতে তুইলা নিবার আইছিল। ভাগ্যভাল বেডির, পাড়ার লোক না আইলে আমার কি সর্বনাশই না অইত। আমি এর বিচার চাই। তার অত্যাচারে মেয়েটি এখন রাস্তায় বের হতেও পায় না। ওই লম্পটকারী ও তার বাহিনীরা ইতোমধ্যেই ঘোষণা দিয়েছে গ্রামে, যেখানে পাওয়া যাবে কল্পনাকে সেখান থেকেই তারা তুইলা নিয়া যাব। তার এমন অপকর্ম আরো আছে। এ যাবৎ সে ৫টি বিয়ে করেছে। প্রত্যেক ঘরেই তার ছেলেমেয়ে আছে। বর্তমানে কাজির তিন বউ আছে।

যাদুরচর ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান জানান, বকবান্ধা গ্রাম একেবারে ভারতের সাথে লাগা। সেখানে যাইতে নদী পরাপার হতে হয়। আর আশরাফ আলী একাধারে আমার ইউনিয়নের নিকাহ রেজিস্ট্রারের লাইসেন্সকৃত কাজি। সে কারিয়ানা পাস একজন মৌলভীও বটে। এর আগেও তার অপকমের কথা লোকমুখে অনেক শুনেছি। এখনও তার ঘরে ৩টি বউ আছে, তারপরও একটি গরিব অসহায় মেয়ের সংসার ভাঙা, তাকে জোরপূর্বক বিয়ে করা এটা অত্যন্ত দুঃখজনক।

এব্যাপারে যাদুরচর ইউনিয়নের কাজি কারি মো. আশরাফ বারির মতামত নেয়ার জন্য তার মোবাইলফোনে বার বার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। পরে তার বাড়িতে গেলে তাকে বাড়িতেও পাওয়া যায়নি। ঘটনা প্রসঙ্গে রৌমারী থানার এসআই মোর্শেদুর রহমান জানান, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত চলছে।

error: কপি হবে না!