ads

বুধবার , ২১ মে ২০১৪ | ২৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

৫ বিয়ের পর কলেজ ছাত্রীকে অপহরণ

শ্যামলবাংলা ডেস্ক
মে ২১, ২০১৪ ৬:৪৮ অপরাহ্ণ
৫ বিয়ের পর কলেজ ছাত্রীকে অপহরণ

আজহারুল হক, গফরগাঁও  ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার পাইথল গ্রামের দাদন ব্যবসায়ী ৪ সন্তানের জনক নূরুল হক দুলাল (৪২) । বিয়ে করেছেন এক এক করে ৫টি বিয়ে করার পর এবার কন্যা বয়সী এক কলেজ ছাত্রীকে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে দুলালের বিরুদ্ধে।

Shamol Bangla Ads

জানা যায়, কন্যা বয়সী একাদশ শ্রেনীর এক ছাত্রীর সাথে স¤প্রতি প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে দুলাল। সম্পর্কটি অসম হওয়ায় পরিবারের লোকজন মেয়েকে গফরগাঁও পৌর এলাকার তার এক আত্মীয়ের বাসায় রেখে পড়াশুনার ব্যবস্থা করে। তাতে ক্ষান্ত হননি প্রেমিক প্রবর দুলাল। গত ২৬ এপ্রিল দুলাল গফরগাঁও মহিলা ডিগ্রি কলেজের সামনে থেকে শারমিন আক্তারকে (১৭) দলবল নিয়ে অপহরন করে নিয়ে যায় বলে ছাত্রীর পরিবার অভিযোগ করেন। এ ঘটনায় অপহৃত কলেজ ছাত্রী শারমিন আক্তারের বড় ভাই কাউছার অহমেদ বাদী হয়ে গফরগাঁও সদর থানায় একটি অপহরন মামলা দায়ের করেছেন।
থানায় দায়েরকৃত মামলা সুত্রে জানা যায়, গফরগাঁও উপজেলার পাইথল ইউনিয়নের পাইথল গ্রামের আব্দুল হামিদের কলেজ পড়–য়া মেয়ে শারমিন আক্তারকে দীর্ঘ দিন যাবত নানাভাবে উক্ত্যক্ত করে আসছিল একই এলাকার বিয়ে পাগল ৪ সন্তানের জনক দুলাল। শারমিনের পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধারে প্রাণপন চেষ্টা করে ব্যর্থ হলে গত মঙ্গলবার রাতে ঘটনার নায়ক দুলালসহ তার ৫ সহযোগিকে আসামী করে গফরগাঁও থানায় অপহরন মামলা দায়ের করেন তার পরিবার।
এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, নারী লিস্পু দুলাল ইতিপূর্বে ৫টি বিয়ে করেছেন। প্রথম বিয়ে করেন ১৯৯৪ সালে ভালুকা উপজেলার রাজই ইউনিয়নের কুলাবর গ্রামের খুকি আক্তারকে। কিছুদিন পর দুই সন্তান রেখে প্রথম স্ত্রীকে তালাক দেন। পরে এলাকায় আলোচনায় আসেন আপন ফুফাত ভাইয়ের মেয়ে পাইথল গ্রামের নাসিমাকে বিয়ে করে। অর্থ বিত্তের জোরে একের পর এক বিয়ে করতে থাকেন  দুলাল।  তার অতীত জীবন গোপন করে তৃতীয় বিয়ে করেন শ্রীপুর উপজেলার অষ্টাদশী রহিমা খাতুনকে। গফরগাঁও উপজেলার মশাখালী ইউনিয়নে আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে বিয়ে করেন অল্প বয়সী মাবিয়া খাতুনকে। তারপরও ক্ষান্ত হননি বিকৃত মানসিকতার পুরুষ নূরুল হক দুলাল। রূপের নেশায় মদির দুলাল ২০০২ সালে পঞ্চম স্ত্রী হিসেবে গ্রহন করেন পাইথল গ্রামের পপি আক্তারকে। সর্বশেষ লম্পট দুলাল কলেজ ছাত্রী শারমিন আক্তারকে অপহরন করে অজ্ঞাতবাসে চলে যায়।
এ ব্যাপারে গফরগাঁও সদর থানার ওসি সৈয়দ আব্দুল­াহ জানান, নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে থানায় মামলা  হয়েছে। কলেজ শারমিনকে উদ্ধারে পুলিশি অভিযান চলছে।

error: কপি হবে না!