ads

বুধবার , ২৩ অক্টোবর ২০১৩ | ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

সাপাহারে ইভটিজারকে গণধোলাই

রফিকুল ইসলাম আধার , সম্পাদক
অক্টোবর ২৩, ২০১৩ ২:২২ অপরাহ্ণ

photo,sapahar,22-10-13 (1)নয়ন বাবু, সাপাহার (নওগাঁ) : সাপাহারে কলেজ ছাত্রীকে ইভটিজিং এর দায়ে অভিযুক্ত বকুল হোসেন (৩৮) নামের এক ব্যক্তিকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে অভিভাবক ও স্থানীয় এলাকাবাসী। ২২ অক্টোবর মঙ্গলবার বিকেলে ওই ঘটনা ঘটে।
জানা গেছে, কলমুডাঙ্গা চৌমহনী গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্যের কন্যা ও কলেজ ছাত্রী (১৯) কে বিভিন্ন সময় বলদিয়াঘাট গ্রামের আব্দুস সালামের ছেলে বকুল হোসেন (৩৮) বিভিন্ন সময়ে উত্যক্ত করে আসছিল। এ বিষয়ে ছাত্রীর পিতা গত ৭ মাস পূর্বে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট লিখিত অভিযোগ করলে অভিযোগের প্রেক্ষিতে সে সময় বকুল হোসেন কে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. রুহুল আমিন মিঞা ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে ৬ মাসের কারাদন্ড প্রদান করেন। দীর্ঘ ৬ মাস সাজা ভোগ করার পর আসামী বকুল গ্রামে ফিরে আসে। গত ১৮ অক্টোবর বেলা ১১টায় বকুল ওই ছাত্রীর বাড়িতে প্রবেশ করে তার স্বামীর উপস্থিতিতে হাত ধরে টানা-হেঁচড়া করতে থাকে এবং জোরপূর্বক বিবাহ করার হুমকি দেয়। এ বিষয়ে সাপাহার থানায় লিখিত অভিযোগ করা হলে আসামী আত্মগোপন করে থাকে। মঙ্গলবার আসামী বকুল মিঞা বাসযোগে পালিয়ে যাওয়ার পথে উপজেলার ভাতকাড়া মোড়ে পৌছালে ওই ছাত্রীর অভিভাবক ও স্থানীয় জনতা তাকে আটক করে গণধোলাই দিয়ে ঘটনাস্থলে ফেলে রাখে। সংবাদ পেয়ে থানার এসআই শাহীন রেজা ও এসআই মামুনুর রশিদ সঙ্গীয় ফোর্সসহ ঘটনাস্থল থেকে গুরুতর আহত অবস্থায় বকুল কে উদ্ধার করে সাপাহার সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করে। এ বিষয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নূর ইসলাম জানান, পুলিশ পাহাড়ায় ইভটিজার বকুলের চিকিৎসা চলছে। সুস্থ্য হলে তাকে আদালতে প্রেরন করা হবে।

error: কপি হবে না!