ads

রবিবার , ৪ আগস্ট ২০১৩ | ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

কুড়িল ফ্লাইওভার উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

শ্যামলবাংলা ডেস্ক
আগস্ট ৪, ২০১৩ ১:৩১ অপরাহ্ণ

Flyover-শ্যামলবাংলা ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৪ আগস্ট রবিবার রাজধানীর কুড়িল ফ্লাইওভার উদ্বোধন করেছেন। দুপুর পৌনে ১২টার দিকে সেতুটি উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনের পরপরই সেতুটি যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে। আশা করা হচ্ছে, ফ্লাইওভারটি চালুর ফলে সংশ্লিষ্ট এলাকায় যানজট তুলনামূলকভাবে কমবে। এটি ঢাকা-সিলেট, ঢাকা-ময়মনসিংহ ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে সংযোগ সেতু হিসেবেও কাজ করবে।
সেতু সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, কুড়িল ফ্লাইওভারটি উদ্বোধন হলেও এর ৪ টি লুপের মধ্যে ১টি, ২টি ফুটওভারব্রিজ ও লেকের শেষ পর্যায়ের কাজ ও সৌন্দর্যবর্ধনের কাজ এখনো বাকি রয়েছে। তবে এগুলো ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ হতে পারে বলে জানানো হয়। এই সেতু দিয়ে নিরবচ্ছিন্নভাবে পূর্বাচল থেকে প্রগতি সরণি হয়ে রামপুরা, বনানী, নিকুঞ্জ ও উত্তরা আবাসিক এলাকায় একমুখী যান চলাচল করবে। রাজউকের নিজস্ব অর্থায়নে ২০১০ সালে ৩০৩ কোটি টাকা ব্যয়ে এই উড়ালসেতুর কাজ শুরু হয়। এর দৈর্ঘ্য ৩ দশমিক ১ কিলোমিটার।
রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) চেয়ারম্যান নুরুল হুদা বলেন, ‘প্রতিদিন কুড়িল ইন্টারসেকশন দিয়ে প্রায় দুই লাখ মোটরযান যাতায়াত করে। ৯৮টির বেশি ট্রেন চলে। একেকটি ট্রেনের জন্য প্রতিটি যানকে দুই থেকে আট মিনিট আটকে থাকতে হয়। এতে প্রতিদিন আট শ্রমঘণ্টা নষ্ট হতো। এখন আর এই সমস্যা থাকবে না।’ তবে স্থায়ীভাবে ঢাকা মহানগরীর যানজট নিরসনে কমলাপুর থেকে টঙ্গী পর্যন্ত একটি মেট্রো রেল বা সাবওয়ে নির্মাণ জরুরি বলে মত দেন তিনি।

error: কপি হবে না!