ads

রবিবার , ১৭ মার্চ ২০১৩ | ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন নিউজ পোর্টাল
  1. ENGLISH
  2. অনিয়ম-দুর্নীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আমাদের ব্লগ
  6. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন-অগ্রগতি
  9. এক্সক্লুসিভ
  10. কৃষি ও কৃষক
  11. ক্রাইম
  12. খেলাধুলা
  13. খেলার খবর
  14. চাকরির খবর
  15. জাতীয় সংবাদ

রাজনৈতিক সহিংসতা আড়াই মাসেই এক বছরের সমান

শ্যামলবাংলা ডেস্ক
মার্চ ১৭, ২০১৩ ১:০০ অপরাহ্ণ
রাজনৈতিক সহিংসতা আড়াই মাসেই এক বছরের সমান

image_16485_0ঢাকা: বাংলাদেশে রাজনৈতিক সহিংসতা বাড়ছে৷ সহিংসতার পেছনে আছে বাংলাদেশের বড় দুটি রাজনৈতিক দলের ক্ষমতাকেন্দ্রিক রাজনৈতিক চরিত্র – এই অভিমত বিশ্লেষকদের৷

Shamol Bangla Ads

বাংলাদেশে গত বছর মানে ২০১২ সালে রাজনৈতিক সহিংসতা এবং সংঘাত সংঘর্ষে নিহত হয়েছেন ১৬৯ জন৷ আহত হয়েছেন ১৭,১৬১ জন৷ সংঘাতের ঘটনা ঘটেছে ছোট-বড়, স্থানীয়-জাতীয়, অভ্যন্তরীণ অথবা দুই বড় দলের মধ্যে কম বেশি ১০০০৷ আর চলতি বছরের প্রথম আড়াই মাসেই নিহত হয়েছেন ১২০ জন৷ ফেব্রুয়ারি মাসের ২৮ তারিখ থেকে মার্চ মাসের ৫ তারিখে নিহত হয়েছে ৯৮ জন৷ মানবাধিকার সংগঠন অধিকারের হিসাব থেকে এ তথ্য জানা গেছে৷

কিন্তু বিশ্লেষকরা ফেব্রুয়ারি মাসের ২৮ তারিখ থেকে মার্চ মাসের ৫ তারিখ পর্যন্ত সহিংসতাকে প্রচলিত রাজনৈতিক সহিংসতার মানদণ্ডে বিচার করতে চান না৷ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক হাফিজুর রহমান মনে করেন, জামায়াত নেতা মাওলানা দেলোয়ার হোসেন সাঈদীর মৃত্যুদণ্ডের রায়ের পর যে সহিংসতা তা পরিকল্পিত৷ সেখানে মূলত জামায়াত-শিবির মৃত্যুদণ্ডের রায় বাতিলের দাবিতে সরাসরি পুলিশের সঙ্গে সংঘাতে জড়িয়ে পড়ে৷ তারাও যেমন এর শিকার হয়েছেন, তেমনি পুলিশ এবং সাধারণ মানুষও এর শিকার হয়েছেন৷ তবে পুলিশ হয়তো আরো একটু কৌশলী হতে পারত৷

Shamol Bangla Ads

মানবাধিকার সংগঠন আইন ও শালিস কেন্দ্রের পরিচালক নূর খান বলেন, এই সংঘাতে সবচেয়ে নেতিবাচক রাজনীতির প্রকাশ ঘটেছে৷ চাঁদে মাওলানা দেলোয়ার হোসেন সাঈদীর ছবি দেখা গেছে– আধুনিক যুগেও এমন গুজব ছড়িয়ে সংঘাত বাঁধানো হয়েছে৷ আর ব্যবহার করা হয়েছে ধর্মকে৷ যা প্রমাণ করছে রাজনৈতিক গোষ্ঠী তাদের স্বার্থে ধর্মকে এখনো যথেচ্ছ ব্যবহার করে৷

তারা বলেন, প্রচলিত রাজনৈতিক সংঘাত অনেকটা ক্ষমতাকেন্দ্রিক৷ বাংলাদেশের রাজনীতির যা চরিত্র, তাতে সরকারের শেষ দিকে রাজনৈতিক সংঘাত বাড়ে৷ বিরোধী দল চায় সরকারকে দুর্বল করতে৷ আর সরকার চায় বিরোধী দলের আন্দোলন দমন করতে৷ ফলে সংঘাত অনিবার্য হয়৷

অধ্যাপক হাফিজুর রহমান মনে করেন, এতে দেশের যেমন ক্ষতি হয়, সাধারণ মানুষও পড়েন বিপাকে৷ তাই সরকার ও বিরোধী দল উভয়কে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেয়া উচিত৷ বিরোধী দলের উচিত সরকারকে তার মেয়াদ পূরণ করতে দেয়া৷ আর সরকারেরও উচিত ক্ষমতা কুক্ষিগত করার কোনো চেষ্টা বা ইঙ্গিত না দেয়া৷

নূর খান বলেন, “রাজনীতিতে পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ থাকা প্রয়োজন৷ প্রয়োজন বিরোধী মতকে সম্মান দেয়া৷ তা না হলে সংঘাত থামান কঠিন৷” সূত্র: ডিডব্লিউ

নতুন বার্তা/জবা

error: কপি হবে না!