প্রকাশকাল: 25 মার্চ, 2019

হিজড়াদের প্রতি ভালোবাসা…

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ‘হিজড়া’ সমাজে তারা অবহেলিত। পরিবারে তাদের ঠাঁই নেই। রাষ্ট্র তাদের তৃতীয় লিঙ্গ বলে স্বীকৃতি দিলেও সামাজিক স্বীকৃতি মেলেনি। যে কারণে নিজেরাই নিজেদের প্রয়োজনে দলবদ্ধ হয়ে বসবাস শুরু করে হিজড়ারা। কিন্তু কেউ তাদেরকে বাসা ভাড়া দিতে চায় না, কোন হোটেলে বসে তাদেরকে খাবার খেতে দেওয়া হয় না। নেই বাসস্থান, কর্মসংস্থানের সুযোগ। শেরপুরের হিজড়াদের জীবনমান উন্নয়নে সম্প্রতি জেলা প্রশাসনের সাথে এক মতবিনিময় সভা করে জনউদ্যোগ নামের একটি নাগরিক প্ল্যাটফরম। সেই মতবিনিময় সভায় হিজড়াদের অবর্ণনীয় দুর্ভোগের কথা শুনে জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব তাদের প্রতি সহমর্মি হয়ে ওঠেন। তিনি নিয়মিত তাদের খোঁজ-খবর নিতে থাকেন। গত শীতে হিজড়াদের নিজের অফিস কক্ষে ডেকে নিয়ে শীতবস্ত্র দেন। হিজড়াদের পূনর্বাসনের জন্য আবাসন প্রকল্প করার চিন্তা শুরু করেন। সমাজসেবা অধিদপ্তর এবং যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের জেলা কর্মকর্তাদের নিজ অফিসে ডেকে নিয়ে হিজড়াদের তালিকা প্রণয়ন ও তাদের কর্মসংস্থানের জন্য কী করা যায়, সে বিষয়ে কর্মসূচি গ্রহণের তাগিদ দেন। হিজড়ারাও জেলা প্রশাসককে আপন ঘরের লোক ভাবতে থাকেন এবং নিজেদের সমস্যার কথা বলা শুরু করেন। জেলা প্রশাসকও মনোযোগ দিয়ে তাদের কথা শুনেন এবং সবসময় তাদের পাশে থাকার আশ্বাস দেন।
এর মধ্যেই গত ২২ মার্চ ‘মাধুরী’ নামের এক হিজড়া কিডনি এবং মূত্রনালির সংক্রমণে গুরুতর অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। তাকে শেরপুর জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বিষয়টি জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুবকে জানানো হলে হিজড়া মাধুরীর সু-চিকিৎসার জন্য সিভিল সার্জনকে অনুরোধ জানান। কিন্তু অবস্থার অবনতি হলে ব্যক্তিগত তহবিল থেকে নগদ ১০ হাজার টাকা প্রদান করা ছাড়াও সরকারি খরচে, সরকারি অ্যাম্বুলেন্সে মাধুরী হিজড়াকে চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির ব্যবস্থা করেন। কিন্তু চিকিৎসকদের সকল প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে পৃথিবীর সকল মায়া ত্যাগ করে ২৪ মার্চ রবিবার সন্ধ্যায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে প্রবেশের সময় মাধুরী হিজড়ার মৃত্যু হয়। মাধুরী হিজড়ার মৃত্যুর বিষয়টি জেলা প্রশাসককে জানানো হলে তিনি আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। উপজেলা নির্বাচনের প্রবল ব্যস্ততার মাঝেও মাধুরী হিজড়ার সৎকারের বিষয়ে তিনি খোঁজ-খবর নেন এবং রাতে হিজড়াদের সংগঠন ‘আমরাও মানুষ’ সভাপতি নিশি সরকারকে নিজ কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে গভীর শোক প্রকাশের সাথে সাথে সৎকারের জন্য নগদ ১০ হাজার টাকা প্রদান করেন। ২৫ মার্চ সকাল ১০টায় সদর উপজেলার পাকুড়িয়া তারাগড় মাইজ পাড়ার (নতুন মসজিদ) আইন উদ্দিন চেয়ারম্যানের বাড়ির মাঠে মাধুরী হিজড়ার নামাজে জানাযা শেষে স্থানীয় কবরস্থানে লাশ দাফন করা হয়। জানাযা ও দাফন অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসনের একজন প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।
তৃতীয় লিঙ্গের একজন হিজড়ার প্রতি জেলা প্রশাসকের এমন মহানুভবতার বিষয়টি হিজড়া জনগোষ্ঠি ও নাগরিক সমাজকে দারুণভাবে আপ্লুত করেছে। জনউদ্যোগ জেলা কমিটির আহ্বায়ক নবারুণ পাবলিক স্কুলের প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ বলেন, হিজড়াদের প্রতি জেলা প্রশাসকের এমন মহানুভবতা বিরল ঘটনা। এ ঘটনা আমাদেরকে নতুন করে ভাবতে চেষ্টা করছে, অনুপ্রাণিত করছে, সামাজিক দায়বদ্ধতা বাড়িয়ে দিয়েছে। বিষয়টি সকলের জন্য অনুকরনীয়। আমরা জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুবের প্রতি নাগরিক সমাজের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।
হিজড়াদের সংগঠন ‘আমরাও মানুষ’ সভাপতি নিশি সরকার বলেন, জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব স্যারের প্রতি আমাদের কৃতজ্ঞতার শেষ নেই। তিনি আমাদের আশার আলো দেখাচ্ছেন। সত্যিই আমরাও যে মানুষ তিনি আমাদেরকে সেই ভাবনা ছড়িয়ে দিলেন। তার প্রতি বিশ্বাস এবেং আস্থা আরো বেড়ে গেছে। আমরা তার সর্বাঙ্গিণ মঙ্গল কামনা করি। আল্লাহ তার আরো ভালো করুন।

আপনার মতামত দিন

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

error: Content is protected !!