রাত ২:২৪ | শুক্রবার | ১০ই জুলাই, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সাবেক এমপি শ্যামলী ॥ মানবতার এক অনন্য ফেরীওয়ালা

করোনা পরিস্থিতিতে ব্যক্তিগত সহায়তা পেলেন ২৬ হাজার ৩শ মানুষ

শ্যামলবাংলা ডেস্ক ॥ প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসজনিত পরিস্থিতিতে সারাবিশ্বের সাথে বাংলাদেশের পরিস্থিতিও যখন নাকাল, ঠিক তখন সাধারণ ছুটি ও প্রতিষ্ঠান বন্ধের পাশাপাশি দীর্ঘ লকডাউনে কর্মহীন হয়ে পড়া দরিদ্র-অসহায় মানুষগুলোর জীবন চরম ওষ্ঠাগত। আর শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার ও প্রশাসনের পাশাপাশি বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন বৃহত্তর মানবিকতায় নিরলসভাবে কাজ করে যাবার পরও যখন সরকার প্রধান ও তার দলের নির্দেশনা উপেক্ষা করে শীর্ষ ও দায়িত্বশীল প্রতিনিধিদের অনেকেই হাত গুটিয়ে বসে আছেন, ঠিক তখন ব্যতিক্রমী হয়ে শেরপুরে কাজ করছেন আওয়ামী লীগের সংরক্ষিত আসনের সাবেক এমপি এডভোকেট ফাতেমাতুজ্জহুরা শ্যামলী। বর্তমানে দায়িত্বশীল বা জনপ্রতিনিধি না হয়েও অসহায় হতদরিদ্র মানুষের সেবায় নিজেকে উৎসর্গ করে হাজার হাজার মানুষের প্রশংসা কুড়িয়েছেন। সেইসাথে চলমান করোনা পরিস্থিতিতে মানবতার সেবায় এক অনন্য ফেরীওয়ালা হিসেবে পেয়েছেন সুখ্যাতি।

img-add

শেরপুরের এক ঐতিহ্যবাহী পরিবারের সন্তান এডভোকেট ফাতেমাতুজ্জহুরা শ্যামলী। পিতা প্রয়াত বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, রাজনীতিক ও শ্রমিকনেতা সেলিম রেজার একমাত্র কন্যা শ্যামলী পারিবারিক সূত্রে ছাত্রজীবন থেকেই আওয়ামী লীগের আদর্শের রাজনীতির সাথে যুক্ত হন। রাজধানী ঢাকার ইডেন কলেজ থেকে সমাজবিজ্ঞানে অনার্স-মাস্টার্স শেষ করার পর শেরপুরে এসে জেলা যুব মহিলা লীগের রাজনীতির সাথে সরাসরি যুক্ত হন। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারবিরোধী আন্দোলনের এক কঠিন সময়ে দায়িত্ব পান ওই সংগঠনের যুগ্ম আহবায়ক হিসেবে। সেই থেকে জেলা শহরসহ ইউনিয়ন পর্যায়েও ছুটে বেরিয়েছেন। দলের প্রতিটি কর্মকা-ে সক্রিয়ভাবে করেছেন অংশ গ্রহণ। ওই অবস্থায় ২০০৯ সালে সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে অংশ নিয়ে নানা ইলেকশন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের কারণে হারলেও তার পরিচিতির পাশাপাশি ধাপে ধাপে বেড়ে যায় জনপ্রিয়তা। সেইসাথে পিতার মৃত্যুজনিত কারণে পরিবারসহ পৈত্রিক ব্যবসার হাল ধরায় অল্প কিছুদিনের মধ্যেই একজন যুব ও নারী উদ্যোক্তা হিসেবেও পেয়ে যান পরিচিতি।

আর এমনই সফলতার ধারাবাহিকতায় ২০১৪ সালে দশম জাতীয় সংসদে শেরপুর-জামালপুর সংরক্ষিত আসনে শেরপুরের হয়ে স্বাধীনতার পর প্রথমবারের মতো সংরক্ষিত সংসদ সদস্য পদে নির্বাচিত হন। এত ঝামেলা-ব্যস্ততার পরও প্রয়াত বাবার ইচ্ছে পূরণে ২০১৭ সালে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের আইনজীবী হিসেবে তালিকাভূক্ত হন এবং শেরপুর বারের সদস্যপদ গ্রহণ করেন।
এদিকে এডভোকেট ফাতেমাতুজ্জহুরা শ্যামলীর পূর্ব পর্যন্ত অন্য যারা শেরপুর-জামালপুর অঞ্চলে সংরক্ষিত আসনের এমপি ছিলেন- তাদের দ্বারা শেরপুর অঞ্চলের উন্নয়ন দূরে থাক, বরং তার বা তাদের যাতায়াত না থাকায় এ অঞ্চলে সেই মহিলা এমপিদের নামটা পর্যন্ত জানা হয়নি অনেকের। আর শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সংরক্ষিত আসনের এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর শেরপুর পৌরসভা ও সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নসহ অপর দু’টি নির্বাচনী এলাকাতেও শ্যামলীর বিচরণ ও সহায়তা ছিল অকৃপণ। সরকারি স্বাভাবিক বরাদ্দের পরও নিজের চেষ্টা-তদবিরে অনেক এলাকায় বহু উন্নয়ন কর্মকা-ে রেখেছেন কৃতিত্বের স্বাক্ষর। এরপরও বরাদ্দের তুলনায় চাহিদা পূরণ সম্ভব না হলে ব্যয় করেছেন ব্যক্তিগত অর্থ। তার উন্নয়নের ছোঁয়া থেকে বাদ যায়নি শতশত শিক্ষা, ধর্মীয় ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ জেলা আইনজীবী সমিতি ও সহকারী আইনজীবী সমিতিও।
কিন্তু এবার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জামালপুর থেকে সংরক্ষিত নারী এমপি মনোনীত হওয়ায় বাদ পড়ে যান এডভোকেট শ্যামলী। এতে তিনি নিজে যতটুকু ব্যথিত হয়েছেন, তার চেয়ে ততোধিক ব্যথিত হয়েছেন এ অঞ্চলের হাজার হাজার মানুষ, যাদের অনেকেই শ্যামলীর মানবিক সেবায় উপকৃত। কিন্তু এরপরও থেমে থাকেননি শ্যামলী। সরকারি দায়িত্বে না থেকেও ব্যক্তিগত ও পারিবারিক অর্থায়নে লাগাতার চালিয়ে যাচ্ছেন নানা সেবামূলক কর্মকাণ্ড। গত ঈদুল ফিতর, কোরবানীর ঈদসহ বাংলা নববর্ষ উদযাপনে যুব মহিলা লীগসহ বিভিন্ন পর্যায়ে দলীয় নেতা-কর্মীদের মূল্যায়নের পাশাপাশি হতদরিদ্র ও অসহায় মানুষকে করেছেন সহায়তা। কখনও বা এগিয়ে গেছেন আর্তমানবতার সেবায়, দাঁড়িয়েছেন পাশে। এরপরও দলীয় কর্মকাণ্ডসহ জাতীয় দিবসগুলো উদযাপনে রেখেছেন বিশাল ভূমিকা।
এরই ধারাবাহিকতায় এবার প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে দীর্ঘ প্রায় ২ যাবত অফিস-আদালত, কল-কারখানা বন্ধ থাকায় কর্মহীন হয়ে পড়া হতদরিদ্র অসহায় মানুষগুলোর সেবায় প্রথম থেকেই কাজ করছেন শ্যামলী। ফলে করোনা পরিস্থিতির প্রথমভাগে সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নসহ পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে করোনা মোকাবেলায় জনসচেতনতা বাড়াতে অসহায় পরিবারগুলোর মাঝে মাস্ক, সাবান ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করেন। এরপর ব্যক্তিগত তরফ থেকে দেন প্রায় ৩ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা। কেবল তাই নয়, করোনা পরিস্থিতির কারণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার স্বার্থে এবার রমজানে ইফতার মাহফিল বা পার্টি বন্ধ থাকায় তার তরফ থেকে নেওয়া হয় এক ব্যতিক্রমী উদ্যোগ। আর সেই উদ্যোগের আওতায় রমজানের প্রথম দিন থেকে শুরু করে শেষ দিন পর্যন্ত (২৪ মে) প্রতিদিন ৫শ করে ইফতারীর প্যাকেট পর্যায়ক্রমে পৌঁছে দেওয়া হয় সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন ও পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের হতদরিদ্র ও অসহায় মানুষের ঘরে ঘরে। নিজের গড়া আদরজান ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা ও যুব মহিলা লীগের নেতা-কর্মীদের সহায়তায় প্রতিদিন দু’টি পিকআপ ভ্যানে করে অনেকটা ভ্রাম্যমাণ আকারে ওই ইফতার আয়োজন ঘরে থাকা মানুষ ছাড়াও হাট-বাজার ও পথচারী মানুষদের হাতেও পৌঁছে। এটি যেন কেবল শেরপুরে নয়, পরিবর্তিত অবস্থায় খোদ বাংলাদেশেই এক অনন্য বিরল দৃষ্টান্ত। ফলে তার এ ব্যতিক্রমী উদ্যোগ ও আয়োজনটি এখন মানুষের মুখে মুখে। তিনি নিজেও ভাসছেন হাজার হাজার মানুষের প্রশংসায়। এছাড়া গণমাধ্যম কর্মী, স্বেচ্ছাসেবী ও ইমাম-মুয়াজ্জিনদের হাতে পৌঁছে দিয়েছেন প্রায় ৩শ পিপিইসহ (প্রাইভেট প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্ট) অন্যান্য অনুসঙ্গ।
কেবল তাই নয়, করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই মুসলিম উম্মাহর সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর সমাগত হওয়ায় ২১ মে থেকে ৩ দিনব্যাপী অসহায় ও হতদরিদ্র মানুষের মাঝে নিজ হাতে বিতরণ করেছেন প্রায় ৫ সহস্রাধিক ঈদবস্ত্র। এছাড়া নানা পর্যায়ে পাঠিয়েছেন ঈদ উপহার ও আর্থিক সহায়তা। আর এ সবকিছু মিলে বিশেষ করে এবারের কঠিন পরিস্থিতিতে পুনঃপুন সহায়তা অব্যাহত রাখায় তার নাম এখন মানুষের মুখে মুখে। সেইসাথে তার নামের আগে সমস্বরে উচ্চারিত হচ্ছে মানবতার অনন্য এক ফেরীওয়ালা হিসেবে।
সাবেক এমপি শ্যামলীর মানবিক সহায়তা প্রসঙ্গে জেলা কৃষক লীগের সম্পাদকম-লীর সদস্য ও নাগরিক সমাজের নেতা মাহবুবুর রহমান লিটন বলেন, এডভোকেট ফাতেমাতুজ্জরা শ্যামলী পৈত্রিক সূত্রেই উদারনৈতিক ও দানশীল মনমানসিকতার অধিকারী। যে কারণে এবার জনপ্রতিনিধি না হয়েও করোনার মতো কঠিন পরিস্থিতিতে কেবল ব্যক্তিগত অর্থায়নে এলাকার হতদরিদ্র ও অসহায় মানুষের সহায়তা অব্যাহত রেখেছেন। একই কথা জানান শ্যামলীর নানা সেবামূলক কর্মকা-ে যুক্ত থাকা যুব মহিলালীগ নেত্রী মাহবুবা রহমান শিমু। আদরজান ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা মোঃ উমর ফারুক বলেন, তিনি প্রকৃত অর্থেই একজন জনদরদী মানুষ। মানুষের দুঃখ-কষ্টের সময় তিনি কখনোই নিজেকে আড়ালে রাখতে পারেন না। সবসময়ই নিজের সামর্থ অনুযায়ী ঝাঁপিয়ে পড়েন তাদের সেবায়। আর এজন্য এবার কঠিন পরিস্থিতিতে তার তরফ থেকে পুরো রমজানজুড়ে প্রতিদিন ৫শ করে হিসেবে ১৫ হাজার মানুষের হাতে ইফতারী, প্রায় ৫ হাজার মানুষের মাঝে মাস্ক-সাবান, ৩শ মানুষের মাঝে পিপিই এবং ৫ সহস্রাধিক হতদরিদ্র অসহায় মানুষের মাঝে ঈদবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। এরপরও দলীয় নেতা-কর্মীসহ নানা পর্যায়ে প্রায় ১ হাজার মানুষকে ঈদ উপহারসহ দেওয়া হয়েছে আর্থিক সহায়তা।
এ ব্যাপারে সাবেক এমপি এডভোকেট ফাতেমাতুজ্জহুরা শ্যামলী ২৪ মে শ্যামলবাংলা২৪ডটকমকে বলেন, পারিবারিক ঐতিহ্যের সূত্র ধরেই যেকোন উৎসব-পার্বণসহ দুর্যোগ-সংকটে আমাদের সহযোগিতা থাকে। সেই ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতা রক্ষায় এবার জনপ্রতিনিধি না হয়েও প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনার নির্দেশনায় করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলায় জেলা যুব মহিলা লীগের তরফ থেকে জনসচেতনতা বৃদ্ধিমূলক কর্মকান্ড পরিচালনাসহ লকডাউনে কর্মহীন হয়ে পড়া হতদরিদ্র অসহায় মানুষের পাশে থেকেছি। প্রতিদিন পর্যায়ক্রমে পৌরসভাসহ প্রতিটি ইউনিয়নে ইফতারী পৌঁছানোসহ খাদ্য সহায়তা এবং ঈদবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। এ ধরনের সহায়তা যত বেশি করা যায়, ততই নিজের ভালো লাগে। কাজেই চলমান পরিস্থিতিসহ যেকোন দুর্যোগ আর উৎসবে আমার তরফ থেকে সার্বিক সহায়তা থাকবে। তিনি শ্যামলবাংলা২৪ডটকমসহ সকল গণমাধ্যমকর্মী এবং জনপ্রতিনিধি, সরকারি-বেসরকারি ও স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের প্রতি পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগাম শুভেচ্ছা জানান। সেইসাথে সকলের সুখ-সমৃদ্ধি ও উন্নতি কামনা করেন।

-মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান, শেরপুর।

Print Friendly, PDF & Email
এ সংক্রান্ত আরও খবর

অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» শেরপুরে এবার সিজেএম’র ‘জাস্টিস অব দি পিস’ আদেশে ২শ হতদরিদ্র মানুষ পেল খাদ্য সহায়তা

» এবার তদন্তের মুখোমুখি ঝিনাইগাতী মহিলা আদর্শ ডিগ্রি কলেজের সেই অধ্যক্ষ

» শেরপুরে সেতু ও রাস্তা নির্মাণে অনিয়ম ॥ তদন্ত কমিটির পরিদর্শন

» আমরাই ধরি আবার আমাদেরকেই দোষারোপ : প্রধানমন্ত্রী

» দেশে করোনায় আরও ৪১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩৩০৭

» শিগগিরই এইচএসসিতে ভর্তি : শিক্ষামন্ত্রী

» ঝিনাইগাতীতে কৃষকলীগের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত

» বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত ১ কোটি ২০ লাখ

» আবদুল হালিম উকিল : পাহাড় সমুদ্র নদী সমর্পিত ঝর্ণা ধারা

» শ্রীবরদীতে ৭টি বিদ্যালয়ে ড্রামস সেট বিতরণ

» শেরপুরের আকাশে দিন-রাত উড়ছে বাহারি রঙের ঘুড়ি

» ঝিনাইগাতীতে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

» প্রয়োজনে সীমিত আকারে ভার্চুয়াল আদালত পরিচালনা, সংসদে বিল পাস

» ৮৫টি শূন্যপদে নিয়োগ দেবে বিআইডব্লিউটিএ

» ভাঙছে এফডিসি, প্রস্তুত কবিরপুরের ফিল্ম সিটি

সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

  রাত ২:২৪ | শুক্রবার | ১০ই জুলাই, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সাবেক এমপি শ্যামলী ॥ মানবতার এক অনন্য ফেরীওয়ালা

করোনা পরিস্থিতিতে ব্যক্তিগত সহায়তা পেলেন ২৬ হাজার ৩শ মানুষ

শ্যামলবাংলা ডেস্ক ॥ প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসজনিত পরিস্থিতিতে সারাবিশ্বের সাথে বাংলাদেশের পরিস্থিতিও যখন নাকাল, ঠিক তখন সাধারণ ছুটি ও প্রতিষ্ঠান বন্ধের পাশাপাশি দীর্ঘ লকডাউনে কর্মহীন হয়ে পড়া দরিদ্র-অসহায় মানুষগুলোর জীবন চরম ওষ্ঠাগত। আর শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার ও প্রশাসনের পাশাপাশি বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন বৃহত্তর মানবিকতায় নিরলসভাবে কাজ করে যাবার পরও যখন সরকার প্রধান ও তার দলের নির্দেশনা উপেক্ষা করে শীর্ষ ও দায়িত্বশীল প্রতিনিধিদের অনেকেই হাত গুটিয়ে বসে আছেন, ঠিক তখন ব্যতিক্রমী হয়ে শেরপুরে কাজ করছেন আওয়ামী লীগের সংরক্ষিত আসনের সাবেক এমপি এডভোকেট ফাতেমাতুজ্জহুরা শ্যামলী। বর্তমানে দায়িত্বশীল বা জনপ্রতিনিধি না হয়েও অসহায় হতদরিদ্র মানুষের সেবায় নিজেকে উৎসর্গ করে হাজার হাজার মানুষের প্রশংসা কুড়িয়েছেন। সেইসাথে চলমান করোনা পরিস্থিতিতে মানবতার সেবায় এক অনন্য ফেরীওয়ালা হিসেবে পেয়েছেন সুখ্যাতি।

img-add

শেরপুরের এক ঐতিহ্যবাহী পরিবারের সন্তান এডভোকেট ফাতেমাতুজ্জহুরা শ্যামলী। পিতা প্রয়াত বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, রাজনীতিক ও শ্রমিকনেতা সেলিম রেজার একমাত্র কন্যা শ্যামলী পারিবারিক সূত্রে ছাত্রজীবন থেকেই আওয়ামী লীগের আদর্শের রাজনীতির সাথে যুক্ত হন। রাজধানী ঢাকার ইডেন কলেজ থেকে সমাজবিজ্ঞানে অনার্স-মাস্টার্স শেষ করার পর শেরপুরে এসে জেলা যুব মহিলা লীগের রাজনীতির সাথে সরাসরি যুক্ত হন। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারবিরোধী আন্দোলনের এক কঠিন সময়ে দায়িত্ব পান ওই সংগঠনের যুগ্ম আহবায়ক হিসেবে। সেই থেকে জেলা শহরসহ ইউনিয়ন পর্যায়েও ছুটে বেরিয়েছেন। দলের প্রতিটি কর্মকা-ে সক্রিয়ভাবে করেছেন অংশ গ্রহণ। ওই অবস্থায় ২০০৯ সালে সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে অংশ নিয়ে নানা ইলেকশন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের কারণে হারলেও তার পরিচিতির পাশাপাশি ধাপে ধাপে বেড়ে যায় জনপ্রিয়তা। সেইসাথে পিতার মৃত্যুজনিত কারণে পরিবারসহ পৈত্রিক ব্যবসার হাল ধরায় অল্প কিছুদিনের মধ্যেই একজন যুব ও নারী উদ্যোক্তা হিসেবেও পেয়ে যান পরিচিতি।

আর এমনই সফলতার ধারাবাহিকতায় ২০১৪ সালে দশম জাতীয় সংসদে শেরপুর-জামালপুর সংরক্ষিত আসনে শেরপুরের হয়ে স্বাধীনতার পর প্রথমবারের মতো সংরক্ষিত সংসদ সদস্য পদে নির্বাচিত হন। এত ঝামেলা-ব্যস্ততার পরও প্রয়াত বাবার ইচ্ছে পূরণে ২০১৭ সালে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের আইনজীবী হিসেবে তালিকাভূক্ত হন এবং শেরপুর বারের সদস্যপদ গ্রহণ করেন।
এদিকে এডভোকেট ফাতেমাতুজ্জহুরা শ্যামলীর পূর্ব পর্যন্ত অন্য যারা শেরপুর-জামালপুর অঞ্চলে সংরক্ষিত আসনের এমপি ছিলেন- তাদের দ্বারা শেরপুর অঞ্চলের উন্নয়ন দূরে থাক, বরং তার বা তাদের যাতায়াত না থাকায় এ অঞ্চলে সেই মহিলা এমপিদের নামটা পর্যন্ত জানা হয়নি অনেকের। আর শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সংরক্ষিত আসনের এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর শেরপুর পৌরসভা ও সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নসহ অপর দু’টি নির্বাচনী এলাকাতেও শ্যামলীর বিচরণ ও সহায়তা ছিল অকৃপণ। সরকারি স্বাভাবিক বরাদ্দের পরও নিজের চেষ্টা-তদবিরে অনেক এলাকায় বহু উন্নয়ন কর্মকা-ে রেখেছেন কৃতিত্বের স্বাক্ষর। এরপরও বরাদ্দের তুলনায় চাহিদা পূরণ সম্ভব না হলে ব্যয় করেছেন ব্যক্তিগত অর্থ। তার উন্নয়নের ছোঁয়া থেকে বাদ যায়নি শতশত শিক্ষা, ধর্মীয় ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ জেলা আইনজীবী সমিতি ও সহকারী আইনজীবী সমিতিও।
কিন্তু এবার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জামালপুর থেকে সংরক্ষিত নারী এমপি মনোনীত হওয়ায় বাদ পড়ে যান এডভোকেট শ্যামলী। এতে তিনি নিজে যতটুকু ব্যথিত হয়েছেন, তার চেয়ে ততোধিক ব্যথিত হয়েছেন এ অঞ্চলের হাজার হাজার মানুষ, যাদের অনেকেই শ্যামলীর মানবিক সেবায় উপকৃত। কিন্তু এরপরও থেমে থাকেননি শ্যামলী। সরকারি দায়িত্বে না থেকেও ব্যক্তিগত ও পারিবারিক অর্থায়নে লাগাতার চালিয়ে যাচ্ছেন নানা সেবামূলক কর্মকাণ্ড। গত ঈদুল ফিতর, কোরবানীর ঈদসহ বাংলা নববর্ষ উদযাপনে যুব মহিলা লীগসহ বিভিন্ন পর্যায়ে দলীয় নেতা-কর্মীদের মূল্যায়নের পাশাপাশি হতদরিদ্র ও অসহায় মানুষকে করেছেন সহায়তা। কখনও বা এগিয়ে গেছেন আর্তমানবতার সেবায়, দাঁড়িয়েছেন পাশে। এরপরও দলীয় কর্মকাণ্ডসহ জাতীয় দিবসগুলো উদযাপনে রেখেছেন বিশাল ভূমিকা।
এরই ধারাবাহিকতায় এবার প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে দীর্ঘ প্রায় ২ যাবত অফিস-আদালত, কল-কারখানা বন্ধ থাকায় কর্মহীন হয়ে পড়া হতদরিদ্র অসহায় মানুষগুলোর সেবায় প্রথম থেকেই কাজ করছেন শ্যামলী। ফলে করোনা পরিস্থিতির প্রথমভাগে সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নসহ পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে করোনা মোকাবেলায় জনসচেতনতা বাড়াতে অসহায় পরিবারগুলোর মাঝে মাস্ক, সাবান ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করেন। এরপর ব্যক্তিগত তরফ থেকে দেন প্রায় ৩ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা। কেবল তাই নয়, করোনা পরিস্থিতির কারণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার স্বার্থে এবার রমজানে ইফতার মাহফিল বা পার্টি বন্ধ থাকায় তার তরফ থেকে নেওয়া হয় এক ব্যতিক্রমী উদ্যোগ। আর সেই উদ্যোগের আওতায় রমজানের প্রথম দিন থেকে শুরু করে শেষ দিন পর্যন্ত (২৪ মে) প্রতিদিন ৫শ করে ইফতারীর প্যাকেট পর্যায়ক্রমে পৌঁছে দেওয়া হয় সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন ও পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের হতদরিদ্র ও অসহায় মানুষের ঘরে ঘরে। নিজের গড়া আদরজান ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা ও যুব মহিলা লীগের নেতা-কর্মীদের সহায়তায় প্রতিদিন দু’টি পিকআপ ভ্যানে করে অনেকটা ভ্রাম্যমাণ আকারে ওই ইফতার আয়োজন ঘরে থাকা মানুষ ছাড়াও হাট-বাজার ও পথচারী মানুষদের হাতেও পৌঁছে। এটি যেন কেবল শেরপুরে নয়, পরিবর্তিত অবস্থায় খোদ বাংলাদেশেই এক অনন্য বিরল দৃষ্টান্ত। ফলে তার এ ব্যতিক্রমী উদ্যোগ ও আয়োজনটি এখন মানুষের মুখে মুখে। তিনি নিজেও ভাসছেন হাজার হাজার মানুষের প্রশংসায়। এছাড়া গণমাধ্যম কর্মী, স্বেচ্ছাসেবী ও ইমাম-মুয়াজ্জিনদের হাতে পৌঁছে দিয়েছেন প্রায় ৩শ পিপিইসহ (প্রাইভেট প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্ট) অন্যান্য অনুসঙ্গ।
কেবল তাই নয়, করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই মুসলিম উম্মাহর সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর সমাগত হওয়ায় ২১ মে থেকে ৩ দিনব্যাপী অসহায় ও হতদরিদ্র মানুষের মাঝে নিজ হাতে বিতরণ করেছেন প্রায় ৫ সহস্রাধিক ঈদবস্ত্র। এছাড়া নানা পর্যায়ে পাঠিয়েছেন ঈদ উপহার ও আর্থিক সহায়তা। আর এ সবকিছু মিলে বিশেষ করে এবারের কঠিন পরিস্থিতিতে পুনঃপুন সহায়তা অব্যাহত রাখায় তার নাম এখন মানুষের মুখে মুখে। সেইসাথে তার নামের আগে সমস্বরে উচ্চারিত হচ্ছে মানবতার অনন্য এক ফেরীওয়ালা হিসেবে।
সাবেক এমপি শ্যামলীর মানবিক সহায়তা প্রসঙ্গে জেলা কৃষক লীগের সম্পাদকম-লীর সদস্য ও নাগরিক সমাজের নেতা মাহবুবুর রহমান লিটন বলেন, এডভোকেট ফাতেমাতুজ্জরা শ্যামলী পৈত্রিক সূত্রেই উদারনৈতিক ও দানশীল মনমানসিকতার অধিকারী। যে কারণে এবার জনপ্রতিনিধি না হয়েও করোনার মতো কঠিন পরিস্থিতিতে কেবল ব্যক্তিগত অর্থায়নে এলাকার হতদরিদ্র ও অসহায় মানুষের সহায়তা অব্যাহত রেখেছেন। একই কথা জানান শ্যামলীর নানা সেবামূলক কর্মকা-ে যুক্ত থাকা যুব মহিলালীগ নেত্রী মাহবুবা রহমান শিমু। আদরজান ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা মোঃ উমর ফারুক বলেন, তিনি প্রকৃত অর্থেই একজন জনদরদী মানুষ। মানুষের দুঃখ-কষ্টের সময় তিনি কখনোই নিজেকে আড়ালে রাখতে পারেন না। সবসময়ই নিজের সামর্থ অনুযায়ী ঝাঁপিয়ে পড়েন তাদের সেবায়। আর এজন্য এবার কঠিন পরিস্থিতিতে তার তরফ থেকে পুরো রমজানজুড়ে প্রতিদিন ৫শ করে হিসেবে ১৫ হাজার মানুষের হাতে ইফতারী, প্রায় ৫ হাজার মানুষের মাঝে মাস্ক-সাবান, ৩শ মানুষের মাঝে পিপিই এবং ৫ সহস্রাধিক হতদরিদ্র অসহায় মানুষের মাঝে ঈদবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। এরপরও দলীয় নেতা-কর্মীসহ নানা পর্যায়ে প্রায় ১ হাজার মানুষকে ঈদ উপহারসহ দেওয়া হয়েছে আর্থিক সহায়তা।
এ ব্যাপারে সাবেক এমপি এডভোকেট ফাতেমাতুজ্জহুরা শ্যামলী ২৪ মে শ্যামলবাংলা২৪ডটকমকে বলেন, পারিবারিক ঐতিহ্যের সূত্র ধরেই যেকোন উৎসব-পার্বণসহ দুর্যোগ-সংকটে আমাদের সহযোগিতা থাকে। সেই ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতা রক্ষায় এবার জনপ্রতিনিধি না হয়েও প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনার নির্দেশনায় করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলায় জেলা যুব মহিলা লীগের তরফ থেকে জনসচেতনতা বৃদ্ধিমূলক কর্মকান্ড পরিচালনাসহ লকডাউনে কর্মহীন হয়ে পড়া হতদরিদ্র অসহায় মানুষের পাশে থেকেছি। প্রতিদিন পর্যায়ক্রমে পৌরসভাসহ প্রতিটি ইউনিয়নে ইফতারী পৌঁছানোসহ খাদ্য সহায়তা এবং ঈদবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। এ ধরনের সহায়তা যত বেশি করা যায়, ততই নিজের ভালো লাগে। কাজেই চলমান পরিস্থিতিসহ যেকোন দুর্যোগ আর উৎসবে আমার তরফ থেকে সার্বিক সহায়তা থাকবে। তিনি শ্যামলবাংলা২৪ডটকমসহ সকল গণমাধ্যমকর্মী এবং জনপ্রতিনিধি, সরকারি-বেসরকারি ও স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের প্রতি পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগাম শুভেচ্ছা জানান। সেইসাথে সকলের সুখ-সমৃদ্ধি ও উন্নতি কামনা করেন।

-মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান, শেরপুর।

Print Friendly, PDF & Email
এ সংক্রান্ত আরও খবর

সর্বশেষ খবর



অন্যান্য খবর



সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

error: Content is protected !!