রাত ১১:২৬ | রবিবার | ৩১শে মে, ২০২০ ইং | ১৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শ্রীবরদীতে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসৃজন প্রকল্প বাস্তবায়নে অনিয়মের অভিযোগ

শ্রীবরদী (শেরপুর) প্রতিনিধি ॥ অতিদরিদ্রদের জন্য ৪০ দিনের কর্মসৃজন কর্মসূচী বাস্তবায়নে শেরপুরের শ্রীবরদী সদর ইউনিয়নসহ কয়েকটি ইউনিয়নে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। অনেক প্রকল্পে নির্ধারিত শ্রমিকদের মধ্যে উপস্থিতি অর্ধেকের কম। এছাড়াও শ্রমিকদের বিল উত্তোলনের পর এক দেড় হাজার করে টাকা কেটে নিচ্ছে প্রকল্প সভাপতিরা। এতে নামমাত্র বাস্তবায়ন হচ্ছে প্রকল্পগুলো। সম্প্রতি ওইসব অভিযোগ তুলেছেন ভূক্তভুগি শ্রমিক ও স্থানীয় সচেতন মানুষেরা।
জানা যায়, শ্রীবরদী উপজেলা সদর ইউনিয়নসহ ১০টি ইউনিয়নেই চলছে অতিদরিদ্রদের জন্যে ৪০ দিনের কর্মসৃজন কর্মসূচী প্রকল্প বাস্তবায়ন। ওই কর্মসূচীর আওতায় শ্রীবরদী সদর ইউনিয়নে প্রকল্প সংখ্যা ৪টি। এর মধ্যে কেয়ামতলী বাজার হতে কুড়িপাড়া মন্ডলপাড়া মনোয়ারের বাড়ি পর্যন্ত রাস্তায় মাটি ভরাটে ৫৭জন শ্রমিকের মধ্যে উপস্থিত ৪০জন। দহেড়পাড় জইনদ্দিন কেরানির বাড়ি হতে জবেদ আলীর বাড়ি পর্যন্ত রাস্তায় মাটি ভরাটে ৪০জন শ্রমিকের মধ্যে উপস্থিত শ্রমিক ২৭জন। মামদামারী নয়াপাড়া জামে মসজিদের মাঠে মাটি ভরাটে ৪০ জন শ্রমিকের মধ্যে উপস্থিত ১৯জন। মামদামারী কালামের বাড়ি হতে জহুরুলের বাড়ি পর্যন্ত ৪০জন শ্রমিকের মধ্যে উপস্থিত ১৯জন।
সরেজমিনে গেলে এ প্রতিনিধির সাথে কথা হয় ওইসব প্রকল্পের শ্রমিক সর্দার আবু সাইদ, চিনু মিয়া ও মামুন সরকারের সাথে। তারা জানান, গত ১৫ ডিসেম্বর থেকে প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ শুরু হয়েছে। শুরু থেকে যারা কাজে যোগ দিয়েছে তারা নিয়মিত কাজ করছে। তবে যে সংখ্যার কথা বলা হয়েছে তা তারা জানে না। এ ব্যাপারে কথা হয় মামদামারী নয়াপাড়া জামে মসজিদের মাঠে মাটি ভরাট প্রকল্পের সভাপতি সংরক্ষিত আসনের মহিলা সদস্য শিরিনা বেগমের সাথে। তিনি বলেন, এই প্রকল্পে ১৯জন শ্রমিক নিয়ে কাজ শুরু করা হয়। তারা নিয়মিত কাজ করছে। তবে ওই প্রকল্পে ৪০জন শ্রমিক থাকার কথা বললে তিনি বলেন, অনুপস্থিত শ্রমিকদের নাম ঠিকানা আমি জানি না। তবে চেয়ারম্যান জানেন। ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হালিম দাবি করেন, তার ইউনিয়নে কোনো অনিয়ম নেই। তালিকা অনুযায়ী শ্রমিকরা কাজ করছে। একাধিক সূত্রমতে, অনুপস্থিত শ্রমিকদের নামেও বিলভাউচার করে বরাদ্দকৃত টাকা উত্তোলনের প্রক্রিয়া চলছে।
ইতোমধ্যে তাতিহাটি ইউনিয়নে প্রকল্পগুলোতে নির্ধারিত শ্রমিকদের মধ্যে প্রায় প্রকল্পেই ১০/১২জন করে শ্রমিক অনুপস্থিত ছিল। শ্রমিকদের ৪০ দিনের প্রকল্পের অর্ধেক বিল বিতরণ করে সোনালী ব্যাংক। এতে অনুপস্থিতসহ সকল শ্রমিকদের বিল উত্তোলন হয়। বিল উত্তোলনের সময় কতিপয় প্রকল্প সভাপতি শ্রমিকদের নিকট এক দেড় হাজার করে টাকা কেটে নিচ্ছেন বলে অভিযোগ ভুক্তভোগি শ্রমিকদের। কয়েকজন ইউপি সদস্য বলেন, তাদের কোনো শ্রমিক অনুপস্থিত নেই। এছাড়াও অনুপস্থিত শ্রমিকদের নাম ঠিকানা তারা জানেন না।
সোনালী ব্যাংক ম্যানেজার মোস্তফা কামাল বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসের দেয়া চেকের মাধ্যমে প্রত্যেক শ্রমিক ব্যাংক থেকে বিল উত্তোলন করে।
এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রাকিবুল হাসান বলেন, কোনো ইউনিয়নে অনিয়মের অভিযোগ পেলে অবশ্যই তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» ময়মনসিংহে হাজার ছাড়াল করোনায় আক্রান্ত

» করোনা পরিস্থিতি অনুকূলে না এলে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া হবে না : শিক্ষামন্ত্রী

» খেটে খাওয়া মানুষের কথা ভাবে না বিএনপি : তথ্যমন্ত্রী

» বাস ভাড়া বাড়লো ৬০ শতাংশ

» ব্যাংকগুলোকে ২ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিচ্ছে সরকার : প্রধানমন্ত্রী

» ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ৪০ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ২৫৪৫

» এসএসসি ফলাফল ॥ শেরপুরে সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় শীর্ষে

» এসএসসিতে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছে এনসিটিএফ শিশু সাংবাদিক তাহিরাহ

» ময়মনসিংহ বোর্ডে এসএসসিতে পাসের হার ৮০.১৩ শতাংশ ॥ পাসের হারে এগিয়ে শেরপুর

» সারাদেশে ভার্চুয়াল আদালতে শুনানী চলবে ১৫ জুন পর্যন্ত

» টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ স্থগিত রাখার সুপারিশ সাঙ্গাকারার

» নৌপথে যাত্রী পারাপার শুরু

» সৌদি আরবে মাস্ক না পরলে জরিমানা, আজ থেকে খুলছে মসজিদ

» এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় পাস ৮২.৮৭%, জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৩৫৮৯৮

» শেরপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে ঢাকাফেরত বৃদ্ধের মৃত্যু ॥ নমুনা সংগ্রহ

সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

  রাত ১১:২৬ | রবিবার | ৩১শে মে, ২০২০ ইং | ১৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শ্রীবরদীতে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসৃজন প্রকল্প বাস্তবায়নে অনিয়মের অভিযোগ

শ্রীবরদী (শেরপুর) প্রতিনিধি ॥ অতিদরিদ্রদের জন্য ৪০ দিনের কর্মসৃজন কর্মসূচী বাস্তবায়নে শেরপুরের শ্রীবরদী সদর ইউনিয়নসহ কয়েকটি ইউনিয়নে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। অনেক প্রকল্পে নির্ধারিত শ্রমিকদের মধ্যে উপস্থিতি অর্ধেকের কম। এছাড়াও শ্রমিকদের বিল উত্তোলনের পর এক দেড় হাজার করে টাকা কেটে নিচ্ছে প্রকল্প সভাপতিরা। এতে নামমাত্র বাস্তবায়ন হচ্ছে প্রকল্পগুলো। সম্প্রতি ওইসব অভিযোগ তুলেছেন ভূক্তভুগি শ্রমিক ও স্থানীয় সচেতন মানুষেরা।
জানা যায়, শ্রীবরদী উপজেলা সদর ইউনিয়নসহ ১০টি ইউনিয়নেই চলছে অতিদরিদ্রদের জন্যে ৪০ দিনের কর্মসৃজন কর্মসূচী প্রকল্প বাস্তবায়ন। ওই কর্মসূচীর আওতায় শ্রীবরদী সদর ইউনিয়নে প্রকল্প সংখ্যা ৪টি। এর মধ্যে কেয়ামতলী বাজার হতে কুড়িপাড়া মন্ডলপাড়া মনোয়ারের বাড়ি পর্যন্ত রাস্তায় মাটি ভরাটে ৫৭জন শ্রমিকের মধ্যে উপস্থিত ৪০জন। দহেড়পাড় জইনদ্দিন কেরানির বাড়ি হতে জবেদ আলীর বাড়ি পর্যন্ত রাস্তায় মাটি ভরাটে ৪০জন শ্রমিকের মধ্যে উপস্থিত শ্রমিক ২৭জন। মামদামারী নয়াপাড়া জামে মসজিদের মাঠে মাটি ভরাটে ৪০ জন শ্রমিকের মধ্যে উপস্থিত ১৯জন। মামদামারী কালামের বাড়ি হতে জহুরুলের বাড়ি পর্যন্ত ৪০জন শ্রমিকের মধ্যে উপস্থিত ১৯জন।
সরেজমিনে গেলে এ প্রতিনিধির সাথে কথা হয় ওইসব প্রকল্পের শ্রমিক সর্দার আবু সাইদ, চিনু মিয়া ও মামুন সরকারের সাথে। তারা জানান, গত ১৫ ডিসেম্বর থেকে প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ শুরু হয়েছে। শুরু থেকে যারা কাজে যোগ দিয়েছে তারা নিয়মিত কাজ করছে। তবে যে সংখ্যার কথা বলা হয়েছে তা তারা জানে না। এ ব্যাপারে কথা হয় মামদামারী নয়াপাড়া জামে মসজিদের মাঠে মাটি ভরাট প্রকল্পের সভাপতি সংরক্ষিত আসনের মহিলা সদস্য শিরিনা বেগমের সাথে। তিনি বলেন, এই প্রকল্পে ১৯জন শ্রমিক নিয়ে কাজ শুরু করা হয়। তারা নিয়মিত কাজ করছে। তবে ওই প্রকল্পে ৪০জন শ্রমিক থাকার কথা বললে তিনি বলেন, অনুপস্থিত শ্রমিকদের নাম ঠিকানা আমি জানি না। তবে চেয়ারম্যান জানেন। ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হালিম দাবি করেন, তার ইউনিয়নে কোনো অনিয়ম নেই। তালিকা অনুযায়ী শ্রমিকরা কাজ করছে। একাধিক সূত্রমতে, অনুপস্থিত শ্রমিকদের নামেও বিলভাউচার করে বরাদ্দকৃত টাকা উত্তোলনের প্রক্রিয়া চলছে।
ইতোমধ্যে তাতিহাটি ইউনিয়নে প্রকল্পগুলোতে নির্ধারিত শ্রমিকদের মধ্যে প্রায় প্রকল্পেই ১০/১২জন করে শ্রমিক অনুপস্থিত ছিল। শ্রমিকদের ৪০ দিনের প্রকল্পের অর্ধেক বিল বিতরণ করে সোনালী ব্যাংক। এতে অনুপস্থিতসহ সকল শ্রমিকদের বিল উত্তোলন হয়। বিল উত্তোলনের সময় কতিপয় প্রকল্প সভাপতি শ্রমিকদের নিকট এক দেড় হাজার করে টাকা কেটে নিচ্ছেন বলে অভিযোগ ভুক্তভোগি শ্রমিকদের। কয়েকজন ইউপি সদস্য বলেন, তাদের কোনো শ্রমিক অনুপস্থিত নেই। এছাড়াও অনুপস্থিত শ্রমিকদের নাম ঠিকানা তারা জানেন না।
সোনালী ব্যাংক ম্যানেজার মোস্তফা কামাল বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসের দেয়া চেকের মাধ্যমে প্রত্যেক শ্রমিক ব্যাংক থেকে বিল উত্তোলন করে।
এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রাকিবুল হাসান বলেন, কোনো ইউনিয়নে অনিয়মের অভিযোগ পেলে অবশ্যই তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সর্বশেষ খবর



অন্যান্য খবর



সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

error: Content is protected !!