প্রকাশকাল: 2 ডিসেম্বর, 2018

শেরপুর-৩ আসনে এবারও চাচা-ভাতিজার লড়াই

স্টাফ রিপোর্টার ॥ লাকী নির্বাচনী এলাকা খ্যাত শেরপুর-৩ (শ্রীবরদী-ঝিনাইগাতী) আসনে এবারও লড়াই হচ্ছে চাচা-ভাতিজার মধ্যে। তারা হচ্ছেন টানা ৩ দফায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী, বর্তমান সংসদ সদস্য প্রকৌশলী একেএম ফজলুল হক চাঁন ও বিএনপির প্রার্থী ৩ বারের সাবেক সংসদ সদস্য মাহমুদুল হক রুবেল। সম্পর্কে সাংসদ চাঁন চাচা ও রুবেল ভাতিজা। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনে সাংসদ চাঁন আওয়ামী লীগের একক ও রুবেলসহ ২ জন বিএনপির হয়ে মনোনয়নপত্র দাখিল করলেও শেষবধি যে চাচা-ভাতিজাই লড়াইয়ে থেকে যাবেন- তা নিয়ে কোন সংশয় নেই রাজনৈতিক অঙ্গণে। ২ ডিসেম্বর রবিবার মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে দুজনেরই প্রার্থিতা টিকে যাওয়ায় বিষয়টি আরও পরিস্কার হয়ে উঠেছে।
জানা যায়, ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে সাবেক আমলা প্রকৌশলী একেএম ফজলুল হক চাঁন প্রথম দফায় প্রার্থী হয়ে ধানের শীষের প্রার্থী আপন ভাতিজা অর্থাৎ সহোদর অগ্রজ প্রয়াত সংসদ সদস্য ডাঃ সেরাজুল হকের জ্যেষ্ঠ পুত্র মাহমুদুল হক রুবেলের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে ১ লাখ ৬ হাজার ৬৩১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। সেবার রুবেল ভোট পেয়েছিলেন ৬৫ হাজার ৭৫৩ ভোট। এরপর ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিএনপি অংশ না নেওয়ায় আরেক ভাতিজা স্বতন্ত্র প্রার্থী হেদায়েতুল ইসলামকেও বিপুল ভোটে পরাজিত করে দ্বিতীয় দফায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন ফজলুল হক চাঁন। ১৯৯১ সালের সংসদের মাঝামাঝি সময়ে পিতা ডাঃ সেরাজুল হকের মৃত্যুর কারণে প্রথম দফায় উপ-নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে এবং ১৯৯৬ সালে ১৫ ফেব্রুয়ারির একদলীয় নির্বাচন ও ২০০১ এর নির্বাচনসহ ৩ দফায় সংসদ সদস্য ছিলেন মাহমুদুল হক রুবেল। এবার দীর্ঘ ১০ বছর পর আবারও চাচা-ভাতিজা মুখোমুখি হয়েছেন। এ আসনে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হওয়ার মত আর কোন প্রার্থী না থাকায় এবারও মূল লড়াই হবে চাচা-ভাতিজার মধ্যেই। স্থানীয় ভোটাররাও তাকিয়ে আছেন চাচা-ভাতিজার লড়াই দেখার জন্য।
উল্লেখ্য, সিলেট সদর আসনের মত এ আসন থেকে যে দলের প্রার্থী বিজয়ী হন , সে দলই সরকার গঠন করে আসছে।

আপনার মতামত দিন

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

error: Content is protected !!