রাত ১:৩০ | বৃহস্পতিবার | ১২ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শেরপুরে নির্যাতিতা সেই গৃহবধূর শারীরিক অবস্থার অবনতি ॥ হাসপাতালে ভর্তি

পাশে দাঁড়িয়েছে জেলা প্রশাসন ও মানবাধিকার কমিশন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শেরপুরের নকলায় গাছে বেঁধে নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ ডলি খানমের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে ফের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ১৪ জুন শুক্রবার সন্ধ্যায় ডলি খানমের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে প্রথমে নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এরপরও অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় শনিবার দুপুরে তাকে জেলা সদর হাসপাতালে রেফার করা হয়। বিকেলে গাইনি বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডাঃ চৌধুরী শামীমা ও ডাঃ লুৎফর রহমান তাকে পর্যবেক্ষণ করেন এবং কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষার পরামর্শ দেন। অন্যদিকে ঘটনার ভিডিওচিত্র ভাইরাল হওয়ার সাথে সাথে পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীমের নির্দেশে তাৎক্ষণিক পদক্ষেপে এলাকায় স্বস্তি ফিরে আসার পাশাপাশি এবার ওই নির্যাতিতা গৃহবধূর পাশে দাঁড়িয়েছে জেলা প্রশাসন ও মানবাধিকার কমিশন।
জেলা সদর হাসপাতালে চলতি দায়িত্বে থাকা আরএমও ডাঃ খায়রুল কবীর সুমন শনিবার সন্ধ্যায় শ্যামলবাংলা২৪ডটকমকে জানান, ওই নারী এর আগেও হাসপাতালে ভর্তি থেকে চিকিৎসা গ্রহণ করেছেন। এরপরও এখন তার রক্তক্ষরণ হচ্ছে। বিষয়টি কি কারণে তা পরীক্ষার রিপোর্ট ও বিশেষজ্ঞের মতামত ছাড়া এখনই বলা যাচ্ছে না।
হাসপাতালের বেডে থাকা নির্যাতিতা নারী ডলি খানম ও তার স্বামী শফিউল্লাহ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবি পুনর্ব্যক্ত করেন। এছাড়া ওইসময় তাদের পাশে থাকা শফিউল্লাহর আপন মামা একই এলাকার নুরউল্লাহ (৬৫) ও হাফিজ উল্লাহ (৬০) ঘটনাটি দিবালোকের মত সত্য উল্লেখ করে বলেন, আসামী নেছার উদ্দিন, আবু সালেহ ও সলিমুল্লাহও তাদের আপন ভাগনে। কিন্তু তারা যে নজিরবিহীন ঘটনা ঘটিয়েছে, তাতে তারা ক্ষুব্ধ ও বিস্মিত। তাই তাদের উপযুক্ত শাস্তি হওয়া উচিত।
এদিকে নির্যাতিতা ওই গৃহবধূর পাশে দাঁড়িয়েছে জেলা প্রশাসন। জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুবের পরামর্শে শুক্রবার রাতে নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন নির্যাতিতা গৃহবধূকে দেখতে যান স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান। ওইসময় তিনি ওই নারীর শারীরিক অবস্থার খোঁজ-খবর নেন এবং কর্তব্যরত চিকিৎসকের সাথে কথা বলেন। এছাড়া শনিবার দুপুরে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য জেলা সদর হাসপাতালে রেফার করা হলে জেলা প্রশাসকের পরামর্শে সেখানে ছুটে যান সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফিরোজ আল মামুন। তিনিও চলতি দায়িত্বে থাকা আরএমওসহ সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকদের সাথে কথা বলেন। এর আগে একইভাবে বৃহস্পতিবার রাতে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এবিএম এহছানুল মামুন ও নকলার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান কায়দা এলাকার বাড়িতে গিয়ে নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ ডলি খানম ও তাঁর স্বামী শফিউল্লাহর সাথে সাক্ষাত করেন।
এছাড়া শনিবার সন্ধ্যায় জেলা সদর হাসপাতালে ওই নির্যাতিতা গৃহবধূকে দেখতে গিয়ে তার পাশে থাকতে আশ্বস্ত করেছেন মানবাধিকার কমিশনের নেতারা। জেলা মানবাধিকার কমিশনের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শক্তিপদ পালের নেতৃত্বে ওই দলে ছিলেন সদর উপজেলা মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান শামীম আরা, জনউদ্যোগের আহবায়ক আবুল কালাম আজাদ, নারীনেত্রী আঞ্জুমান লিপি ও শম্পা দত্ত।
চাঞ্চল্যকর ওই ঘটনার বিষয়ে জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব শ্যামলবাংলা২৪ডটকমকে জানান, ঘটনাটি সবার মতো আমাদেরকেও নাড়া দিয়েছে। এজন্য জেলা প্রশাসনের তরফ থেকে ওই নির্যাতিতা গৃহবধূর পরিবারের প্রতি দুঃখ ও সহমর্মিতা প্রকাশ করা হয়েছে। এছাড়া নির্যাতিতার স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে সিভিল সার্জনের সাথে কথা বলা হয়েছে। ওই পরিবারের নিরাপত্তাসহ অন্যান্য বিষয়ে সার্বিক সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। ওই ঘটনায় তারা যেন ন্যায়বিচার পান সেদিকেও পুলিশ প্রশাসনের সাথে যোগাযোগসহ খেয়াল রাখা হচ্ছে।
উল্লেখ্য, গত ১০ মে নকলা উপজেলার কায়দা গ্রামে জমিসংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ডলি খানম নামে এক অন্ত:স্বত্ত্বা গৃহবধূকে গাছে বেঁধে বর্বরোচিত নির্যাতন এবং ওই নির্যাতনে গৃহবধূর গর্ভের সন্তান নষ্টের ঘটনা ঘটে। ঘটনার এক মাস পর নির্যাতনের একটি ভিডিও ভাইরাল হলে তোলপাড় শুরু হয় এবং গত ১১ জুন এক সেনা সদস্যসহ ওই গৃহবধূর ৩ ভাসুর ও জাসহ ৯ জনকে স্ব-নামে ও অজ্ঞাতনামা আরও ৩/৪ জনের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা গ্রহণ করা হয়।

অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» ‘বাল্যবিবাহ মুক্ত ময়মনসিংহ বিভাগ’ বাস্তবায়নে র‌্যালি-মানববন্ধন, গণস্বাক্ষর ও শপথ গ্রহণ

» মিয়ানমার সেনাবাহিনীকে মানবাধিকার লঙ্ঘন বন্ধ করতে হবে : মিলার

» ইমরুল তাণ্ডবে চট্টগ্রামের শুভ সূচনা

» ‘মুজিব বর্ষ’ উদযাপন উপলক্ষে শেরপুরে বাল্যবিবাহ বিরোধী গণস্বাক্ষর ও মানববন্ধন

» শ্রীবরদীতে বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে শপথ নিলেন ১০ সহস্রাধিক মানুষ

» নকলায় বাল্যবিবাহ বিরোধী মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

» বসলো পদ্মা সেতুর ১৮তম স্প্যান, দৃশ্যমান ২ হাজার ৭০০ মিটার

» বঙ্গবন্ধু বিপিএল : উদ্বোধনী ম্যাচে টসে জিতে ফিল্ডিংয়ে চট্টগ্রাম

» ইন্টারকে বিদায় করে দিল মেসিবিহীন বার্সা

» মানবতাবিরোধী অপরাধে টিপু রাজাকারের ফাঁসির রায়

» আন্তর্জাতিক আদালতে মিয়ানমারের বিচার শুরু

» শেরপুরে বিশ্ব মানবাধিকার দিবসে মহিলা পরিষদের মানববন্ধন

» এস কে সিনহার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল

» ৫ম স্থানে থেকে এসএ গেমস শেষ করলো বাংলাদেশ

» নীলা আলম’র পদ্য ‘ক্ষুধিত প্রাণ’

সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

  রাত ১:৩০ | বৃহস্পতিবার | ১২ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শেরপুরে নির্যাতিতা সেই গৃহবধূর শারীরিক অবস্থার অবনতি ॥ হাসপাতালে ভর্তি

পাশে দাঁড়িয়েছে জেলা প্রশাসন ও মানবাধিকার কমিশন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শেরপুরের নকলায় গাছে বেঁধে নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ ডলি খানমের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে ফের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ১৪ জুন শুক্রবার সন্ধ্যায় ডলি খানমের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে প্রথমে নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এরপরও অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় শনিবার দুপুরে তাকে জেলা সদর হাসপাতালে রেফার করা হয়। বিকেলে গাইনি বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডাঃ চৌধুরী শামীমা ও ডাঃ লুৎফর রহমান তাকে পর্যবেক্ষণ করেন এবং কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষার পরামর্শ দেন। অন্যদিকে ঘটনার ভিডিওচিত্র ভাইরাল হওয়ার সাথে সাথে পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীমের নির্দেশে তাৎক্ষণিক পদক্ষেপে এলাকায় স্বস্তি ফিরে আসার পাশাপাশি এবার ওই নির্যাতিতা গৃহবধূর পাশে দাঁড়িয়েছে জেলা প্রশাসন ও মানবাধিকার কমিশন।
জেলা সদর হাসপাতালে চলতি দায়িত্বে থাকা আরএমও ডাঃ খায়রুল কবীর সুমন শনিবার সন্ধ্যায় শ্যামলবাংলা২৪ডটকমকে জানান, ওই নারী এর আগেও হাসপাতালে ভর্তি থেকে চিকিৎসা গ্রহণ করেছেন। এরপরও এখন তার রক্তক্ষরণ হচ্ছে। বিষয়টি কি কারণে তা পরীক্ষার রিপোর্ট ও বিশেষজ্ঞের মতামত ছাড়া এখনই বলা যাচ্ছে না।
হাসপাতালের বেডে থাকা নির্যাতিতা নারী ডলি খানম ও তার স্বামী শফিউল্লাহ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবি পুনর্ব্যক্ত করেন। এছাড়া ওইসময় তাদের পাশে থাকা শফিউল্লাহর আপন মামা একই এলাকার নুরউল্লাহ (৬৫) ও হাফিজ উল্লাহ (৬০) ঘটনাটি দিবালোকের মত সত্য উল্লেখ করে বলেন, আসামী নেছার উদ্দিন, আবু সালেহ ও সলিমুল্লাহও তাদের আপন ভাগনে। কিন্তু তারা যে নজিরবিহীন ঘটনা ঘটিয়েছে, তাতে তারা ক্ষুব্ধ ও বিস্মিত। তাই তাদের উপযুক্ত শাস্তি হওয়া উচিত।
এদিকে নির্যাতিতা ওই গৃহবধূর পাশে দাঁড়িয়েছে জেলা প্রশাসন। জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুবের পরামর্শে শুক্রবার রাতে নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন নির্যাতিতা গৃহবধূকে দেখতে যান স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান। ওইসময় তিনি ওই নারীর শারীরিক অবস্থার খোঁজ-খবর নেন এবং কর্তব্যরত চিকিৎসকের সাথে কথা বলেন। এছাড়া শনিবার দুপুরে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য জেলা সদর হাসপাতালে রেফার করা হলে জেলা প্রশাসকের পরামর্শে সেখানে ছুটে যান সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফিরোজ আল মামুন। তিনিও চলতি দায়িত্বে থাকা আরএমওসহ সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকদের সাথে কথা বলেন। এর আগে একইভাবে বৃহস্পতিবার রাতে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এবিএম এহছানুল মামুন ও নকলার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান কায়দা এলাকার বাড়িতে গিয়ে নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ ডলি খানম ও তাঁর স্বামী শফিউল্লাহর সাথে সাক্ষাত করেন।
এছাড়া শনিবার সন্ধ্যায় জেলা সদর হাসপাতালে ওই নির্যাতিতা গৃহবধূকে দেখতে গিয়ে তার পাশে থাকতে আশ্বস্ত করেছেন মানবাধিকার কমিশনের নেতারা। জেলা মানবাধিকার কমিশনের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শক্তিপদ পালের নেতৃত্বে ওই দলে ছিলেন সদর উপজেলা মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান শামীম আরা, জনউদ্যোগের আহবায়ক আবুল কালাম আজাদ, নারীনেত্রী আঞ্জুমান লিপি ও শম্পা দত্ত।
চাঞ্চল্যকর ওই ঘটনার বিষয়ে জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব শ্যামলবাংলা২৪ডটকমকে জানান, ঘটনাটি সবার মতো আমাদেরকেও নাড়া দিয়েছে। এজন্য জেলা প্রশাসনের তরফ থেকে ওই নির্যাতিতা গৃহবধূর পরিবারের প্রতি দুঃখ ও সহমর্মিতা প্রকাশ করা হয়েছে। এছাড়া নির্যাতিতার স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে সিভিল সার্জনের সাথে কথা বলা হয়েছে। ওই পরিবারের নিরাপত্তাসহ অন্যান্য বিষয়ে সার্বিক সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। ওই ঘটনায় তারা যেন ন্যায়বিচার পান সেদিকেও পুলিশ প্রশাসনের সাথে যোগাযোগসহ খেয়াল রাখা হচ্ছে।
উল্লেখ্য, গত ১০ মে নকলা উপজেলার কায়দা গ্রামে জমিসংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ডলি খানম নামে এক অন্ত:স্বত্ত্বা গৃহবধূকে গাছে বেঁধে বর্বরোচিত নির্যাতন এবং ওই নির্যাতনে গৃহবধূর গর্ভের সন্তান নষ্টের ঘটনা ঘটে। ঘটনার এক মাস পর নির্যাতনের একটি ভিডিও ভাইরাল হলে তোলপাড় শুরু হয় এবং গত ১১ জুন এক সেনা সদস্যসহ ওই গৃহবধূর ৩ ভাসুর ও জাসহ ৯ জনকে স্ব-নামে ও অজ্ঞাতনামা আরও ৩/৪ জনের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা গ্রহণ করা হয়।

সর্বশেষ খবর



অন্যান্য খবর



সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

error: Content is protected !!