প্রকাশকাল: 23 ফেব্রুয়ারী, 2019

শেরপুরে জমে উঠেছে বইমেলা

ইতিহাস-ঐতিহ্যসহ নতুনদের বইয়ের প্রতি আগ্রহ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শেরপুরে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ৫ দিনব্যাপী বইমেলা বেশ জমে উঠেছে। শহরের ডিসি উদ্যানে বৃহস্পতিবার ওই মেলা উদ্বোধনের পর থেকেই শুরু হয় বইপ্রেমী বিভিন্ন বয়সী মানুষের ভিড়। শুক্রবার বন্ধের দিন হওয়ায় অভিভাবকদের নিয়ে শিশু-কিশোর, শিক্ষার্থীসহ বইপ্রেমী-লেখকদের ভিড় প্রায় দ্বিগুণ বেড়ে যায়। শনিবারও দেখা যায় প্রায় একই অবস্থা। অন্যদিকে মেলায় উপচে পড়া ভিড়ের সুবাদে বইয়ের স্টলগুলোতে বিক্রিও হচ্ছে বেশ ভালোই।
শনিবার সন্ধ্যায় মেলা ঘুরে বইয়ের স্টলগুলোতে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী, কারাগারের রোজনামচা, হুমায়ূন আহমেদ, সৈয়দ শামসুল হকের বইয়ের পাশাপাশি শেরপুরের নবীন কবি-লেখকদের প্রকাশিত বইয়ের প্রতি পাঠকের অধিক আগ্রহ লক্ষ্য করা যায়। বিক্রেতারাও জানান একই কথা। তারা আরও জানান, ৩ দিনে বিভিন্ন স্টলে বিক্রি হয়েছে প্রায় ২ লাখ টাকা। জেলা প্রশাসনের সার্বিক তত্ত্বাবধানে নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যে সুবিন্যস্ত ওই স্টলগুলো প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত খোলা থাকছে। মেলা চলবে ২৫ ফেব্রুয়ারি সোমবার পর্যন্ত।
বইমেলায় শেরপুরের কবি হাদিউল ইসলামের আগুনের শিড়দাঁড়া, রাবিউল ইসলামের স্বচ্ছ ভালোবাসা, মোহাম্মদ রবিউল ইসলাম টুকুর বুকের জমিনে বসতি, আশরাফ আলী চারুর নির্বাক জননী, মুরাদ খানের ছারপোকাগুলি জেগে আছে, অভিজিৎ চক্রবর্তীর ভুল শব্দে আওড়ে গিয়েছি প্রার্থনা ও মধ্যাহ্ন মুখোশ, তন্ময় সাহার ডাকবাক্সের তলায় ধুলো, মোঃ হানজালার সুবর্ণ দিনেও বিবর্ণ, মামুনুর রশিদ সম্পাদিত কাব্যগ্রন্থ আলোর প্রভাতসহ বেশ কিছু বই পাওয়া যাচ্ছে। সেইসাথে বইমেলায় নবীন কবি-লেখকদের আড্ডায় অংশ নিচ্ছেন কবি সংঘ বাংলাদেশের সভাপতি বিশিষ্ট কবি তালাত মাহমুদ, কবি রবিন পারভেজ, রফিকুল ইসলাম আধার, মুহাম্মদ আখতারুজ্জামান, কবি আরিফ হাসান, অধ্যক্ষ বিভূতিভুষণ মিত্র, কবি আইয়ুব আকন্দ বিদ্যুৎ, মহিউদ্দিন বিন জুবায়েদ, সাগর আহমেদসহ অনেকেই। সেইসাথে তাদের হাতে নিজের বই তুলে দিয়ে ছবি তুলতেও ব্যস্ত দেখা যাচ্ছে নবীন কবি-লেখকদের।
বইমেলা প্রসঙ্গে বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ মুহাম্মদ আখতারুজ্জামান বলেন, বই হচ্ছে জ্ঞানকোষ বা জ্ঞানের ভাণ্ডার। বই পড়ার মধ্য দিয়ে অজানাকে জানা যায়। জ্ঞানের আহরণ বাড়ানোর পাশাপাশি মেধা-মনন বিকাশের সুযোগ সৃষ্টি হয়। মানুষকে বই পড়তে উৎসাহ যোগাতে এবারের বইমেলা নিঃসন্দেহে নতুন মাত্রা যোগ করবে বলেই আমাদের বিশ্বাস।
এ ব্যাপারে শেরপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) ও উপ-সচিব সাইয়েদ এজেড মোরশেদ আলী বলেন, ‘বই কিনে কেউ কখনও দেউলিয়া হয় না’- এ উপলব্ধিকে ধারণ করে বর্তমান সময়ে শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন বয়সী মানুষের মাঝে বই পড়ার আগ্রহ বাড়ছে। এবারের বইমেলায় সেই আগ্রহের কারণেই বইপ্রেমীদের ভিড় ও বই বিক্রি বেড়েছে। বই পড়ে মানুষ বাংলাদেশকে, বাংলা ভাষাকে, মহান ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধসহ বাংলাদেশের ইতিহাস সম্পর্কে জানবে।
উল্লেখ্য, ২১ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার বিকেলে জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুবের সভাপতিত্বে শহরের ডিসি উদ্যানে ফিতা কেটে ৫ দিনব্যাপী বই মেলার উদ্বোধন করেন হুইপ আতিউর রহমান আতিক। মেলায় ১০টি স্টল বসেছে।

আপনার মতামত দিন

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

error: Content is protected !!