প্রকাশকাল: 25 জুন, 2019

শেরপুরে এবার নানার লালসার শিকার কিশোরী অন্ত:স্বত্ত্বা ॥ লম্পট নানা গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শেরপুরে এবার নানার লালসার শিকার হয়ে অন্ত:স্বত্ত্বা হয়ে পড়েছে এক মাদ্রাসাছাত্রী কিশোরী (১৫)। সদর উপজেলার কামারিয়া ইউনিয়নের খুনুয়াচর গ্রামে ওই ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় ২৪ জুন সোমবার লম্পট নানা আয়েব আলী (৬৫) কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধর্ষক আয়েব আলী স্থানীয় মৃত ইয়াকুব আলীর ছেলে। মঙ্গলবার দুপুরে গ্রেফতারকৃত আয়েব আলীকে আদালতে সোপর্দ করা হলে সে ১৬৪ ধারায় দেওয়্ াজবানবন্দিতে কিশোরী নাতনীকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করে। পরে তাকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়। একইদিন আদালতে ভিকটিমের ২২ ধারার জবানবন্দি গ্রহণ শেষে তাকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। ওই ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে।
জানা যায়, শেরপুর সদর উপজেলার খুনুয়াচর গ্রামের দরিদ্র কৃষক পরিবারের কিশোরী কন্যা ও স্থানীয় একটি মাদ্রাসার ৬ষ্ঠ শ্রেণির ওই শিক্ষার্থীর উপর প্রায় এক বছর আগে একই গ্রামের প্রতিবেশী চা-পান বিক্রেতা নানা আয়েব আলীর কু-নজর পড়ে। এরই এক পর্যায়ে বাড়িতে কোন লোকজন না থাকার সুযোগে ওই কিশোরীকে আয়েব আলী তার রান্না ঘরে নিয়ে গিয়ে দু’দফা ধর্ষণ করে। এদিকে ধর্ষণের কারণে ওই কিশোরীর শারীরিক পরিবর্তন দেখা দেয়ায় পরিবারের লোকজনের চাপে এক পর্যায়ে ওই কিশোরী ঘটনা খুলে বলে। ওই ঘটনায় সোমবার ধর্ষিতা কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করলে থানার এসআই শাহীন সরকারের নেতৃত্বে একদল পুলিশ লম্পট আয়েব আলীকে গ্রেফতার করে।
এ ব্যাপারে মামলার সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, প্রতিবেশী নানার লালসার শিকার হয়ে কিশোরী অন্তঃস্বত্ত্বার হওয়ার ঘটনায় তার বাবার অভিযোগে থানায় নিয়মিত মামলা রুজু হয়েছে। ওই মামলায় লম্পট আয়েব আলীকে গ্রেফতার করে মঙ্গলবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। একইসাথে আদালতে ভিকটিমের জবানবন্দি গ্রহণ এবং জেলা সদর হাসপাতালে ভিকটিমের ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে।

আপনার মতামত দিন

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

error: Content is protected !!