প্রকাশকাল: 11 আগস্ট, 2019

শেরপুরে ঈদুল আযহার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন ॥ নির্বিঘ্ন করতে ব্যাপক নিরাপত্তা

বর্ণিল আলোকসজ্জায় সেজেছে ঈদগাহ মাঠগুলো

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ত্যাগের মহিমা জাগানিয়া উৎসাহ-উদ্দীপনা নিয়ে মুসলিম উম্মাহর অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আযহার সকল প্রস্তুতি শেষ হয়েছে শেরপুরে। ১২ আগস্ট সোমবার ওই ঈদ উৎসব নির্বিঘ্ন করতে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের সতর্কতার পাশাপাশি বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তা ও জনসচেতনতা।
ঈদের জামাত উপলক্ষে ইতোমধ্যে পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতাসহ মাঠগুলো সাজানো হয়েছে বাহারি রঙের সামিয়ানা ও আলোকসজ্জায়। প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও বৃষ্টিপাত হলে ঈদগাহ মাঠের বিকল্প হিসেবে স্থানীয় মসজিদগুলোতে নামাজ আদায়ের প্রস্তুতি থাকছে। সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, পৌর পার্ক সংলগ্ন ঈদগাহ মাঠের প্রস্তুতি কাজ একেবারে শেষ পর্যায়ে। ঈদ উপলক্ষে শহরের বিভিন্ন মসজিদ ও ঈদগাহ মাঠের পাশাপাশি আশেপাশেও বর্ণিল আলোকসজ্জা করা হয়েছে। প্রায় প্রতিটি ঈদগাহ মাঠে নির্মাণ করা হয়েছে দৃষ্টিনন্দন গেইট। এতে শহরে ঈদের আমেজ বিরাজ করছে।
এদিকে শেরপুরে এবারও ঈদের প্রধান জামাত শহরের শহীদ দারোগ আলী পৌর পার্ক সংলগ্ন ঈদগাহ মাঠে সকাল ৯টায় অনুষ্ঠিত হবে। সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনায় ঈদুল আযহা উদযাপনে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের তরফ থেকে বাড়ানো হয়েছে নজরদারী।
শহরের প্রধান ঈদগাহ মাঠের প্রস্তুতি ও কোরবানীর পশুর বর্জ্য অপসারণের বিষয়ে পৌর মেয়র আলহাজ্ব গোলাম মোহাম্মদ কিবরিয়া লিটন শ্যামলবাংলা২৪ডটকমকে বলেন, জেলা শহরের প্রধান জামাত অনুষ্ঠানের জন্য শহীদ দারোগ আলী পৌর পার্ক সংলগ্ন পৌর ঈদগাহ মাঠকে এবারও সাজানো হয়েছে নানা রঙে। মাঠসহ আশেপাশের এলাকা পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়েছে। এছাড়া ঈদের জামাত পরবর্তী শহরের বিভিন্ন এলাকায় কোরবানীর পর পশুর বর্জ্য অপসারণের জন্য ওইদিন বেলা ২টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত পৌরসভার সংশ্লিষ্ট বিভাগের লোকজন কাজ করবে। এদিন তিনি শহরের ৮০ ভাগ বর্জ্য অপসারণের বিষয়ে আশাবাদ প্রকাশ করে বলেন, পরদিন বাকি বর্জ্যগুলো অপসারণ করা হবে। তিনি পৌরবাসীকে ঈদের আগাম শুভেচ্ছা জানিয়ে ঈদ উৎসব নির্বিঘ্ন করতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।
অন্যদিকে ঈদ উৎসব নির্বিঘ্ন করতে নিরাপত্তার বিষয়ে শেরপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আমিনুল ইসলাম বলেন, ঈদে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পোশাকধারী পুলিশের পাশাপাশি মাঠে সাদা পোশাকের পুলিশ ও ডিবি পুলিশ তৎপর থাকবে। ঈদের নামাজের পুলিশের বিশেষ টিম মোতায়েন থাকবে। এছাড়া পুলিশ সুপার মহোদয়ের নির্দেশে জেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পুলিশি চেক পোষ্ট, ব্লক রেইড ও ট্রাফিক পুলিশের বিভিন্ন অভিযান অব্যাহত থাকবে। সেইসাথে বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্র ও শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ইভটিজিং রোধে থাকবে পুলিশের বিশেষ নজরদারি।

জেলা প্রশাসনের পক্ষে স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক (উপ-সচিব) এটিএম জিয়াউল ইসলাম শেরপুরবাসীকে ঈদের আগাম শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, বরাবরের মতো এবারও ঈদ উৎসবের বিষয়ে জেলা প্রশাসনের তরফ থেকে খোঁজ-খবর রাখা হচ্ছে। ঈদ নির্বিঘ্ন করতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনীর পাশাপাশি প্রশাসনও তৎপর রয়েছে। তিনি বলেন, জেলা সদরের প্রধান ঈদের জামাত সকাল ৯টায় সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে ইমামতি করবেন তেরাবাজার জামিয়া সিদ্দিকিয়ার শিক্ষা সচিব মাওলানা মোঃ হযরত আলী।

আপনার মতামত দিন

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

error: Content is protected !!