[bangla_time] | [bangla_day] | [english_date] | [bangla_date]

রাজাপুরের বিষখালী নদীর বাঁধে ভয়াবহ ভাঙন

Rajapur photo-2ঝালকাঠি প্রতিনিধি : ঘূর্ণিঝড় কোমেনের প্রভাবে পানি বৃদ্ধিতে ঝালকাঠির রাজাপুরের বিষখালি নদী তীরবর্তী বড়ইয়া ও মঠবাড়ি ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানের বাঁধ ভেঙে বীজতলাসহ অসংখ্য গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। বর্তমানে পানি কমতে শুরু হওয়ায় দেখা দিয়েছে ভয়াবহ ভাঙন। এতে বড়ইয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ বড়ইয়া, বড়ইয়া, পালট, নিজামিয়া ও চল্লিশ কাহনিয়া এবং মঠবাড়ি ইউনিয়নের নাপিতেরহাট, মানকি, ডহরশঙ্কর ও বাদুরতলা বাজারসহ বিভিন্ন স্থানে দেখা দিয়েছে ভয়াবহ ভাঙন। এতে সাইকোন সেন্টার, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বাজার ও সরকারি স্থাপনা হুমকির মুখে রয়েছে। গতকাল রাতে দক্ষিণ বড়ইয়ার মাহাবুব মেম্বারের বাড়ি এলাকায় ভাঙনে ফসলি ও বাগানের গাছপালাসহ প্রায় ৩০ শতাংশ জমি বিষখালি নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। এতে ওই এলাকার বসবাসরত মানুষের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। এ যাবৎকাল পর্যন্ত বিষখালী নদীর তীরবর্তী মঠবাড়ি ও বড়ইয়া ইউনিয়নের বহু গ্রাম, শিক্ষা-ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং প্রায় দেড় হাজার একর আবাদি জমি নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। বিগত দিনে সরকার এ ভাঙ্গন রোধের প্রতিশ্রুতি দিলেও ভাঙ্গনকবলিত সর্বহারা মানুষগুলো বাস্তবে কোনকিছুই পায়নি। তাই প্রতিনিয়ত ভেঙ্গেই যাচ্ছে গ্রামের পর গ্রাম। সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলার বড়ইয়া ইউনিয়নের দক্ষিন বড়ইয়া ও বড়ইয়া গ্রামের বাঁধ ভেঙে আমনের বাজীতলাসহ বড়ইয়া, দক্ষিন বড়ইয়া, পালট, নিজামিয়া ও চল্লিশ কাহনিয়া গ্রাম প্লাবিত হচ্ছে। কৃষকরা আমন বীজতলা রক্ষার জন্য নিজ উদ্যোগে ফসলি জমির মাটি কেটেই বাধ রক্ষার জন্য সংস্কারের চেষ্টা করলেও পানির ¯্রােতে তা ভেঙে যাচ্ছে। এতে বীজতলা নষ্ট হওয়ার শঙ্কা করছে হত দরিদ্র কৃষকরা। বিষখালীর ভাঙ্গনে তিগ্রস্তরা জানান, ভাঙ্গনরোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড এখন পর্যন্ত কোন পদপে গ্রহণ করেনি। বর্তমানে বন্যার পানি কমতে শুরু করায় দেখা দিয়েছে আকস্মিক ভাঙ্গন। এতে শিশু, বৃদ্ধ ও মহিলারাসহ সবাই আতঙ্কে রয়েছি। রাতে এ ভাঙ্গনের তীব্রতা আরো বেশি হওয়ায় কেহই নিরাপদে ঘরে ঘুমাতে পারছেন না। উপজেলা মৎস্য অফিস সূত্র জানান, বিষখালি নদীতে স্থায়ী বেরি বাঁধ না থাকায় তীরবর্তী এলাকায় প্রতিবছরই পানিতে তলিয়ে চাষকৃত মাছ ভেসে যায়। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ রিয়াজ উল্লাহ বাহাদুর জানান, বিষখালি নদীতে স্থায়ী বেরি বাঁধ না থাকায় বিভিন্ন ফসল ও ধান চাষে ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। বিষখালি নদীর বর্তমানের এ ভাঙ্গন রোধে পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ে রাজাপুর উপজেলা পরিষদ থেকে আবেদন করেছেন উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্য মোঃ মনিরউজ্জামান। আবেদনে তিনি উল্লেখ করেন, ভাঙ্গন কবলিত গ্রামগুলোর সম্পত্তি রক্ষাসহ সকল সরকারি বে-সরকারি স্থাপনা ও গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহ রক্ষার জন্য উপজেলার বিষখালি নদীর পশ্চিম-দক্ষিন তীরবর্তী চল্লিশ কাহনিয়া লঞ্চঘাট থেকে বড়ইয়া হয়ে উত্তর পালট লঞ্চঘাটসহ ভাঙ্গন কবলিত এলাকায় জরুরি ভিত্তিতে ভাঙ্গন রোধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন। এ বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মনিরউজ্জামান জানান, জরুরি ভিত্তিতে বিষখালি নদীর ভাঙ্গন রোধের দাবিতে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ে লিখিতভাবে আবেদন করেছি। দ্রুত বেরিবাধ নির্মাণ করে ভাঙন রোধ করার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, শিল্পমন্ত্রী ও পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সকলের সু-দৃষ্টি কামনা করেন তিনি।

অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» শেরপুরে ডিসি কার্যালয়ে গণশুনানিতে বাড়ছে মানুষের ভিড় ॥ সহায়তা পেয়ে বেজায় খুশি অনেকেই

» নকলায় অন্তঃসত্ত্বাকে গাছে বেঁধে নির্যাতনের মামলায় ৫ মাসেও গ্রেফতার হয়নি ৩ পলাতক আসামি

» সরকারি কর্মচারীসহ দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী

» উদ্যোক্তার অভাবে হচ্ছে না হুমায়ূনের ক্যান্সার হাসপাতাল : শাওন

» গোলাপি বলে পেসারদের সুবিদা বেশী দেখছেন কোহলি

» শ্রীবরদীতে দরিদ্রদের মাঝে ওয়ার্ল্ড ভিশনের গরু বিতরণ

» শ্রীবরদীতে শীতকালীন সবজি বীজ বিতরণ

» শেরপুরে সুতিখালি নদীর অবৈধ দখলদার উচ্ছেদসহ নদী-নালা, খাল-বিল রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন

» সামর্থ্যবানদের কর প্রদানের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতিতে ভূমিকা রাখার আহবান

» মুজিব বর্ষে ঘরে ঘরে জ্বলবে বিদ্যুতের আলো : প্রধানমন্ত্রী

» ময়মনসিংহে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উদযাপন পরিষদের নানা কর্মসূচী

» শেরপুরে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ করদাতার পুরস্কার পেলেন তরুণ ব্যবসায়ী সাদুজ্জামান সাদী

» শাহরুখের আমন্ত্রণে দেশ ছেড়েছেন শাকিব

» ইমার্জিং এশিয়া কাপের ট্রফি উন্মোচন

» রাষ্ট্রপতির সফরসঙ্গী হিসেবে এবার নেপাল গেলেন হুইপ আতিক

সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

কারিগরি সহযোগিতায় BD iT Zone

,

রাজাপুরের বিষখালী নদীর বাঁধে ভয়াবহ ভাঙন

Rajapur photo-2ঝালকাঠি প্রতিনিধি : ঘূর্ণিঝড় কোমেনের প্রভাবে পানি বৃদ্ধিতে ঝালকাঠির রাজাপুরের বিষখালি নদী তীরবর্তী বড়ইয়া ও মঠবাড়ি ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানের বাঁধ ভেঙে বীজতলাসহ অসংখ্য গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। বর্তমানে পানি কমতে শুরু হওয়ায় দেখা দিয়েছে ভয়াবহ ভাঙন। এতে বড়ইয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ বড়ইয়া, বড়ইয়া, পালট, নিজামিয়া ও চল্লিশ কাহনিয়া এবং মঠবাড়ি ইউনিয়নের নাপিতেরহাট, মানকি, ডহরশঙ্কর ও বাদুরতলা বাজারসহ বিভিন্ন স্থানে দেখা দিয়েছে ভয়াবহ ভাঙন। এতে সাইকোন সেন্টার, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বাজার ও সরকারি স্থাপনা হুমকির মুখে রয়েছে। গতকাল রাতে দক্ষিণ বড়ইয়ার মাহাবুব মেম্বারের বাড়ি এলাকায় ভাঙনে ফসলি ও বাগানের গাছপালাসহ প্রায় ৩০ শতাংশ জমি বিষখালি নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। এতে ওই এলাকার বসবাসরত মানুষের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। এ যাবৎকাল পর্যন্ত বিষখালী নদীর তীরবর্তী মঠবাড়ি ও বড়ইয়া ইউনিয়নের বহু গ্রাম, শিক্ষা-ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং প্রায় দেড় হাজার একর আবাদি জমি নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। বিগত দিনে সরকার এ ভাঙ্গন রোধের প্রতিশ্রুতি দিলেও ভাঙ্গনকবলিত সর্বহারা মানুষগুলো বাস্তবে কোনকিছুই পায়নি। তাই প্রতিনিয়ত ভেঙ্গেই যাচ্ছে গ্রামের পর গ্রাম। সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলার বড়ইয়া ইউনিয়নের দক্ষিন বড়ইয়া ও বড়ইয়া গ্রামের বাঁধ ভেঙে আমনের বাজীতলাসহ বড়ইয়া, দক্ষিন বড়ইয়া, পালট, নিজামিয়া ও চল্লিশ কাহনিয়া গ্রাম প্লাবিত হচ্ছে। কৃষকরা আমন বীজতলা রক্ষার জন্য নিজ উদ্যোগে ফসলি জমির মাটি কেটেই বাধ রক্ষার জন্য সংস্কারের চেষ্টা করলেও পানির ¯্রােতে তা ভেঙে যাচ্ছে। এতে বীজতলা নষ্ট হওয়ার শঙ্কা করছে হত দরিদ্র কৃষকরা। বিষখালীর ভাঙ্গনে তিগ্রস্তরা জানান, ভাঙ্গনরোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড এখন পর্যন্ত কোন পদপে গ্রহণ করেনি। বর্তমানে বন্যার পানি কমতে শুরু করায় দেখা দিয়েছে আকস্মিক ভাঙ্গন। এতে শিশু, বৃদ্ধ ও মহিলারাসহ সবাই আতঙ্কে রয়েছি। রাতে এ ভাঙ্গনের তীব্রতা আরো বেশি হওয়ায় কেহই নিরাপদে ঘরে ঘুমাতে পারছেন না। উপজেলা মৎস্য অফিস সূত্র জানান, বিষখালি নদীতে স্থায়ী বেরি বাঁধ না থাকায় তীরবর্তী এলাকায় প্রতিবছরই পানিতে তলিয়ে চাষকৃত মাছ ভেসে যায়। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ রিয়াজ উল্লাহ বাহাদুর জানান, বিষখালি নদীতে স্থায়ী বেরি বাঁধ না থাকায় বিভিন্ন ফসল ও ধান চাষে ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। বিষখালি নদীর বর্তমানের এ ভাঙ্গন রোধে পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ে রাজাপুর উপজেলা পরিষদ থেকে আবেদন করেছেন উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্য মোঃ মনিরউজ্জামান। আবেদনে তিনি উল্লেখ করেন, ভাঙ্গন কবলিত গ্রামগুলোর সম্পত্তি রক্ষাসহ সকল সরকারি বে-সরকারি স্থাপনা ও গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহ রক্ষার জন্য উপজেলার বিষখালি নদীর পশ্চিম-দক্ষিন তীরবর্তী চল্লিশ কাহনিয়া লঞ্চঘাট থেকে বড়ইয়া হয়ে উত্তর পালট লঞ্চঘাটসহ ভাঙ্গন কবলিত এলাকায় জরুরি ভিত্তিতে ভাঙ্গন রোধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন। এ বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মনিরউজ্জামান জানান, জরুরি ভিত্তিতে বিষখালি নদীর ভাঙ্গন রোধের দাবিতে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ে লিখিতভাবে আবেদন করেছি। দ্রুত বেরিবাধ নির্মাণ করে ভাঙন রোধ করার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, শিল্পমন্ত্রী ও পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সকলের সু-দৃষ্টি কামনা করেন তিনি।

সর্বশেষ খবর



অন্যান্য খবর



সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

কারিগরি সহযোগিতায় BD iT Zone

error: Content is protected !!