প্রকাশকাল: 8 জুলাই, 2019

মো: রাবিউল ইসলামের ‘গুণী ডাক্তার’

শেরপুর জেলার কৃতী সন্তান
নামটি নাদিম তার,
বাবা-মায়ের ইচ্ছায় হলেন
গুণী এক ডাক্তার।

হঠাৎ একদিন হাসপাতালে
গেলাম রোগি নিয়ে,
প্রথম দেখা পেলাম যে তার
জরুরিতে গিয়ে।

কথাতেই তার বুঝেছিলাম
কেমন গুণীজন,
ব্যবহারেই আধেক ভালো
হয় যে রোগির মন।

কথা বলেন রোগির সাথে
সদা হেসে হেসে,
খোঁজখবর নেন নিত্য তিনি
বিছানাতে এসে।

এমনি করে শেরপুরে তার
যাচ্ছে সময় কেটে,
মূল দায়িত্ব সরকার দিলেন
নানা তথ্য ঘেঁটে।

হাসপাতালকে রাখতে ভালো
গঠন করে দল,
তাদের নিয়ে এগিয়ে যান
পেতে কাজের ফল।

নিজের কর্ম নিয়মিত
যাচ্ছেন তিনি করে,
কর্ম দ্বারাই মানুষের মন
রাখবেন তিনি ধরে।

এইতো সেদিন রোগি নিয়ে
গেলাম মধ্যরাতে,
রোগি ছিলো বাইরে আমার
রিপোর্ট ছিলো হাতে।

ব্যস্ত থেকেও কেমন যেন
চিনলেন আমায় দেখে,
বললেন তিনি রোগি কেন
বাইরে এলেন রেখে?

বসতে দিলেন ভালোবেসে
করলেন অনেক যত্ন,
ব্যবহারে ভাবলাম তাঁকে
মূল্যবান এক রত্ন।

তাঁর মুখেতে আমার লেখার
গুণ শুনলাম আমি,
কীযে খুশি হলো মনটা
জানে অন্তর্যামী।

ব্যস্ত মানুষ তিনি অতি
পড়েন তবু কাব্য,
কথাটা যে অবিশ্বাস্য
সবার নিকট ভাব্য।

উপভাষার কাব্যে তিনি
খুবই মজা পান,
বললেন আমায় সেই ভাষাতে
আরো লিখে যান।

ইচ্ছে হলো আরো বেশি
স্যারের কথা শুনে,
উপভাষায় কাব্য লিখবো
আঞ্চলিক সব গুণে।

রোগি ছিলেন শাশুড়ি মা
আমার পাশে বসে,
মূল্যটা যে পেলাম সেদিন
উনার জন্যই এসে।

মধ্যবিত্ত নিম্নবিত্ত
রোগি আছেন যত,
নাদিম ডাক্তার তাদের সেবায়
আছেন নিয়োজিত।

যারা আছেন উচ্চবিত্ত
আছে অনেক টাকা,
শেরপুর তারা রাখে না খোঁজ
চিকিৎসা হয় ঢাকা।

সুযোগ পেলে স্যারকে নিয়ে
হতে পারবো কবি।
কথার ফাঁকে এমন আশায়
নিয়েছিলাম ছবি।

রোগি আমার খুশি হলেন
স্যারের কথা শুনে,
বললেন আমায় বেঁচে থেকো
কাব্যরসের গুণে।

সহায় থেকো মহান আল্লাহ্
নাদিম স্যারের কর্মে,
মহান পেশায় সুনাম থাকুক
সেবা নামক ধর্মে।

আপনার মতামত দিন

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

error: Content is protected !!