বিকাল ৪:২৮ | সোমবার | ৬ই এপ্রিল, ২০২০ ইং | ২৩শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মালিকের ফিফটির কাছে হারল বাংলাদেশ

শ্যামলবাংলা ডেস্ক : মিডল অর্ডারের শক্তি খসে গেছে বাংলাদেশের। মুশফিক না থাকায় ব্যাটিং অর্ডারেও করতে হয়েছে কাঁটাছেড়া। যা দলের জন্য সুফল বয়ে আনেনি। পাকিস্তান আবার মিডল অর্ডারের অভিজ্ঞতা ও শক্তি বাড়াতে শোয়েব মালিকের স্মরণাপন্ন হয়। মালিক ফিফটি করে দলকে ৫ উইকেটে জিতিয়ে ফেরেন। বুঝিয়ে দেন এমন অনেক ম্যাচ জয়ের কালের সাক্ষী তিনি।

img-add

টস জিতে ব্যাট করতে নামা বাংলাদেশ সিরিজের প্রথম ম্যাচে ভালো শুরু করে। লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে দুই ওপেনার ১১ ওভার খেলে তোলেন ৭১ রান। ওই ‘ভালো খেলাটাই’ যেন কাল হলো দলের জন্য। টি-২০ ফরম্যাটে দুই ওপেনারই খেলেন ওয়ানডে গতিতে। অ্যাংকরিং করেন দু’জনই। কিন্তু রান বাড়াতে ব্যাট তোলেননি কেউ। বাংলাদেশের ইনিংসও তাই শেষ পর্যন্ত বড় হয়নি। নির্ধারিত ২০ ওভারে মাত্র ৫ উইকেট হারিয়ে ১৪১ রান তুলতে পারে বাংলাদেশ।
দলের হয়ে দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল ৩৪ বলে খেলেন ৩৭ রানের ইনিংস। বিপিএলের মতো পাকিস্তান সফরেও প্রথম ম্যাচে সফল তিনি। কিন্তু তার ওই নামমাত্র ভালো খেলা কিংবা সফলতা দলের কাজে আসলো না। অন্য ওপেনার নাঈম শেখও তামিমের সঙ্গে সুর মিলিয়ে ব্যাটিং করেন। তিনি খেলেন ৪১ বলে ৪৩ রানের ইনিংস।
এরপর লিটন দাস ক্রিজে এসে ধুঁকতে থাকেন। তামিমের মতো রান আউট হয়ে ফেরেন ১৩ বলে ১২ রান করে। পরে মাহমুদুল্লাহ-আফিফদের একটা ধাক্কা দিয়ে দলের রান বড় করতে হতো। কিন্তু পাকিস্তান বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে তারা সেটা পারেননি
ছোট লক্ষ্যে ব্যাট করতে নামা পাকিস্তান ইনিংসের প্রথম বলেই উইকেট হারায়। দলের সেরা ব্যাটসম্যান এবং টি-২০ অধিনায়ক বাবর আযম গোল্ডেন ডাক মেরে ফেরেন শফিউলের বলে। এরপর মোহাম্মদ হাফিজ ও আহসান আলী যথাক্রমে ১৭ ও ৩৬ রান করে সাজঘরে ফেরেন। ম্যাচ তখনও পক্ষে ছিল বাংলাদেশের। ইফতিখারকে ১৬ রানে ফিরিয়ে জয়ের আশাও জাগায় বাংলাদেশ।
কিন্তু টার্নিং পয়েন্টে শোয়েব মালিককে আউট করার পথ বের করতে পারেনি রাসেল ডমিঙ্গোর শিষ্যরা। তিনি ৪৫ বলে ৫৮ রানের ইনিংস খেলে দলকে জেতান। ফিফটির আগে অবশ্য মালিকের একটা ক্যাচ ফেলে দেন নাজমুল শান্ত। ক্যাচটা নিতে পারলে ম্যাচটা হয়তো আর একটু কঠিন হতো পাকিস্তানের। ম্যাচটা শেষ হতে পারতো বাংলাদেশের জয়ে। আবার পাকিস্তান তাদের জয় পাওয়া বলটায়ও ক্যাচ দেয়। মোহাম্মদ মিঠুন সেটা নিতে পারলেও হারটা ছোট হতো বাংলাদেশের।
পাকিস্তানের হয়ে অভিষেক ম্যাচে হ্যারিস রউফ ৪ ওভারে ৩২ রান দিয়ে নেন ১ উইকেট। শাদাব খান ৪ ওভারে দেন ২৬ রান। নেন ১ উইকেট। এছাড়া দারুণ বল করা শাহিন শাহ আফ্রিদি ৪ ওভারে ২৩ রান দিয়ে নেন একটি উইকেট।
বাংলাদেশের হয়ে শফিউল ইসলাম নেন ২ উইকেট। আল আমিন নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ৪ ওভারে দেন ১৮ রান। উইকেট পান একটি। আমিনুল তার ৪ ওভারে ২৮ রান খরচায় দখল করেন একটি উইকেট। দুই দলের মধ্যে সবচেয়ে খরুচে ছিলেন মুস্তাফিজ। ৪ ওভারে ৪০ রান দিয়ে তিনি উইকেট নেন একটা। বিপিএলের শেষ দিকে ফর্মে ফেরার ইঙ্গিত দেওয়া এই পেসার আবার বিবর্ণ।

অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» শেরপুরে হাসপাতালের স্টাফসহ করোনা ভাইরাসের ২ রোগী শনাক্ত

» শেরপুরে ১ হাজার কর্মহীন মানুষ পেল আ’লীগ নেতা উৎপলের খাদ্য সহায়তা

» শেরপুরে বিশেষ ওএমএসের চাল ও আটা বিক্রি শুরু

» ঢাকায় প্রবেশ ও বের হওয়া বন্ধ

» ঝিনাইগাতীতে করোনা সন্দেহে এক কিশোরের নমুনা সংগ্রহ

» করোনায় ই-রাজনীতি : হোয়াটসঅ্যাপে সভা; ভিডিও বার্তায় আহ্বান

» মোদির কাছে ম্যালেরিয়ার ওষুধ চাইলেন ট্রাম্প

» ধনী মালিকদের নয়, অসহায়দের সাহায্য করতে রাজি ফুটবলাররা

» সাধারণ ছুটি বাড়ল ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত

» শেরপুরে সামাজিক দূরত্ব ও হোম কোয়ারেন্টাইন না মানায় ৯৮ হাজার টাকা জরিমানা

» বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬৪ হাজার : আক্রান্ত ১২ লাখ

» কেউ চাকরি হারাবেন না : প্রধানমন্ত্রী

» ৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী

» ঝিনাইগাতীতে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে সেনা তৎপরতা জোরদার

» গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় আক্রান্ত ১৮, আরও একজনের মৃত্যু

সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

  বিকাল ৪:২৮ | সোমবার | ৬ই এপ্রিল, ২০২০ ইং | ২৩শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মালিকের ফিফটির কাছে হারল বাংলাদেশ

শ্যামলবাংলা ডেস্ক : মিডল অর্ডারের শক্তি খসে গেছে বাংলাদেশের। মুশফিক না থাকায় ব্যাটিং অর্ডারেও করতে হয়েছে কাঁটাছেড়া। যা দলের জন্য সুফল বয়ে আনেনি। পাকিস্তান আবার মিডল অর্ডারের অভিজ্ঞতা ও শক্তি বাড়াতে শোয়েব মালিকের স্মরণাপন্ন হয়। মালিক ফিফটি করে দলকে ৫ উইকেটে জিতিয়ে ফেরেন। বুঝিয়ে দেন এমন অনেক ম্যাচ জয়ের কালের সাক্ষী তিনি।

img-add

টস জিতে ব্যাট করতে নামা বাংলাদেশ সিরিজের প্রথম ম্যাচে ভালো শুরু করে। লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে দুই ওপেনার ১১ ওভার খেলে তোলেন ৭১ রান। ওই ‘ভালো খেলাটাই’ যেন কাল হলো দলের জন্য। টি-২০ ফরম্যাটে দুই ওপেনারই খেলেন ওয়ানডে গতিতে। অ্যাংকরিং করেন দু’জনই। কিন্তু রান বাড়াতে ব্যাট তোলেননি কেউ। বাংলাদেশের ইনিংসও তাই শেষ পর্যন্ত বড় হয়নি। নির্ধারিত ২০ ওভারে মাত্র ৫ উইকেট হারিয়ে ১৪১ রান তুলতে পারে বাংলাদেশ।
দলের হয়ে দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল ৩৪ বলে খেলেন ৩৭ রানের ইনিংস। বিপিএলের মতো পাকিস্তান সফরেও প্রথম ম্যাচে সফল তিনি। কিন্তু তার ওই নামমাত্র ভালো খেলা কিংবা সফলতা দলের কাজে আসলো না। অন্য ওপেনার নাঈম শেখও তামিমের সঙ্গে সুর মিলিয়ে ব্যাটিং করেন। তিনি খেলেন ৪১ বলে ৪৩ রানের ইনিংস।
এরপর লিটন দাস ক্রিজে এসে ধুঁকতে থাকেন। তামিমের মতো রান আউট হয়ে ফেরেন ১৩ বলে ১২ রান করে। পরে মাহমুদুল্লাহ-আফিফদের একটা ধাক্কা দিয়ে দলের রান বড় করতে হতো। কিন্তু পাকিস্তান বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে তারা সেটা পারেননি
ছোট লক্ষ্যে ব্যাট করতে নামা পাকিস্তান ইনিংসের প্রথম বলেই উইকেট হারায়। দলের সেরা ব্যাটসম্যান এবং টি-২০ অধিনায়ক বাবর আযম গোল্ডেন ডাক মেরে ফেরেন শফিউলের বলে। এরপর মোহাম্মদ হাফিজ ও আহসান আলী যথাক্রমে ১৭ ও ৩৬ রান করে সাজঘরে ফেরেন। ম্যাচ তখনও পক্ষে ছিল বাংলাদেশের। ইফতিখারকে ১৬ রানে ফিরিয়ে জয়ের আশাও জাগায় বাংলাদেশ।
কিন্তু টার্নিং পয়েন্টে শোয়েব মালিককে আউট করার পথ বের করতে পারেনি রাসেল ডমিঙ্গোর শিষ্যরা। তিনি ৪৫ বলে ৫৮ রানের ইনিংস খেলে দলকে জেতান। ফিফটির আগে অবশ্য মালিকের একটা ক্যাচ ফেলে দেন নাজমুল শান্ত। ক্যাচটা নিতে পারলে ম্যাচটা হয়তো আর একটু কঠিন হতো পাকিস্তানের। ম্যাচটা শেষ হতে পারতো বাংলাদেশের জয়ে। আবার পাকিস্তান তাদের জয় পাওয়া বলটায়ও ক্যাচ দেয়। মোহাম্মদ মিঠুন সেটা নিতে পারলেও হারটা ছোট হতো বাংলাদেশের।
পাকিস্তানের হয়ে অভিষেক ম্যাচে হ্যারিস রউফ ৪ ওভারে ৩২ রান দিয়ে নেন ১ উইকেট। শাদাব খান ৪ ওভারে দেন ২৬ রান। নেন ১ উইকেট। এছাড়া দারুণ বল করা শাহিন শাহ আফ্রিদি ৪ ওভারে ২৩ রান দিয়ে নেন একটি উইকেট।
বাংলাদেশের হয়ে শফিউল ইসলাম নেন ২ উইকেট। আল আমিন নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ৪ ওভারে দেন ১৮ রান। উইকেট পান একটি। আমিনুল তার ৪ ওভারে ২৮ রান খরচায় দখল করেন একটি উইকেট। দুই দলের মধ্যে সবচেয়ে খরুচে ছিলেন মুস্তাফিজ। ৪ ওভারে ৪০ রান দিয়ে তিনি উইকেট নেন একটা। বিপিএলের শেষ দিকে ফর্মে ফেরার ইঙ্গিত দেওয়া এই পেসার আবার বিবর্ণ।

সর্বশেষ খবর



অন্যান্য খবর



সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

error: Content is protected !!