প্রভাবশালী সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম ॥ শেরপুরে দীর্ঘ ৬ মাস ধরে সাবরেজিস্ট্রার না থাকায় দলিল নিবন্ধন বন্ধ

দাতা-গ্রহীতাদের চরম দুর্ভোগ ॥ রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত সরকার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ দীর্ঘ প্রায় ৬ মাস ধরে শেরপুর জেলা সদরের সাবরেজিস্ট্রার পদটি শূন্য রয়েছে। চলতি মে মাসে এ অফিসে একজন নতুন সাব-রেজিস্ট্রার পোষ্টিং দেওয়া হলেও তিনিও অজ্ঞাত কারণে এ কর্মস্থলে যোগদান করেননি। এতে জমির দলিল নিবন্ধনসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ কাজ বন্ধ থাকায় চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন দাতা-গ্রহীতাসহ অনেকেই। একই কারণে প্রায় বেকার হয়ে পড়েছেন দলিল লেখক ও নকলনবীশরা। সেইসঙ্গে বিপুল অঙ্কের রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সরকার। অন্যদিকে প্রভাবশালী বিশেষ সিন্ডিকেটের দৌরাত্মের কারণেই দীর্ঘদিন যাবত শূন্য থাকার পরও সদর সাবরেজিস্ট্রার পদে কেউ আসতে চাচ্ছেন না বলে অভিযোগ উঠেছে।
জানা যায়, পদোন্নতিজনিত কারণে ৬ মাস আগে জেলা সদরের সাব রেজিস্ট্রার তাপস কুমার রায় বদলি হয়ে অন্য কর্মস্থলে চলে যান। এরপর ওই পদে আর নতুন করে কাউকে নিয়োগ দেওয়া হয়নি। মাসে ২-১ দিন অন্য উপজেলার সাবরেজিস্ট্রারকে দিয়ে নিবন্ধনের কাজ করানো হলেও মানুষের দুর্ভোগ ও ভোগান্তি কমেনি। এ অবস্থায় চলতি ৬ মে একজন নতুন সাব-রেজিস্ট্রার নিয়োগের ৩ সপ্তাহ অতিবাহিত হলেও তিনিও রহস্যজনক কারণে এখনও যোগদান করেননি। ফলে পদটি শূন্য হওয়ার পর থেকে জমির দলিল নিবন্ধন, নকল উত্তোলন ও গুরুত্বপূর্ণ দাপ্তরিক কাজ বন্ধ রয়েছে। এতে জমি ক্রয়-বিক্রয় করেও সংশ্লিষ্ট পক্ষের লোকজন সময়মতো দলিল নিবন্ধন করতে পারছেন না। অনেকেই বায়নাপত্র দলিল রেজিস্ট্রি বা সম্পাদন করতে বা হস্তান্তর করতে না পারায় দ্বন্দ্ব-কলহে জড়িয়ে পড়ছে। এতে করে নানা শ্রেণি পেশার মানুষ বড় বেকায়দায় পড়েছেন। অনেকে অসুস্থ হয়েও জমি ক্রয়-বিক্রয় করতে পারছেন না। টাকার অভাবে করতে পারছেন না চিকিৎসা। অনেকেই দিনের পর দিন ঘুরেও পাচ্ছেন না জমির নকল, নিতে পারছেন না তল্লাসি সুবিধা। এতে তারা এখন হয়রান। দলিল লেখকরাও জমি দলিল রেজিস্ট্রি না করতে পেরে সমস্যার মধ্যে আছে। অন্য উপজেলা থেকে সাব-রেজিষ্ট্রার সপ্তাহে ৩ দিন দেয়ার কথা থাকলেও তারাও আসছেন না ঠিকমত।
সদর সাবরেজিস্ট্রার অফিসে সরেজমিনে গিয়ে কথা হয় সাবরেজিস্টার অফিসের কর্মকর্তা, দলিল লেখক, নকলনবীশ ও জমি বিক্রি-ক্রয়-বায়না চুক্তি করা দাতা-গ্রহীতাসহ অনেকের সাথেই। ওই অফিসের একজন কর্মকর্তা জানান, সদরের সাবরেজিস্ট্রার পদটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এ পদে সার্বক্ষণিক কর্মকর্তা থাকলে এখানে প্রতিদিন শতাধিক দলিলের নিবন্ধন হয়ে থাকে। এর ফি বাবদ মাসে প্রায় এক কোটি টাকার রাজস্ব আয় হয়। কিন্তু দীর্ঘ ৬ মাস যাবত পদটি শূন্য থাকায় সরকার বিপুল পরিমাণ রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।
সদর উপজেলার জঙ্গলদী গ্রামের আব্দুর রহমান বলেন, তিনি অসুস্থ। চিকিৎসা করানোর জন্য জমি বিক্রি করেছেন। কিন্তু জমির দলিল করে দিতে না পারায় ক্রেতা তাকে সব টাকা দিচ্ছেন না। ফলে আর্থিক সংকটে তার চিকিৎসা কাজ ব্যাহত হচ্ছে। এতে তিনি বিপাকে পড়ে গেছেন। শহরের রাজাবাড়ি এলাকার আবু হানিফ বলেন, তিনি একটি জমির নকল উত্তোলনের জন্য এক মাস যাবত চেষ্টা করছেন। কিন্তু সাবরেজিস্ট্রার না থাকায় সেটি পাচ্ছেন না। একই কারণে ভূমি কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে জমির খারিজ করাতে পারছেন না। জমি বিক্রি করে ঋণ পরিশোধ করবেন। সেটিও করতে পারছেন না। আব্দুর রহিম নামে এক জমি ক্রেতা জানান, আমি জমি ক্রয় করেছি। দুটি নকল উঠাতে হয়। এখন পর্যন্ত নকল দুটি উঠাতে পারছি না। অফিসার না থাকায় নকল পাচ্ছি না। তাই আমি বেশ চিন্তিত আছি। একই ধরনের সমস্যা জানান, শহরের কালিগঞ্জ মহল্লার তারিকুল ইসলাম ভাসানী, পাকুরিয়ার শফিকুল ইসলাম।
এদিকে সদর সাব-রেজিস্টার পদটি অতিশয় লোভনীয় হওয়া সত্ত্বেও এখানে পোস্টিং দেওয়ার পরও কেন সাব-রেজিস্ট্রার আসছেন না- তার কারণ খুজতে বেরিয়ে এসেছে নেপথ্য কাহিনী। এ বিষয়ে অফিসের একাধিক কর্মকর্তা ও কমর্চারী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, জেলা সদরে সাব-রেজিষ্ট্রারগণ নানাভাবে তদবির করে আসে। শূন্যতার কারণে এখানে অন্য উপজেলা থেকে নিয়মিতই সাব-রেজিষ্ট্রারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। কিন্তু বাস্তবচিত্র ভিন্ন হওয়ায় অন্য উপজেলার সাব রেজিষ্ট্রারগণও সদরে আসতে চান না বা বসতে চান না। তারা নেপথ্য কারণ সম্পর্কে পরিস্কার কিছু না বললেও অনুসন্ধানে জানা যায়, সদর সাব-রেজিস্ট্রার অফিস দলিল লেখক সমিতির বাইরেও একটি প্রভাবশালী বিশেষ সিন্ডিকেট দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। সরকারি রাজস্বের বাইরে দৈনিক দলিলে অর্জিত বিপুল পরিমাণ অর্থ সাব-রেজিস্ট্রারসহ বিছু অসাধু কর্মকর্তা ও ওই সিন্ডিকেটের নেতাদের মধ্যে ভাগ-বাটোয়ারা হয়। এরপরও প্রায় ৬ মাস আগে হঠাৎ করেই বেড়ে যায় ওই সিন্ডিকেটের অপতৎপরতা। তারা ‘অমুক ভাইয়ের’, ‘অমুক নেতার দলিল’ বলে চালিয়ে দিয়ে অতিরিক্ত অর্থ দেওয়া বন্ধ করে নিজেদের আখের গুছিয়ে নিচ্ছিলেন। বিষয়টি কেবল সাব-রেজিস্ট্রার ও অধিনস্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীই নয়, রেজিস্ট্রার পর্যায় পর্যন্ত অসন্তুষ্টি সৃষ্টি করে। যে কারণে এখানে কোন সাব-রেজিস্ট্রার আসার ক্ষেত্রে সৃষ্টি হয়েছে চরম অনিহা। আর তার ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে দলিলের দাতা-গ্রহিতাসহ সাধারণ মানুষকে।
সাব-রেজিস্ট্রার না থাকার সমস্যা প্রসঙ্গে শেরপুর দলিল লেখক সমিতির সভাপতি আব্দুল মতিন বলেন, সাবরেজিস্ট্রার না থাকায় তারা প্রায় বেকার হয়ে পড়েছেন। জমির ক্রেতা-বিক্রেতারা আসছেন। কিন্তু কর্মকর্তা না থাকায় দলিল নিবন্ধন হচ্ছে না। এতে তারা আর্থিক সংকটে ভুগছেন। আর জেলা নকলনবীশ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক রুকুনুজ্জামান রুকন বলেন, দীর্ঘ ৬ মাস যাবত সাবরেজিস্ট্রার না থাকায় সাধারণ মানুষ দলিলের নকল কপি পাচ্ছেন না। এতে তারা ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।
জেলা রেজিস্ট্রার সেলিম উদ্দিন ভূইয়া বলেন, সদর সাবরেজিস্ট্রার না থাকায় বেশ কিছুদিন বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে অন্য উপজেলা থেকে সাবরেজিস্ট্রার এনে মাঝে-মধ্যে জমি নিবন্ধনের কাজ চালানো হলেও চলতি মাসে একজনকে নিয়োগ দেওয়া হয়। কিন্তু নিয়োগের পরও কেন তিনি যোগ দিচ্ছেন না সে বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। এর পেছনে কি কারণ থাকতে পারে তা প্রকাশ না করলেও বিষয়টি স্থানীয় বলে মন্তব্য করেন তিনি।
এ ব্যাপারে শেরপুরের জেলা প্রশাসক ড. মল্লিক আনোয়ার হোসেন শনিবার বিকেলে শ্যামলবাংলা২৪ডটকম বলেন, জেলা সদরের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় দীর্ঘদিন সাবরেজিস্ট্রার না থাকার বিষয়টি দুঃখজনক। তদুপরি একজনকে নিয়োগ দেওয়ার পরও তার কাজে যোগদান না করাটাও অনভিপ্রেত। তবে যতটুকু জেনেছি সমস্যাটি স্থানীয়। এজন্য জনপ্রতিনিধি ও দায়িত্বশীল মহলসহ সকলের সহযোগিতায় খুব শীঘ্রই সমস্যাটির সমাধান হবে বলে তিনি প্রত্যাশা করেন।

আপনার মতামত দিন

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

অবাধে মাছ নিধন অমানবিক নির্যাতনে শিশুর মৃত্যু আত্মহত্যা আহত ইয়াবা উদ্ধার উড়াল সড়ক খুন গাছে বেঁধে নির্যাতন গাছের চারা বিতরণ ঘূর্ণিঝড় 'কোমেন' চাঁদা না পেয়ে স্কুলে হামলা ছিটমহল জাতির জনকের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জাতীয় শোক দিবস জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষার সূচি প্রকাশ ঝিনাইগাতী টেস্ট ড্র ড. গোলাম রহমান রতন পাঞ্জাবের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিহত প্রত্যেক বিভাগে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রধানমন্ত্রী বন্যহাতির তান্ডব বন্যহাতির পায়ে পিষ্ট হয়ে নিহত বাল্যবিয়ের হার ভেঙে গেছে ব্রিজ মতিয়া চৌধুরী মাদারীপুর মির্জা ফখরুলের মেডিকেল রিপোর্ট রিমান্ডে লাশ উদ্ধার শাবলের আঘাতে শিশু খুন শাহ আলম বাবুল শিশু রাহাত হত্যা শেরপুর শেরপুরে অপহরণ শেরপুরে বন্যা শেরপুরের নবাগত জেলা প্রশাসক শ্যামলবাংলা২৪ডটকম’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী সংঘর্ষে নিহত ৫ স্কুলছাত্র রাহাত হত্যা স্কুলছাত্রী অপহরণ হাতি বন্ধু কর্মশালা হুইপ আতিক হুমকি ২ স্কুলছাত্রী হত্যা
error: Content is protected !!