রাত ১:৫৮ | বুধবার | ৮ই জুলাই, ২০২০ ইং | ২৪শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পাঁচ দশকের দ্বারপ্রান্তে আলমগীর

শ্যামলবাংলা ডেস্ক : নায়ক আলমগীর, এক সময়ের দর্শক হৃদয়ে ঝড় তোলা এক অভিনেতা। পুরো নাম মহিউদ্দীন আহমেদ আলমগীর। আগাগোড়াই সিনেমার মানুষ। এ মাধ্যমকে ভালোবেসেই কাটিয়ে দিয়েছেন দীর্ঘ ৪৮ বছর। পাঁচ দশকের দ্বারপ্রান্তে তার সিনেমা ক্যারিয়ার। পেশাদার অভিনেতা হিসেবে যাত্রা শুরুর পর থেকে এখনও পর্যন্ত সিনেমাসহ সাধারণ মানুষের বিপদে-আপদেও পাশে দাঁড়িয়েছেন।
এজন্য কখনও তিনি হয়ে উঠেছেন মহানায়ক, কখনও অভিভাবক, আবার কখনও একজন সুপারস্টার। অথচ বিশেষণগুলো তাকে খুব বেশি পুলকিত করে না। কারণ তিনি বরাবরই একজন অভিনেতা হয়ে থাকতে চেয়েছেন; আছেনও। অভিনয় জীবনের দীর্ঘ এ পথচলা এবং অভিনেতা হিসেবে নিজেকে মূল্যায়ন করতে গিয়ে আলমগীর বলেন, ‘অভিনয় সম্পর্কে মূল্যায়ন করার মতো অভিনেতা আমি নই। অভিনয়ের ব্যাপ্তি এত বিশাল যার শেষ দেখা একজনমে সম্ভব নয়। অনেকেই আমাকে নানা বিশেষণে ভূষিত করেন; কিন্তু আমি সবসময়ই একজন অভিনেতা হওয়ারই চেষ্টা করেছি।

img-add

আমার আজকের অবস্থানের নেপথ্যে অবশ্যই আমার প্রথম সিনেমার পরিচালক যিনি আমাকে আবিষ্কার করেছেন শ্রদ্ধেয় আলমগীর কুমকুম ভাইয়ের কাছে কৃতজ্ঞ। তিনি আমাকে এমনভাবে নায়ক হতে শিখিয়েছেন যেন আমি আকাশে উড়ে না যাই, যে কারণে আমি এখনও মাটিতেই হাঁটি। আমি শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছি গুণী শ্রদ্ধেয় পরিচালক মোস্তফা মেহমুদ, কামাল আহমেদ, সুভাষ দত্ত, খান আতাউর রহমান, চাষী নজরুল ইসলাম, আমজাদ হোসেন, এজে মিন্টু, কাজী হায়াৎ, দেলোয়ার জাহান ঝন্টু, সাইফুল আজম কাশেম, মালেক আফসারীসহ আরও অনেকেই। তারা আমাকে হাতে ধরে শিখেয়েছেন অভিনয়। আমার সৌভাগ্য যে এমন গুণী পরিচালকদের সাহচর্যে থেকে অভিনয় শেখার সুযোগ পেয়েছি।’
কলেজ জীবনে নাটকে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তার পথচলা শুরু হলেও ১৯৭২ সালের ২৪ জুন প্রয়াত বরেণ্য চিত্রপরিচালক আলমগীর কুমকুমের পরিচালনায় ‘আমার জন্মভূমি’ সিনেমায় অভিনয়ের জন্য প্রথম ক্যামেরার সামনে দাঁড়ান আলমগীর। পরবর্তী সময়ে একের পর এক সিনেমায় কাজ করে নিজেকে পরিপূর্ণ করে তোলার চেষ্টা করেন। এ পর্যন্ত আলমগীর ২২৫টিরও বেশি সিনেমায় অভিনয় করেছেন। কামাল আহমেদ পরিচালিত ‘মা ও ছেলে’ সিনেমায় অভিনয়ের জন্য তিনি প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হন। পরবর্তী সময়ে আরও আটবার একই পুরস্কার অর্জন করেন।
অভিনয়ের পাশাপাশি সিনেমা প্রযোজনা ও পরিচালনার অভিজ্ঞতাও আছে তার। তার প্রযোজিত প্রথম সিনেমা ‘ঝুমকা’। প্রথম পরিচালিত সিনেমা ‘নিষ্পাপ’। সর্বশেষ তিনি ‘একটি সিনেমার গল্প’ সিনেমাটি পরিচালনা করেন। এক সময় রাজধানীর গ্রিন রোডে একটি স্কুলে সৈয়দ আব্দুল হাদীর কাছে দু-তিন মাস গানও শিখেছিলেন। মোস্তফা মেহমুদের ‘মনিহার’ সিনেমায় গাজী মাজহারুল আনোয়ারের লেখা ও সত্য সাহার সুর এবং সঙ্গীতে প্রথম প্লে-ব্যাক করেন তিনি। ২০১৮ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে তিনি ‘আজীবন সম্মাননা’য় ভূষিত হন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর

অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» শেরপুরে বৃক্ষরোপণ ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের মাঝে বাইসাইকেল বিতরণ করলেন হুইপ আতিক

» শেরপুরে করোনা পরিস্থিতিতে মাস্ক বিতরণ করছেন ছাত্রলীগ নেতা

» শেরপুরে এবার তৃতীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠির বাসা ভাড়ার টাকা দিলেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান

» করোনা প্রতিরোধে করণীয় শীর্ষক মতবিনিময় সভা ও কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা

» করোনা পরিস্থিতিতে গণমাধ্যমের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ : তথ্যমন্ত্রী

» করোনায় মারা গেলেন ফেনীর সিভিল সার্জন

» এবার কোরবানির পশু পরিবহন রেল

» এবার মাশরাফির স্ত্রীও করোনায় আক্রান্ত

» শ্যামলবাংলা২৪ডটকমে খবর প্রকাশের পর শিকলে বন্দি সেই নারীর দায়িত্ব নিলো জেলা প্রশাসন

» ময়মনসিংহে দরিদ্রদের ঘরে ঘরে শুকনো খাবার সামগ্রী পৌঁছে দিলেন আর্টডক সেনা সদস্যরা

» দেশে করোনায় আরও ৫৫ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩০২৭

» শেরপুরে নানা আয়োজনে যুব মহিলা লীগের ১৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

» এন্ড্রু কিশোরের বর্ণাঢ্য জীবন

» বান্দরবানে দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত ৬

» শেরপুরে পুলিশ-স্বাস্থ্যকর্মীসহ আরও ৪ জন করোনায় আক্রান্ত : মোট আক্রান্ত ২৫৪

সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

  রাত ১:৫৮ | বুধবার | ৮ই জুলাই, ২০২০ ইং | ২৪শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পাঁচ দশকের দ্বারপ্রান্তে আলমগীর

শ্যামলবাংলা ডেস্ক : নায়ক আলমগীর, এক সময়ের দর্শক হৃদয়ে ঝড় তোলা এক অভিনেতা। পুরো নাম মহিউদ্দীন আহমেদ আলমগীর। আগাগোড়াই সিনেমার মানুষ। এ মাধ্যমকে ভালোবেসেই কাটিয়ে দিয়েছেন দীর্ঘ ৪৮ বছর। পাঁচ দশকের দ্বারপ্রান্তে তার সিনেমা ক্যারিয়ার। পেশাদার অভিনেতা হিসেবে যাত্রা শুরুর পর থেকে এখনও পর্যন্ত সিনেমাসহ সাধারণ মানুষের বিপদে-আপদেও পাশে দাঁড়িয়েছেন।
এজন্য কখনও তিনি হয়ে উঠেছেন মহানায়ক, কখনও অভিভাবক, আবার কখনও একজন সুপারস্টার। অথচ বিশেষণগুলো তাকে খুব বেশি পুলকিত করে না। কারণ তিনি বরাবরই একজন অভিনেতা হয়ে থাকতে চেয়েছেন; আছেনও। অভিনয় জীবনের দীর্ঘ এ পথচলা এবং অভিনেতা হিসেবে নিজেকে মূল্যায়ন করতে গিয়ে আলমগীর বলেন, ‘অভিনয় সম্পর্কে মূল্যায়ন করার মতো অভিনেতা আমি নই। অভিনয়ের ব্যাপ্তি এত বিশাল যার শেষ দেখা একজনমে সম্ভব নয়। অনেকেই আমাকে নানা বিশেষণে ভূষিত করেন; কিন্তু আমি সবসময়ই একজন অভিনেতা হওয়ারই চেষ্টা করেছি।

img-add

আমার আজকের অবস্থানের নেপথ্যে অবশ্যই আমার প্রথম সিনেমার পরিচালক যিনি আমাকে আবিষ্কার করেছেন শ্রদ্ধেয় আলমগীর কুমকুম ভাইয়ের কাছে কৃতজ্ঞ। তিনি আমাকে এমনভাবে নায়ক হতে শিখিয়েছেন যেন আমি আকাশে উড়ে না যাই, যে কারণে আমি এখনও মাটিতেই হাঁটি। আমি শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছি গুণী শ্রদ্ধেয় পরিচালক মোস্তফা মেহমুদ, কামাল আহমেদ, সুভাষ দত্ত, খান আতাউর রহমান, চাষী নজরুল ইসলাম, আমজাদ হোসেন, এজে মিন্টু, কাজী হায়াৎ, দেলোয়ার জাহান ঝন্টু, সাইফুল আজম কাশেম, মালেক আফসারীসহ আরও অনেকেই। তারা আমাকে হাতে ধরে শিখেয়েছেন অভিনয়। আমার সৌভাগ্য যে এমন গুণী পরিচালকদের সাহচর্যে থেকে অভিনয় শেখার সুযোগ পেয়েছি।’
কলেজ জীবনে নাটকে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তার পথচলা শুরু হলেও ১৯৭২ সালের ২৪ জুন প্রয়াত বরেণ্য চিত্রপরিচালক আলমগীর কুমকুমের পরিচালনায় ‘আমার জন্মভূমি’ সিনেমায় অভিনয়ের জন্য প্রথম ক্যামেরার সামনে দাঁড়ান আলমগীর। পরবর্তী সময়ে একের পর এক সিনেমায় কাজ করে নিজেকে পরিপূর্ণ করে তোলার চেষ্টা করেন। এ পর্যন্ত আলমগীর ২২৫টিরও বেশি সিনেমায় অভিনয় করেছেন। কামাল আহমেদ পরিচালিত ‘মা ও ছেলে’ সিনেমায় অভিনয়ের জন্য তিনি প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হন। পরবর্তী সময়ে আরও আটবার একই পুরস্কার অর্জন করেন।
অভিনয়ের পাশাপাশি সিনেমা প্রযোজনা ও পরিচালনার অভিজ্ঞতাও আছে তার। তার প্রযোজিত প্রথম সিনেমা ‘ঝুমকা’। প্রথম পরিচালিত সিনেমা ‘নিষ্পাপ’। সর্বশেষ তিনি ‘একটি সিনেমার গল্প’ সিনেমাটি পরিচালনা করেন। এক সময় রাজধানীর গ্রিন রোডে একটি স্কুলে সৈয়দ আব্দুল হাদীর কাছে দু-তিন মাস গানও শিখেছিলেন। মোস্তফা মেহমুদের ‘মনিহার’ সিনেমায় গাজী মাজহারুল আনোয়ারের লেখা ও সত্য সাহার সুর এবং সঙ্গীতে প্রথম প্লে-ব্যাক করেন তিনি। ২০১৮ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে তিনি ‘আজীবন সম্মাননা’য় ভূষিত হন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর

সর্বশেষ খবর



অন্যান্য খবর



সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

error: Content is protected !!