সকাল ৮:০৫ | বুধবার | ২৯শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং | ১৬ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নবীন লেখিকা অরবিয়া তানজীল’র ‘অসমাপ্ত তুমি’

অসমাপ্ত তুমি! (পর্ব১)
অরবিয়া তানজীল
…………………………………………………………………………………………………………………………………………………………………

img-add

কয়েকদিন যাবত প্রচণ্ড ঠাণ্ডা পড়েছে। রোজ একটু দেরিতেই ঘুম ভাঙে। কিন্তু আজ একটু সকালেই ঘুমটা ভেঙেছে। বুয়া এসে তিনবার বলে গেছে কেউ একজন এসেছে, খুব জরুরি দরকার দেখা করবে।বিছনায় শুয়ে চোখ বন্ধ করে হিজল ভাবছিলো, আমার মতো বেকার ঘরবন্ধী মানুষের কাছে এত সকালে কে এলো তার প্রয়োজনীয় কাজ নিয়ে।প্রয়োজন শব্দটা বড্ড লাগামহীন!কখন, কোথায় কার জন্য জরুরী হয়ে উঠে এটা সময় সাপেক্ষ!

বসার ঘরে পা রাখতেই চোখে পরল কালো চাদরে একজন মানুষ জড়সড়ভাবে বসে আছে।ভাবে ভঙ্গিতে মনে হচ্ছিল অপেক্ষা করতে করতে ঘুমিয়ে পড়েছে। বসার ঘরের আরেকটি বিষয় হিজলের কাছে অপরিষ্কার লাগছিলো তা হলো, এই ঘরের বাতাসের সাথে যে গন্ধটা তার নাকে আসছে তা খুব পরিচিতি! লোকটির সামনে গিয়ে দাড়াতেই লোকটির ঘুম ভেঙে গেল !লোকটিকে দেখার সাথে সাথে হিজলের বুকের ভেতরটা চমকে উঠল!

কেমন আছো হিজল?
-হিজল চেষ্টা করছিল উওরটা দেয়ার কিন্তু গলার কাছে এসে বার বার কিছু একটা দলা পাকিয়ে যাচ্ছিল!
আমাকে দেখে তুমি অনেকটা অবাক হয়েছ,হয়তো ভাবছো এতোদিন পর হঠাৎ তোমার সামনে কেন আমি,তাইনা?
–এই সময়টায় হিজল নিজেকে কিছুটা সামলে নিয়েছে।তারপর বলল বসো,কতটা অবাক হয়েছি আমি জানি না তবে আমি জানি তুমি কেন এসেছো!
জানো তুমি!সত্যিই জানো?
–অনুমান করতে পারছি।শেষ যেদিন তোমার সাথে আমি দেখা করতে গিয়েছিলাম সেদিন একটা চিঠি তোমার হাতে দিয়ে এসেছিলাম সেখানে লেখা ছিল-

“আমি তোমাকে কতটা ভালোবাসি এখনো, তা আজ আর আমি উপলব্ধি করতে পারি না।তবে তোমাকে আমি ঘৃণা করবো না কখনো!জীবন মানে দ্বিধা।আর দ্বিধা হলো আত্মার মৃত্যু। আর আমি প্রতিনিয়ত এই মৃত্যু বরন করছি।তবুও জীবনে কখনো যদি মনে হয় তুমি একা বা কেউ নেই তোমার পাশে। তুমি একবার হলেও আমার কাছে আসবে।এতকিছুর পরও আমি তোমার পাশে থাকতে চাই!
ইতি
হিজল”
আজ আমি হয়তো একা হিজল।কিন্তু তোমার কাছে এসেছি শুধু তোমাকে একনজর দেখতে।আমার কিছু কথা ছি..!
-বাদ দাও।জীবনে এই প্রান্তে দাড়িয়ে ইচ্ছে করছে না তোমার কথাগুলো শুনতে।তবে আমাদের চলার পথটা এক হতে পারতো!আমি জীবনের কাছে অনেক পেয়েছি কিন্তু সেই পাওয়ায় আজও আমি তোমাকে খুঁজি!
তোমার কি সেই মেয়েটার গল্পটা মনে পড়ে…হিজল মাটির দিকে তাকিয়ে একনাগাড়ে কথা গুলো বলছিলো কারন সে কিছু একটা লুকাতে
চাচ্ছিলো!ঐ মেয়েটার যার বিয়ে হওয়ার কথা ছিলো তার ভালোবাসার মানুষের সাথে কিন্তু তার মানুষটা আসেনি! বিচ্ছেদের যন্ত্রণা অসহনীয়!সে বেনারসি গায়ে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিলো!সেই ঘটনার পর আরও কয়েকটা শীত পাড় হয়ে যায় তারপর একদিন সেই চিঠিটা যায় তোমার কাছে।তারপর আরও কয়েকটা শীত চলে গিয়েছে এখন তুমি সেই মেয়েটির সামনে!তোমার জীবনে আমি ছিলাম আধার ঘেরা নিশিকন্যা,তাইতো রোজ আলোর সন্ধানে ঘুরে বেড়াতে।
নিয়ম করে ডায়েরীর পুরোনো পাতাগুলো ছিঁড়ে ফেলি, যে মানুষগুলো নেই তাদের নিয়ে লেখা পাতাগুলো কেন রাখবো। শুধু তোমার বেলায় নিয়মের বাড়াবাড়ি ছিল!

হিজল,তোমাকে আমার কেন জানি খুব দেখতে ইচ্ছে হয়, আমি কি পারি কখনো কখনো আসতে তোমার কাছে?
-আমি জানি তুমি আর কখনো আসবে না আমার কাছে।আজকের আসাটাও ছিল খানিকটা ঝোকের মাথায়, সেদিকার সম্পর্কটার মতো! আমার তোমার উপর কোন অভিযোগ নেই, না কোন অভিমান!এটাই জানার ছিল তাইনা।
হুম,তুমি ভালো থেকো হিজল!আমি যাই।
-আজকে আমাকে ভালো রাখার কেউ আছে আর তোমার কেউ নেই, এটাই কষ্ট রয়ে যাবে বা আপসোস।জীবন মুদ্রার এপিট ওপিট।কোন হিসেব বাকি রাখেনি।চেনা পথের মাঝে অনেক খুজে বেরিয়েছি তোমাকে মনে মনে, একসময় এই তুমিই ছিলে আমার সবচেয়ে কাছের আপন। আর আজ চাইলেও তোমায় ছুঁয়ে দেখতে পারছিনা!জীবন কত কঠিন তাই না, নাকি আমরা জীবনকে জটিল করে তুলি!কে জানে।

হিজল দাড়িয়ে অঝরে কাঁদছে। একা ঘরটা জুড়ে শূন্যতা,একসময় তার জীবনটা জুড়েও রেখে গিয়েছিল শূন্যতা।হিজলের ইচ্ছে হচ্ছিল আরেকটাবার তার গালে হাত রেখে বলতে নিজের যত্ম নিও।এখন চাইলেও সে অনেক কিছু পারেনা।কারন,জীবনের এক সময়কার সবচেয়ে নিরাপদ আর বিশ্বস্ত মানুষটি আজ তার চোখে বিশ্বাসঘাতক!

অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» আইপিএলেও চালু হচ্ছে নতুন নিয়ম

» নকলায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্যের নির্মাণ কাজ উদ্বোধন

» ‘চিরঞ্জীব মুজিব’ চলচ্চিত্রে বঙ্গমাতার চরিত্রে পূর্ণিমা

» পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট দলে ফিরছেন তামিম-তাসকিন

» বিএনপি নেতাদের কাছে ভোট চাইলেন আতিকুল

» আগামী বছরের জুনে পদ্মা সেতু এবং ডিসেম্বরে মেট্রোরেল উদ্বোধন : কাদের 

» গণমাধ্যমকে তরুন প্রজন্মের জন্য আস্থার জায়গা তৈরি করতে হবে : তথ্যমন্ত্রী

» শ্রীবরদীতে ইটভাটায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে অর্ধ লক্ষ টাকা জরিমানা

» ময়মনসিংহে পপুলার ও প্রান্তসহ ৭ ডায়াগনোস্টিককে সাড়ে ২৫ লাখ টাকা জরিমানা

» ‘অংশীদারিত্ব’ এগিয়ে নিতে মার্কিন রাষ্ট্রদূত সুন্দরবনে

» শুরু হচ্ছে ‘মিস আর্থ বাংলাদেশ’

» করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে যা করবেন

» ১৬ বছরে পদার্পণ বাংলা উইকিপিডিয়া

» মইনুল হোসেন প্লাবন’র কবিতা ‌’মনুষ্যত্বের জয় হোক’

» চীন-কোরিয়া থেকে আগতদের পর্যবেক্ষণে রাখবে সরকার : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

  সকাল ৮:০৫ | বুধবার | ২৯শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং | ১৬ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নবীন লেখিকা অরবিয়া তানজীল’র ‘অসমাপ্ত তুমি’

অসমাপ্ত তুমি! (পর্ব১)
অরবিয়া তানজীল
…………………………………………………………………………………………………………………………………………………………………

img-add

কয়েকদিন যাবত প্রচণ্ড ঠাণ্ডা পড়েছে। রোজ একটু দেরিতেই ঘুম ভাঙে। কিন্তু আজ একটু সকালেই ঘুমটা ভেঙেছে। বুয়া এসে তিনবার বলে গেছে কেউ একজন এসেছে, খুব জরুরি দরকার দেখা করবে।বিছনায় শুয়ে চোখ বন্ধ করে হিজল ভাবছিলো, আমার মতো বেকার ঘরবন্ধী মানুষের কাছে এত সকালে কে এলো তার প্রয়োজনীয় কাজ নিয়ে।প্রয়োজন শব্দটা বড্ড লাগামহীন!কখন, কোথায় কার জন্য জরুরী হয়ে উঠে এটা সময় সাপেক্ষ!

বসার ঘরে পা রাখতেই চোখে পরল কালো চাদরে একজন মানুষ জড়সড়ভাবে বসে আছে।ভাবে ভঙ্গিতে মনে হচ্ছিল অপেক্ষা করতে করতে ঘুমিয়ে পড়েছে। বসার ঘরের আরেকটি বিষয় হিজলের কাছে অপরিষ্কার লাগছিলো তা হলো, এই ঘরের বাতাসের সাথে যে গন্ধটা তার নাকে আসছে তা খুব পরিচিতি! লোকটির সামনে গিয়ে দাড়াতেই লোকটির ঘুম ভেঙে গেল !লোকটিকে দেখার সাথে সাথে হিজলের বুকের ভেতরটা চমকে উঠল!

কেমন আছো হিজল?
-হিজল চেষ্টা করছিল উওরটা দেয়ার কিন্তু গলার কাছে এসে বার বার কিছু একটা দলা পাকিয়ে যাচ্ছিল!
আমাকে দেখে তুমি অনেকটা অবাক হয়েছ,হয়তো ভাবছো এতোদিন পর হঠাৎ তোমার সামনে কেন আমি,তাইনা?
–এই সময়টায় হিজল নিজেকে কিছুটা সামলে নিয়েছে।তারপর বলল বসো,কতটা অবাক হয়েছি আমি জানি না তবে আমি জানি তুমি কেন এসেছো!
জানো তুমি!সত্যিই জানো?
–অনুমান করতে পারছি।শেষ যেদিন তোমার সাথে আমি দেখা করতে গিয়েছিলাম সেদিন একটা চিঠি তোমার হাতে দিয়ে এসেছিলাম সেখানে লেখা ছিল-

“আমি তোমাকে কতটা ভালোবাসি এখনো, তা আজ আর আমি উপলব্ধি করতে পারি না।তবে তোমাকে আমি ঘৃণা করবো না কখনো!জীবন মানে দ্বিধা।আর দ্বিধা হলো আত্মার মৃত্যু। আর আমি প্রতিনিয়ত এই মৃত্যু বরন করছি।তবুও জীবনে কখনো যদি মনে হয় তুমি একা বা কেউ নেই তোমার পাশে। তুমি একবার হলেও আমার কাছে আসবে।এতকিছুর পরও আমি তোমার পাশে থাকতে চাই!
ইতি
হিজল”
আজ আমি হয়তো একা হিজল।কিন্তু তোমার কাছে এসেছি শুধু তোমাকে একনজর দেখতে।আমার কিছু কথা ছি..!
-বাদ দাও।জীবনে এই প্রান্তে দাড়িয়ে ইচ্ছে করছে না তোমার কথাগুলো শুনতে।তবে আমাদের চলার পথটা এক হতে পারতো!আমি জীবনের কাছে অনেক পেয়েছি কিন্তু সেই পাওয়ায় আজও আমি তোমাকে খুঁজি!
তোমার কি সেই মেয়েটার গল্পটা মনে পড়ে…হিজল মাটির দিকে তাকিয়ে একনাগাড়ে কথা গুলো বলছিলো কারন সে কিছু একটা লুকাতে
চাচ্ছিলো!ঐ মেয়েটার যার বিয়ে হওয়ার কথা ছিলো তার ভালোবাসার মানুষের সাথে কিন্তু তার মানুষটা আসেনি! বিচ্ছেদের যন্ত্রণা অসহনীয়!সে বেনারসি গায়ে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিলো!সেই ঘটনার পর আরও কয়েকটা শীত পাড় হয়ে যায় তারপর একদিন সেই চিঠিটা যায় তোমার কাছে।তারপর আরও কয়েকটা শীত চলে গিয়েছে এখন তুমি সেই মেয়েটির সামনে!তোমার জীবনে আমি ছিলাম আধার ঘেরা নিশিকন্যা,তাইতো রোজ আলোর সন্ধানে ঘুরে বেড়াতে।
নিয়ম করে ডায়েরীর পুরোনো পাতাগুলো ছিঁড়ে ফেলি, যে মানুষগুলো নেই তাদের নিয়ে লেখা পাতাগুলো কেন রাখবো। শুধু তোমার বেলায় নিয়মের বাড়াবাড়ি ছিল!

হিজল,তোমাকে আমার কেন জানি খুব দেখতে ইচ্ছে হয়, আমি কি পারি কখনো কখনো আসতে তোমার কাছে?
-আমি জানি তুমি আর কখনো আসবে না আমার কাছে।আজকের আসাটাও ছিল খানিকটা ঝোকের মাথায়, সেদিকার সম্পর্কটার মতো! আমার তোমার উপর কোন অভিযোগ নেই, না কোন অভিমান!এটাই জানার ছিল তাইনা।
হুম,তুমি ভালো থেকো হিজল!আমি যাই।
-আজকে আমাকে ভালো রাখার কেউ আছে আর তোমার কেউ নেই, এটাই কষ্ট রয়ে যাবে বা আপসোস।জীবন মুদ্রার এপিট ওপিট।কোন হিসেব বাকি রাখেনি।চেনা পথের মাঝে অনেক খুজে বেরিয়েছি তোমাকে মনে মনে, একসময় এই তুমিই ছিলে আমার সবচেয়ে কাছের আপন। আর আজ চাইলেও তোমায় ছুঁয়ে দেখতে পারছিনা!জীবন কত কঠিন তাই না, নাকি আমরা জীবনকে জটিল করে তুলি!কে জানে।

হিজল দাড়িয়ে অঝরে কাঁদছে। একা ঘরটা জুড়ে শূন্যতা,একসময় তার জীবনটা জুড়েও রেখে গিয়েছিল শূন্যতা।হিজলের ইচ্ছে হচ্ছিল আরেকটাবার তার গালে হাত রেখে বলতে নিজের যত্ম নিও।এখন চাইলেও সে অনেক কিছু পারেনা।কারন,জীবনের এক সময়কার সবচেয়ে নিরাপদ আর বিশ্বস্ত মানুষটি আজ তার চোখে বিশ্বাসঘাতক!

সর্বশেষ খবর



অন্যান্য খবর



সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

error: Content is protected !!