প্রকাশকাল: 24 এপ্রিল, 2019

ত্রিদেশীয় সিরিজ নিয়ে তামিমের ভাবনা

শ্যামলবাংলা ডেস্ক : আয়ারল্যান্ড সফর এবং ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ দিয়ে ব্যস্ত সূচির অপেক্ষায় বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। দুই টুর্নামেন্ট দিয়ে মাস দেড়েকের মধ্যে বাংলাদেশ দলকে ১৩-১৪টি ম্যাচ খেলতে হবে। ফিট থেকে সবগুলো ম্যাচ খেলা তাই কঠিন। কিন্তু বিশ্বকাপের মতো আসরে দলের মূল ক্রিকেটারদের বিশ্রাম দেওয়া সম্ভব নয়। তামিম তাই আয়ারল্যান্ড সফরে ক্রিকেটারদের বিশ্রাম দিয়ে খেলানোর পক্ষে।
বাংলাদেশের বাঁ-হাতি ওপেনার বলেন, ‘আয়ারল্যান্ড সফরে দরকার পড়লেই ক্রিকেটারদের বিশ্রাম দিতে হবে। আমরা জানি যে, বিশ্বকাপে বিশ্রাম দিয়ে খেলানো সম্ভব নয়। আয়ারল্যান্ডে আমরা পাঁচটির মতো ম্যাচ খেলবো। প্রথম দুটি ম্যাচের পরে যদি কাউকে বিশ্রাম দেওয়া হয় আমার মতে সেটা ভালো হবে।’
আয়ারল্যান্ডের মাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ শুরু হবে আগামী ৫ মে থেকে। বাংলাদেশ প্রথম ম্যাচ খেলবে ৭ মে। ফাইনাল ম্যাচ হবে ১৭ মে। এরপর ইংল্যান্ডে যাবে বাংলাদেশ। সেখানে বিশ্বকাপের আগে আছে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ। ত্রিদেশীয় সিরিজের ম্যাচসহ তাই দলের পরিশ্রম হবে বেশ। তবে আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের ভালো দিকও আছে।
তামিম এ নিয়ে বলেন, ‘ত্রিদেশীয় সিরিজের নেতিবাচক দিক হলো, দেড় মাসের মধ্যে আমাদের ১৩-১৪টি ম্যাচ খেলতে হবে। এর বাইরে আমি কোন সমস্যা দেখি না।’ এছাড়া বাংলাদেশ এই সমস্ত কন্ডিশনে খুব বেশি ম্যাচ খেলে না। এটা ইতিবাচক দিক বলে উল্লেখ করেন তামিম। আয়ারল্যান্ড সফরে কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার সুযোগ দেখছেন তামিম।
দেশ সেরা ব্যাটসম্যান তামিম বলেন, ‘আমার মতে, কন্ডিশন বড় চ্যালেঞ্জ। শেষবার আয়ারল্যান্ডের উইকেট কঠিন ছিল। ত্রিদেশীয় সিরিজ এবং বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচ তাই আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আয়ারল্যান্ডে ফর্মে ফেরা ওয়েস্ট ইন্ডিজ খেলবে। আমাদের ভালো শুরু করা তাই গুরুত্বপূর্ণ।’
ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের উইকেট ফ্লাট হবার সম্ভাবনাই বেশি। রান উঠবে অনেকে। যারা শুরুতে বড় রান পাবে কিংবা বড় রান তাড়া করতে সক্ষম ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে তাদের ভালো করার সম্ভাবনা বেশি। বাংলাদেশের বড় রান করা এবং রান তাড়া করার সামর্থ্যে ঘাটতি আছে। বিষয়টি মানছেন তামিমও।
তার ভাষ্যে, ‘আমরা ৩৪০-৩৫০ রান তাড়া করে অভ্যস্ত নই। রেকর্ড দেখলে বোঝা যাবে, আমরা তিনশ’র বেশি রানা তাড়া করে খুব বেশি ম্যাচ জিতিনি। এর কারণ আমরা বড় রান হওয়া উইকেটে খেলি না। সেজন্য বিশ্বকাপে পরিকল্পনা করে খেলতে হবে। আমি আশা করছি পরিকল্পনা অনুযায়ী, আমরা বড় রান করতে পারবো।’ ইংল্যান্ডে অবশ্য বাংলাদেশের রেকর্ড ভালো না। তবে ২০১৫ অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠা এবং ইংল্যান্ডে ২০১৭ চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে নকআউট পর্বে যাওয়া আশা দেখাচ্ছে তামিমদের।

আপনার মতামত দিন

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

error: Content is protected !!