বিকাল ৪:৩৯ | রবিবার | ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং | ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

তেঁতুলিয়া থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘা

শ্যামলবাংলা ডেস্ক : দেশের উত্তরের জেলা পঞ্চগড়। আর সবচেয়ে উত্তরের উপজেলা তেঁতুলিয়া। বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর এখানেই অবস্থিত। অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জনপদের নাম পঞ্চগড়। শীতপ্রবণ এ জেলার তেঁতুলিয়া থেকে দেখা যায় বিশ্বের সর্বোচ্চ পর্বতমালা হিমালয় ও কাঞ্চনজঙ্ঘা।

img-add

ওপারে হিমালয় পর্বতমালা :

চোখের কাছে ভেসে থাকা হিমালয় পর্বত ও কাঞ্চনজঙ্ঘার দুর্লভ মায়াবী দৃশ্য! বাংলাদেশ আর ভারত সীমান্তের বুক চিরে বয়ে যাচ্ছে মহানন্দা নদী। এ তীর থেকে দেখা যায় এ অপূর্ব দৃশ্য। কয়েক বছর থেকে তেঁতুলিয়ার বিভিন্ন এলাকা থেকে খালি চোখেই দেখা যাচ্ছে হিমালয় পর্বত ও কাঞ্চনজঙ্ঘার নয়নাভিরাম দৃশ্য। সেপ্টেম্বর থেকে নভেম্বর মাস পর্যন্ত শীতের মেঘমুক্ত নীলাকাশে ভেসে ওঠে তুষার শুভ্র হিমালয় পর্বত ও কাঞ্চনজঙ্ঘা। অক্টোবর আর নভেম্বরে মনোরম দৃশ্য তৈরি হয় হিমালয় আর কাঞ্চনজঙ্ঘায়। শীতকাল জুড়েও আবছা আবছা দেখা যায় এ অসাধারণ দৃশ্য দেশের সীমান্ত থেকেই।

বাংলাবান্ধা থেকে নেপালের দুরত্ব মাত্র ৬১ কিলোমিটার, এভারেস্ট শৃঙ্গ ৭৫ কিলোমিটার, ভুটান ৬৪ কিলোমিটার, চীন ২০০ কিলোমিটার, ভারতের দার্জিলিং ৫৮ কিলোমিটার ও শিলিগুড়ি ৮ কিলোমিটার আর কাঞ্চনজঙ্ঘার দুরত্ব মাত্র ১১ কিলোমিটার।

দিনের আলো শেষে ভারত সীমান্তের কাঁটা তার ঘেঁষে জ্বলে ওঠে ভারতের সার্চলাইটের আলো। আর ওপারের অদূরের শিলিগুড়ির নিয়নবাতি জ্বলজ্বল করে। এপারে আমরা। মাঝখানে ঐতিহাসিক মহানন্দা নদী কুলকুল করে বয়ে চলে। কী মায়াবী দৃশ্য! আর জোছনা রাত হলে কবি না হলেও কবি হয়ে যেতে হবে! বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরে ইমিগ্রেশন সুবিধা চালু হওয়ায় প্রতিদিনই তেঁতুলিয়ায় দেশি-বিদেশি পর্যটক ও ভ্রমণপিপাসু প্রকৃতিপ্রেমীদের ভিড় বাড়ছে। দার্জিলিং না গিয়েই হিমালয় আর কাঞ্চনজঙ্ঘার অপূর্ব রূপ দেখে মুগ্ধ হচ্ছে! তেঁতুলিয়া যেতে যেতে অর্গানিক বা সমতল ভূমির চা বাগান পর্যটকদের মুগ্ধ করবেই। একেবারেই বাংলাদেশের রাস্তা ঘেঁষে ভারতীয় চা বাগানগুলো যেন সবুজের হাতছানি। যেন থরে থরে সবুজ বিছানো। রাতের কৃত্রিম আলোয় চা বাগানগুলো সবুজ সবুজ খেলা করে। অলি-ভ্রমর গুনগুন করে মুগ্ধ করবেই আপনাকে। গুনগুন করে গান গেয়ে যাবেন- ‘ এ পথ যদি শেষ না হয় তবে কেমন হতো তুমি বল তো…’

কীভাবে যাবেন :

ঢাকা থেকে পঞ্চগড় কিংবা তেঁতুলিয়া অথবা বাংলাবান্ধায় সরাসরি দূরপাল্লার কোচ (দিবারাত্রি) যাতায়াত করে। ঢাকা থেকে হানিফ এন্টারপ্রাইজ, কেবি এন্টারপ্রাইজ, এবি এন্টারপ্রাইজ, বিআরটিসি কোচ সার্ভিসের মাধ্যমে আপনি সহজেই তেঁতুলিয়া আসতে পারেন। যাত্রাপথে সময় ব্যয় হবে ৮ থেকে সাড়ে ৮ ঘণ্টা। খরচ পড়বে জনপ্রতি ৫০০-৬০০ টাকা। ট্রেনেও সরাসরি যাওয়া যাবে। এক্ষেত্রে নীলফামারী/দিনাজপুরগামী নীলসাগর, একতা বা দ্রুতযান এক্সপ্রেসে। নেমে পড়ুন পার্বতীপুর। এখান থেকে অন্য ট্রেনে পঞ্চগড়। পঞ্চগড় থেকে তেঁতুলিয়াগামী অনেক বাস পাবেন।

থাকা ও খাওয়া ;

রাত যাপনের জন্য বেসরকারি কোনো ব্যবস্থা গড়ে না উঠলেও এখানে সরকারি দুটি রেস্ট হাউস আছে। একটি সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীনে সরকারি ডাকবাংলো ও অপরটি জেলা পরিষদ ডাকবাংলো। ডাকবাংলোগুলোতে অবস্থান করতে হলে আপনাকে পঞ্চগড় জেলার সড়ক ও জনপথ বিভাগের অফিস ও জেলা পরিষদ অফিসে সরাসরি যোগাযোগ করে বুকিং নিতে হবে। তেঁতুলিয়া ডাকবাংলো থেকেই দেখতে পারবেন অপরূপ দৃশ্য-দার্জিলিং, শিলিগুড়ি, হিমালয় এভারেস্ট কিংবা কাঞ্চনজঙ্ঘার। এছাড়া পঞ্চগড়ে অনেক হোটেল পাবেন থাকার জন্য। আর দেরি না করে চলুন আমরাও বেরিয়ে আসি উত্তরের জেলা থেকে।

অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» দুই সিটি মেয়র ও কাউন্সিলরদের শপথ ২৭ ফেব্রুয়ারি

» কুর্মিটোলায় পথচারীদের ওপর প্রাইভেটকার, আহত ১৪

» খালেদার জামিন শুনানি বৃহস্পতিবার পর্যন্ত মুলতবি

» শ্রীবরদীতে শেষ হলো গারো ব্যাপ্টিস্ট কনভেনশনের ৪ দিনব্যাপী সভা

» ‘বিভিন্ন দেশে কর দিতে প্রস্তুত ফেসবুক’

» মেসির অনবদ্য নৈপুণ্যে শীর্ষে ফিরেলা বার্সা; রিয়ালের হার

» চীনের বাইরেও দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে করোনা, বাড়ছে আতঙ্ক

» ফের ভেঙ্গে পড়লো ভারতীয় যুদ্ধবিমান

» কারিগরি ও পেশাগত জ্ঞান অর্জন করতে সেনা সদস্যদের রাষ্ট্রপতির আহ্বান

» বিএনপি গণমানুষের রাজনীতি করতে ব্যর্থ : তথ্যমন্ত্রী

» বইপ্রেমী-লেখকদের পদভারে মুখরিত শেরপুরের ডিসি উদ্যান

» মুজিববর্ষে আসছে স্বর্ণ ও রৌপ্য মুদ্রা, সঙ্গে ২শ টাকার নোট

» শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ সমৃদ্ধ অর্থনীতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে : অর্থমন্ত্রী

» শেরপুর শহীদ স্মৃতিস্তম্ভের সুরক্ষার ব্যবস্থা করা হোক ॥ মানিক দত্ত

» ম্যাচের সেঞ্চুরি পূর্ণ করল বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে

সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

  বিকাল ৪:৩৯ | রবিবার | ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং | ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

তেঁতুলিয়া থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘা

শ্যামলবাংলা ডেস্ক : দেশের উত্তরের জেলা পঞ্চগড়। আর সবচেয়ে উত্তরের উপজেলা তেঁতুলিয়া। বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর এখানেই অবস্থিত। অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জনপদের নাম পঞ্চগড়। শীতপ্রবণ এ জেলার তেঁতুলিয়া থেকে দেখা যায় বিশ্বের সর্বোচ্চ পর্বতমালা হিমালয় ও কাঞ্চনজঙ্ঘা।

img-add

ওপারে হিমালয় পর্বতমালা :

চোখের কাছে ভেসে থাকা হিমালয় পর্বত ও কাঞ্চনজঙ্ঘার দুর্লভ মায়াবী দৃশ্য! বাংলাদেশ আর ভারত সীমান্তের বুক চিরে বয়ে যাচ্ছে মহানন্দা নদী। এ তীর থেকে দেখা যায় এ অপূর্ব দৃশ্য। কয়েক বছর থেকে তেঁতুলিয়ার বিভিন্ন এলাকা থেকে খালি চোখেই দেখা যাচ্ছে হিমালয় পর্বত ও কাঞ্চনজঙ্ঘার নয়নাভিরাম দৃশ্য। সেপ্টেম্বর থেকে নভেম্বর মাস পর্যন্ত শীতের মেঘমুক্ত নীলাকাশে ভেসে ওঠে তুষার শুভ্র হিমালয় পর্বত ও কাঞ্চনজঙ্ঘা। অক্টোবর আর নভেম্বরে মনোরম দৃশ্য তৈরি হয় হিমালয় আর কাঞ্চনজঙ্ঘায়। শীতকাল জুড়েও আবছা আবছা দেখা যায় এ অসাধারণ দৃশ্য দেশের সীমান্ত থেকেই।

বাংলাবান্ধা থেকে নেপালের দুরত্ব মাত্র ৬১ কিলোমিটার, এভারেস্ট শৃঙ্গ ৭৫ কিলোমিটার, ভুটান ৬৪ কিলোমিটার, চীন ২০০ কিলোমিটার, ভারতের দার্জিলিং ৫৮ কিলোমিটার ও শিলিগুড়ি ৮ কিলোমিটার আর কাঞ্চনজঙ্ঘার দুরত্ব মাত্র ১১ কিলোমিটার।

দিনের আলো শেষে ভারত সীমান্তের কাঁটা তার ঘেঁষে জ্বলে ওঠে ভারতের সার্চলাইটের আলো। আর ওপারের অদূরের শিলিগুড়ির নিয়নবাতি জ্বলজ্বল করে। এপারে আমরা। মাঝখানে ঐতিহাসিক মহানন্দা নদী কুলকুল করে বয়ে চলে। কী মায়াবী দৃশ্য! আর জোছনা রাত হলে কবি না হলেও কবি হয়ে যেতে হবে! বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরে ইমিগ্রেশন সুবিধা চালু হওয়ায় প্রতিদিনই তেঁতুলিয়ায় দেশি-বিদেশি পর্যটক ও ভ্রমণপিপাসু প্রকৃতিপ্রেমীদের ভিড় বাড়ছে। দার্জিলিং না গিয়েই হিমালয় আর কাঞ্চনজঙ্ঘার অপূর্ব রূপ দেখে মুগ্ধ হচ্ছে! তেঁতুলিয়া যেতে যেতে অর্গানিক বা সমতল ভূমির চা বাগান পর্যটকদের মুগ্ধ করবেই। একেবারেই বাংলাদেশের রাস্তা ঘেঁষে ভারতীয় চা বাগানগুলো যেন সবুজের হাতছানি। যেন থরে থরে সবুজ বিছানো। রাতের কৃত্রিম আলোয় চা বাগানগুলো সবুজ সবুজ খেলা করে। অলি-ভ্রমর গুনগুন করে মুগ্ধ করবেই আপনাকে। গুনগুন করে গান গেয়ে যাবেন- ‘ এ পথ যদি শেষ না হয় তবে কেমন হতো তুমি বল তো…’

কীভাবে যাবেন :

ঢাকা থেকে পঞ্চগড় কিংবা তেঁতুলিয়া অথবা বাংলাবান্ধায় সরাসরি দূরপাল্লার কোচ (দিবারাত্রি) যাতায়াত করে। ঢাকা থেকে হানিফ এন্টারপ্রাইজ, কেবি এন্টারপ্রাইজ, এবি এন্টারপ্রাইজ, বিআরটিসি কোচ সার্ভিসের মাধ্যমে আপনি সহজেই তেঁতুলিয়া আসতে পারেন। যাত্রাপথে সময় ব্যয় হবে ৮ থেকে সাড়ে ৮ ঘণ্টা। খরচ পড়বে জনপ্রতি ৫০০-৬০০ টাকা। ট্রেনেও সরাসরি যাওয়া যাবে। এক্ষেত্রে নীলফামারী/দিনাজপুরগামী নীলসাগর, একতা বা দ্রুতযান এক্সপ্রেসে। নেমে পড়ুন পার্বতীপুর। এখান থেকে অন্য ট্রেনে পঞ্চগড়। পঞ্চগড় থেকে তেঁতুলিয়াগামী অনেক বাস পাবেন।

থাকা ও খাওয়া ;

রাত যাপনের জন্য বেসরকারি কোনো ব্যবস্থা গড়ে না উঠলেও এখানে সরকারি দুটি রেস্ট হাউস আছে। একটি সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীনে সরকারি ডাকবাংলো ও অপরটি জেলা পরিষদ ডাকবাংলো। ডাকবাংলোগুলোতে অবস্থান করতে হলে আপনাকে পঞ্চগড় জেলার সড়ক ও জনপথ বিভাগের অফিস ও জেলা পরিষদ অফিসে সরাসরি যোগাযোগ করে বুকিং নিতে হবে। তেঁতুলিয়া ডাকবাংলো থেকেই দেখতে পারবেন অপরূপ দৃশ্য-দার্জিলিং, শিলিগুড়ি, হিমালয় এভারেস্ট কিংবা কাঞ্চনজঙ্ঘার। এছাড়া পঞ্চগড়ে অনেক হোটেল পাবেন থাকার জন্য। আর দেরি না করে চলুন আমরাও বেরিয়ে আসি উত্তরের জেলা থেকে।

সর্বশেষ খবর



অন্যান্য খবর



সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

error: Content is protected !!