প্রকাশকাল: 20 মার্চ, 2018

তনু হত্যার ২ বছর: এখনো শনাক্ত হয়নি ঘাতকরা

শ্যামলবাংলা ডেস্ক : আজ ২০ মার্চ কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের ইতিহাস বিভাগের ছাত্রী ও নাট্যকর্মী সোহাগী জাহান তনু হত্যা মামলার ২ বছর পূর্ণ হলো। ‘মেয়ের ছবি এবং মাঝে মধ্যে গ্রামের বাড়িতে গিয়ে তার কবর দেখেই ২টি বছর পাড় করেছি, বার বার সিআইডির অফিসার ন্যায় বিচারের আশ্বাস দিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু বিচার মনে হয় পাবো না। মেয়ের শোকে তনুর বাবা ৩ মাস অফিসে যেতে পারছে না, বিছানায় পড়ে আছে।’
২ বছরেও মেয়ে হত্যার বিচার না পাওয়ায় ক্ষোভ ও হতাশা প্রকাশ করেন তনুর মা আনেয়ারা বেগম।

দীর্ঘ ২ বছরেও তনুর খুনিরা শনাক্ত কিংবা মামলার অগ্রগতি কি তাও জানে না তনুর পরিবার। এ নিয়ে ক্ষুব্ধ তনুর পরিবার, স্বজন এবং সচেতন মহল। মামলার তদন্ত সংস্থা সিআইডি এরই মধ্যে দফায় দফায় অনেককে জিজ্ঞাসাবাদ করলেও মামলার অগ্রগতির বিষয়ে পরিবার কিংবা মিডিয়ায় এ নিয়ে কোনো বক্তব্য দিতে রাজী হননি সিআইডি।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ২০ মার্চ সন্ধ্যায় কুমিল্লা সেনানিবাসের ভেতরে একটি বাসায় টিউশনি করতে গিয়ে আর বাসায় ফিরেনি তনু। পরে অনেক খোঁজাখুঁজি করে রাতে বাসার অদূরে সেনানিবাসের ভেতর একটি জঙ্গলে তনুর মরদেহ পায় স্বজনরা। পর দিন তার বাবা কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের অফিস সহায়ক ইয়ার হোসেন বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে কোতয়ালী মডেল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। তার মরদেহ দাফন করা হয় জেলার বাঙ্গরা থানাধীন মির্জাপুর গ্রামে।

ওই ঘটনায় কুমিল্লাসহ সারাব্যাপী বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করে প্রতিবাদী জনতা, ছাত্র সমাজ ও বিভিন্ন সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক সংগঠন। থানা পুলিশ ও ডিবির পর ২০১৬ সালের ১ এপ্রিল থেকে মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব পায় সিআইডি কুমিল্লা। ঢাকা থেকে একাধিকার কুমিল্লায় ছুটে আসেন সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার আবদুল কাহ্হার আখন্দসহ পুলিশ, র্যাব, সিআইডিসহ একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার পদস্থ কর্মকর্তরা। কিন্তু এখনো ফল শূণ্য।

আপনার মতামত দিন

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

error: Content is protected !!