রাত ২:৩৫ | বৃহস্পতিবার | ১২ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে শ্রীবরদীর ১৫ গ্রাম প্লাবিত

শ্রীবরদী (শেরপুর) প্রতিনিধি ॥ ক’দিন ধরে টানা বর্ষণ ও ভারত থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের ১৫টি গ্রামের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। ১৪ জুলাই রবিবার রাত থেকে প্রবল বর্ষণের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে কমপক্ষে ৪ হাজার পরিবার। প্লাবিত গ্রামগুলোর কাঁচা ঘর-বাড়ি, রাস্তাঘাট, রোপা আমন ধানের বীজতলা, সবজি, পুকুরের মাছ পানিতে তলিয়ে গেছে। আবহাওয়া অপরিবর্তিত থাকলে বন্যা পরিস্থিতি আরও অবনতি ঘটবে বলে আশংকা করছেন স্থানীয়রা।
জানা যায়, গত এক সপ্তাহের যাবত চলছে থেমে থেমে প্রবল বর্ষণ। সেই সাথে দফায় দফায় পাহাড়ি ঢলে শ্রীবরদীর কাকিলাকুড়া, তাতিহাটি, গোসাইপুর, ভেলুয়া ও খড়িয়াকাজীরচর ইউনিয়নের ১৫টি গ্রামের প্রায় ৪ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। প্লাবিত গ্রামের রাস্তাঘাট, আমন ধানের বীজতলা ও সবজির ক্ষেত পানিতে তলিয়ে গেছে। ভেসে গেছে দুই শতাধিক পুকুরের মাছ। এতে গৃহপালিত পশু নিয়ে পড়েছেন চরম বিপাকে। বাড়িতে পানি উঠায় চুলা জ¦ালাতে পারছেন না প্লাবিত এলাকার মানুষ। শুকনো খাবার খেয়েই দিন পার করছেন তারা।
সরেজমিন গেলে দেখা যায়, উপজেলার কাকিলাকুড়া ইউনিয়নের ভুতনিকান্দা, রানীশিমুল ইউনিয়নের বাঘহাতা, খোশালপুর, তাতিহাটি ইউনিয়নের পুটল, গেরামারা, ঘোনাপাড়া, বকচর, ষাইটকাকড়া, জানকিখিলা, শালামারা, গোসাইপুর ইউনিয়নের গিলাগাছা, গড়গড়িয়া, ভেলুয়া ইউনিয়নের চকবন্দি, কাউনেরচর, ঝগড়ারচর ও খড়িয়াকাজীরচর ইউনিয়নের লংগড়পাড়া, রুপারপাড়া, ঢনঢনিয়াসহ ১৫টি গ্রামের প্রায় ৪ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।
পানিবন্দি এলাকার অনেকে জানান, বন্যার পানিতে তাদের এলাকার রাস্তাঘাট ডুবে গেছে। তলিয়ে গেছে আমন ধানের বীজতলাসহ সবজি ক্ষেত। ভেসে গেছে পুকুরের মাছ। তবে গতকাল রবিবার রাতভর প্রবল বর্ষণে নতুন করে পাহাড়ি ঢলের পানিতে প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে পরিস্থিতি আরও অবনতি হওয়ার আশংকা করছেন বন্যার্ত এলাকার লোকজনেরা। তবে বন্যার পানি দ্রুত নেমে গেলে কৃষি ক্ষেত্রে তেমন ক্ষতি হবে না বলে জানান উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নাজমুল হাছান। তিনি বলেন, কিছু বীজতলা ও সবজি ক্ষেত ডুবে গেছে। বন্যার সার্বিক পরিস্থিতি পরিদর্শন করে ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ বলা যাবে।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সেঁজুতি ধর জানান, বন্যার্ত এলাকার মানুষের খোঁজ-খবর নেয়া হচ্ছে। প্রয়োজনে ত্রাণের ব্যবস্থা করা হবে।

অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» ‘বাল্যবিবাহ মুক্ত ময়মনসিংহ বিভাগ’ বাস্তবায়নে র‌্যালি-মানববন্ধন, গণস্বাক্ষর ও শপথ গ্রহণ

» মিয়ানমার সেনাবাহিনীকে মানবাধিকার লঙ্ঘন বন্ধ করতে হবে : মিলার

» ইমরুল তাণ্ডবে চট্টগ্রামের শুভ সূচনা

» ‘মুজিব বর্ষ’ উদযাপন উপলক্ষে শেরপুরে বাল্যবিবাহ বিরোধী গণস্বাক্ষর ও মানববন্ধন

» শ্রীবরদীতে বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে শপথ নিলেন ১০ সহস্রাধিক মানুষ

» নকলায় বাল্যবিবাহ বিরোধী মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

» বসলো পদ্মা সেতুর ১৮তম স্প্যান, দৃশ্যমান ২ হাজার ৭০০ মিটার

» বঙ্গবন্ধু বিপিএল : উদ্বোধনী ম্যাচে টসে জিতে ফিল্ডিংয়ে চট্টগ্রাম

» ইন্টারকে বিদায় করে দিল মেসিবিহীন বার্সা

» মানবতাবিরোধী অপরাধে টিপু রাজাকারের ফাঁসির রায়

» আন্তর্জাতিক আদালতে মিয়ানমারের বিচার শুরু

» শেরপুরে বিশ্ব মানবাধিকার দিবসে মহিলা পরিষদের মানববন্ধন

» এস কে সিনহার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল

» ৫ম স্থানে থেকে এসএ গেমস শেষ করলো বাংলাদেশ

» নীলা আলম’র পদ্য ‘ক্ষুধিত প্রাণ’

সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

  রাত ২:৩৫ | বৃহস্পতিবার | ১২ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে শ্রীবরদীর ১৫ গ্রাম প্লাবিত

শ্রীবরদী (শেরপুর) প্রতিনিধি ॥ ক’দিন ধরে টানা বর্ষণ ও ভারত থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের ১৫টি গ্রামের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। ১৪ জুলাই রবিবার রাত থেকে প্রবল বর্ষণের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে কমপক্ষে ৪ হাজার পরিবার। প্লাবিত গ্রামগুলোর কাঁচা ঘর-বাড়ি, রাস্তাঘাট, রোপা আমন ধানের বীজতলা, সবজি, পুকুরের মাছ পানিতে তলিয়ে গেছে। আবহাওয়া অপরিবর্তিত থাকলে বন্যা পরিস্থিতি আরও অবনতি ঘটবে বলে আশংকা করছেন স্থানীয়রা।
জানা যায়, গত এক সপ্তাহের যাবত চলছে থেমে থেমে প্রবল বর্ষণ। সেই সাথে দফায় দফায় পাহাড়ি ঢলে শ্রীবরদীর কাকিলাকুড়া, তাতিহাটি, গোসাইপুর, ভেলুয়া ও খড়িয়াকাজীরচর ইউনিয়নের ১৫টি গ্রামের প্রায় ৪ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। প্লাবিত গ্রামের রাস্তাঘাট, আমন ধানের বীজতলা ও সবজির ক্ষেত পানিতে তলিয়ে গেছে। ভেসে গেছে দুই শতাধিক পুকুরের মাছ। এতে গৃহপালিত পশু নিয়ে পড়েছেন চরম বিপাকে। বাড়িতে পানি উঠায় চুলা জ¦ালাতে পারছেন না প্লাবিত এলাকার মানুষ। শুকনো খাবার খেয়েই দিন পার করছেন তারা।
সরেজমিন গেলে দেখা যায়, উপজেলার কাকিলাকুড়া ইউনিয়নের ভুতনিকান্দা, রানীশিমুল ইউনিয়নের বাঘহাতা, খোশালপুর, তাতিহাটি ইউনিয়নের পুটল, গেরামারা, ঘোনাপাড়া, বকচর, ষাইটকাকড়া, জানকিখিলা, শালামারা, গোসাইপুর ইউনিয়নের গিলাগাছা, গড়গড়িয়া, ভেলুয়া ইউনিয়নের চকবন্দি, কাউনেরচর, ঝগড়ারচর ও খড়িয়াকাজীরচর ইউনিয়নের লংগড়পাড়া, রুপারপাড়া, ঢনঢনিয়াসহ ১৫টি গ্রামের প্রায় ৪ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।
পানিবন্দি এলাকার অনেকে জানান, বন্যার পানিতে তাদের এলাকার রাস্তাঘাট ডুবে গেছে। তলিয়ে গেছে আমন ধানের বীজতলাসহ সবজি ক্ষেত। ভেসে গেছে পুকুরের মাছ। তবে গতকাল রবিবার রাতভর প্রবল বর্ষণে নতুন করে পাহাড়ি ঢলের পানিতে প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে পরিস্থিতি আরও অবনতি হওয়ার আশংকা করছেন বন্যার্ত এলাকার লোকজনেরা। তবে বন্যার পানি দ্রুত নেমে গেলে কৃষি ক্ষেত্রে তেমন ক্ষতি হবে না বলে জানান উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নাজমুল হাছান। তিনি বলেন, কিছু বীজতলা ও সবজি ক্ষেত ডুবে গেছে। বন্যার সার্বিক পরিস্থিতি পরিদর্শন করে ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ বলা যাবে।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সেঁজুতি ধর জানান, বন্যার্ত এলাকার মানুষের খোঁজ-খবর নেয়া হচ্ছে। প্রয়োজনে ত্রাণের ব্যবস্থা করা হবে।

সর্বশেষ খবর



অন্যান্য খবর



সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

error: Content is protected !!