সকাল ১০:২০ | বুধবার | ২৭শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ঝিনাইগাতীর মহারশি রাবারড্যামে ৪ হাজার কৃষক পরিবারের ভাগ্য বদল

খোরশেদ আলম, স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইগাতী ॥ শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে মহারশি নদীর রাবারড্যামে প্রায় ৪ হাজার কৃষক পরিবারের ভাগ্যের বদল হয়েছে।

img-add

জানা গেছে, সেচ সংকটের অভাবে যুগ যুগ ধরে এসব কৃষক পরিবারের জমিতে ইরিবোরো চাষ হতো না। এসব জমিতে বছরে এক ফসল ফলাতে হতো তাদের। ফলে এলাকার কৃষকগণ অতিকষ্টে দিনাতিপাত করতেন। কৃষিক্ষেত্রে উন্নয়নের লক্ষ্যে শেখ হাসিনা সরকার জাইকা’র অর্থায়নে মহারশি নদীর শালচুড়া, রাংটিয়া এলাকায় ২০১৬ সালে একটি রাবারড্যাম নির্মাণ করে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডি’র তত্ত্বাবধানে প্রায় ১২কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয় রাবারড্যামটি। ২০১৭ সাল থেকে সেচ সুবিধা ভোগ করতে থাকে কৃষকরা। সেচ সুবিধার আওতাভুক্ত এলাকাগুলো হচ্ছে রাংটিয়া, শালচুড়া, নলকুড়া, ডেফলাই, মরিয়মনগর, ফাকরাবাদ, ভারুয়া, গজারীকুড়া, বনকালি, কুসাইকুড়া ও হলদিগ্রামসহ আশেপাশের আরো প্রায় ১৫টি গ্রাম। রাবারড্যাম নির্মাণ করায় এসব অনাবাদি জমিতে এখন অনায়াসে বোরো চাষ হচ্ছে। বেড়েছে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা। ফলে এসব এলাকার কৃষকদের ভাগ্যের পরিবর্তন হতে শুরু করেছে। রাবারড্যামের সৌন্দর্য উপভোগ করতে বিভিন্ন স্থান থেকে দর্শণার্থীরাও ভীড় করছেন এখানে। এ রাবারড্যামের পানি ব্যবস্থাপনা পরিচালনার জন্যে গঠণ করা হয়েছে একটি সমিতি। এ সমিতির সদস্য সংখ্যা ১২শ’। প্রথম থেকে সেচ সুবিধার আওতায় কৃষক পরিবারের সংখ্যা কম হলেও বর্তমানে তা বৃদ্ধি পেয়ে প্রায় ৪ হাজার কৃষক পরিবার সেচ সুবিধা ভোগ করছেন। সমিতি পরিচালনার লক্ষ্যে প্রতি একর জমি থেকে সেচ মূল্য ২শ’ টাকা নেওয়া হয়। স্বল্পমূল্যে সেচ সুবিধা পাওয়ায় দিনে দিনে কৃষকের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। মহারশি নদীর পানি ব্যবস্থাপনা পরিচালনা কমিটির সাধারন সম্পাদক চিন্তারঞ্জন হাজং বলেন, যুগযুগ ধরে এসব এলাকার জমিগুলোতে সেচ সংকটের কারনে পতিত থাকতো। এখন পুরোদমে চাষাবাদ হচ্ছে। জমিগুলোতে বেড়েছে উৎপাদন লক্ষমাত্রা।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা হুমায়ূন কবীর বলেন, রাবারড্যামের পানি সেচ কাজে ব্যবহার করে প্রায় ৩ হাজার একর জমিতে বোরো চাষ হচ্ছে। সুবিধাভোগী কৃষকের সংখ্যা প্রায় ৪ হাজার। তিনি বলেন, রাবারড্যামের পরিকল্পিতভাবে ড্রেন নির্মাণ করা হলে সুবিধাভোগী কৃষকের সংখ্যা দ্বিগুণ হবে। কৃষিক্ষেত্রে আসবে পরিবর্তন। মহারশি নদীর রাবারড্যাম পানি ব্যবস্থাপনা সমিতির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সামছ উদ্দিন বলেন, সেচ সুবিধা বাড়াতে পরিকল্পিতভাবে ড্রেন নির্মাণ, রাস্তা নির্মাণের দাবী জানানো হয়েছে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী সামছ উদ্দিন আহমেদ বলেন, কৃষকদের সেচ সুবিধার স্বার্থে মাটির নিচ দিয়ে ড্রেন নির্মাণ ও রাবারড্যামটির চারপাশ আরো সৌন্দর্যবর্ধন করে পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে বেশকিছু প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। ২০২১ সালের মধ্যেই তা বাস্তবায়নের প্রস্তুতি রয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
এ সংক্রান্ত আরও খবর

অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» শেরপুর পৌরসভা নির্বাচনে শেষ লড়াইয়ে রয়ে গেলেন ৭ জন

» প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি পেলেই যে কোনো দিন এইচএসসির ফল প্রকাশ

» নকলা পৌর নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছেন এক ভিক্ষুক!

» প্রাথমিকের ঝড়ে পড়া শিশুদের শিক্ষার সুবর্ণ সুযোগ

» শেরপুরে জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ

» শেরপুরে গরু হৃষ্টপুষ্টকরণ জনসচেতনতামুলক সেমিনার

» ময়মনসিংহ বিভাগীয় নারী সাংবাদিক ফোরামের মিমি সভাপতি, সম্পাদক নূরজাহান

» ফিটনেসবিহীন গাড়ি ৪ লাখ ৮১ হাজার: সেতুমন্ত্রী

» প্রধানমন্ত্রীর ঘর উপহার পেল শ্রীবরদীর ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর ১০টি অসহায় পরিবার

» প্রধানমন্ত্রীর বাইসাইকেল পেল শ্রীবরদীর ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিক্ষার্থীরা

» শ্রীবরদীতে ওয়ার্ল্ড ভিশনের শিক্ষা উপকরণ পেল শিশুরা

» শেরপুরে এনএসআই’র জেলা কার্যালয়ের অধিগ্রহণকৃত জমির দখল হস্তান্তর ও চেক বিতরণ

» দেশে এলো ভারত থেকে কেনা ৫০ লাখ ডোজ টিকা

» সকালে কলা খাবেন যেসব কারণে

» উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে খান টমেটো

সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

  সকাল ১০:২০ | বুধবার | ২৭শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ঝিনাইগাতীর মহারশি রাবারড্যামে ৪ হাজার কৃষক পরিবারের ভাগ্য বদল

খোরশেদ আলম, স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইগাতী ॥ শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে মহারশি নদীর রাবারড্যামে প্রায় ৪ হাজার কৃষক পরিবারের ভাগ্যের বদল হয়েছে।

img-add

জানা গেছে, সেচ সংকটের অভাবে যুগ যুগ ধরে এসব কৃষক পরিবারের জমিতে ইরিবোরো চাষ হতো না। এসব জমিতে বছরে এক ফসল ফলাতে হতো তাদের। ফলে এলাকার কৃষকগণ অতিকষ্টে দিনাতিপাত করতেন। কৃষিক্ষেত্রে উন্নয়নের লক্ষ্যে শেখ হাসিনা সরকার জাইকা’র অর্থায়নে মহারশি নদীর শালচুড়া, রাংটিয়া এলাকায় ২০১৬ সালে একটি রাবারড্যাম নির্মাণ করে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডি’র তত্ত্বাবধানে প্রায় ১২কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয় রাবারড্যামটি। ২০১৭ সাল থেকে সেচ সুবিধা ভোগ করতে থাকে কৃষকরা। সেচ সুবিধার আওতাভুক্ত এলাকাগুলো হচ্ছে রাংটিয়া, শালচুড়া, নলকুড়া, ডেফলাই, মরিয়মনগর, ফাকরাবাদ, ভারুয়া, গজারীকুড়া, বনকালি, কুসাইকুড়া ও হলদিগ্রামসহ আশেপাশের আরো প্রায় ১৫টি গ্রাম। রাবারড্যাম নির্মাণ করায় এসব অনাবাদি জমিতে এখন অনায়াসে বোরো চাষ হচ্ছে। বেড়েছে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা। ফলে এসব এলাকার কৃষকদের ভাগ্যের পরিবর্তন হতে শুরু করেছে। রাবারড্যামের সৌন্দর্য উপভোগ করতে বিভিন্ন স্থান থেকে দর্শণার্থীরাও ভীড় করছেন এখানে। এ রাবারড্যামের পানি ব্যবস্থাপনা পরিচালনার জন্যে গঠণ করা হয়েছে একটি সমিতি। এ সমিতির সদস্য সংখ্যা ১২শ’। প্রথম থেকে সেচ সুবিধার আওতায় কৃষক পরিবারের সংখ্যা কম হলেও বর্তমানে তা বৃদ্ধি পেয়ে প্রায় ৪ হাজার কৃষক পরিবার সেচ সুবিধা ভোগ করছেন। সমিতি পরিচালনার লক্ষ্যে প্রতি একর জমি থেকে সেচ মূল্য ২শ’ টাকা নেওয়া হয়। স্বল্পমূল্যে সেচ সুবিধা পাওয়ায় দিনে দিনে কৃষকের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। মহারশি নদীর পানি ব্যবস্থাপনা পরিচালনা কমিটির সাধারন সম্পাদক চিন্তারঞ্জন হাজং বলেন, যুগযুগ ধরে এসব এলাকার জমিগুলোতে সেচ সংকটের কারনে পতিত থাকতো। এখন পুরোদমে চাষাবাদ হচ্ছে। জমিগুলোতে বেড়েছে উৎপাদন লক্ষমাত্রা।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা হুমায়ূন কবীর বলেন, রাবারড্যামের পানি সেচ কাজে ব্যবহার করে প্রায় ৩ হাজার একর জমিতে বোরো চাষ হচ্ছে। সুবিধাভোগী কৃষকের সংখ্যা প্রায় ৪ হাজার। তিনি বলেন, রাবারড্যামের পরিকল্পিতভাবে ড্রেন নির্মাণ করা হলে সুবিধাভোগী কৃষকের সংখ্যা দ্বিগুণ হবে। কৃষিক্ষেত্রে আসবে পরিবর্তন। মহারশি নদীর রাবারড্যাম পানি ব্যবস্থাপনা সমিতির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সামছ উদ্দিন বলেন, সেচ সুবিধা বাড়াতে পরিকল্পিতভাবে ড্রেন নির্মাণ, রাস্তা নির্মাণের দাবী জানানো হয়েছে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী সামছ উদ্দিন আহমেদ বলেন, কৃষকদের সেচ সুবিধার স্বার্থে মাটির নিচ দিয়ে ড্রেন নির্মাণ ও রাবারড্যামটির চারপাশ আরো সৌন্দর্যবর্ধন করে পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে বেশকিছু প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। ২০২১ সালের মধ্যেই তা বাস্তবায়নের প্রস্তুতি রয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
এ সংক্রান্ত আরও খবর

সর্বশেষ খবর



অন্যান্য খবর



সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

error: Content is protected !!