সন্ধ্যা ৭:৫১ | সোমবার | ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

জামালপুরে বন্যায় প্রায় ২ লাখ মানুষ পানিবন্দি

জামালপুর প্রতিনিধি : জামালপুরে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। যমুনা নদীর পানি বিপদসীমার ১১২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় জেলার ৪ টি উপজেলায় সবচেয়ে বেশি বন্যা দেখা দিয়েছে। জেলা প্রশাসনের হিসেবমতে, বন্যায় জেলার ৭টি উপজেলায় প্রায় ২ লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। অপরদিকে যমুনা নদীর পানি দ্রুত বাড়তে থাকায় জেলার পুরাতন ব্রহ্মপুত্র, জিঞ্জিরাম, ঝিনাই ও দশানী নদীর পানি বাড়ছে। তবে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি এখনও বিপদসীমার অনেক নিচ দিয়ে প্রবাহিত হলেও ব্রহ্মপুত্র অববাহিকার বিস্তীর্ণ নিচু এলাকায় বন্যা দেখা দিয়েছে। স্থানীয় সূত্র জানায়, যমুনার পানি বিপদসীমার ১১২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় গত ২৪ ঘন্টায় যমুনা নদী তীরের জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জ, ইসলামপুর, মাদারগঞ্জ ও সরিষাবাড়ী উপজেলায় সবচেয়ে বেশি বন্যা দেখা দিয়েছে।
এসব এলাকায় যমুনা নদীর পানি আর গ্রামের পর গ্রাম একাকার হয়ে গেছে। এই উপজেলাগুলোর গ্রামীণ রাস্তা-ঘাট, হাট-বাজার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ফসলি জমি বন্যার পানিতে ডুবে গেছে। এ ছাড়া জেলার মেলান্দহ, বকশীগঞ্জ ও জামালপুর সদর উপজেলার বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের বিস্তীর্ণ নিচু এলাকায় বন্যা দেখা দিয়েছে। জেলার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার চিকাজানী ও চুকাইবাড়ি ইউনিয়ন সম্পূর্ণরূপে বন্যা কবলিত হয়েছে। এ দুটি ইউনিয়নের অন্ততপক্ষে ১০ হাজারের অধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে খুবই মানবেতর জীবন যাপন করছে।

img-add

বন্যার পানির প্রবল স্রোতে দেওয়ানগঞ্জ-তারাটিয়া-সানন্দবাড়ী পাকা রাস্তা ভাঙনের হুমকিতে রয়েছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে এই সড়কের ঝালরচর, গুলুর ঘাটসহ বেশ কয়েকটি স্থানে রাস্তার ওপর দিয়ে পানি বইছে। ফলে যেকোনো মুহূর্তে এই পাকা রাস্তায় যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া শঙ্কায় রয়েছেন স্থানীয়রা। জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার আওনা ইউনিয়নের কাবারিয়াবাড়ী বাজারের পেছনে যমুনাপাড়ের বেড়িবাঁধ ভাঙনের ঝুঁকিতে রয়েছে। ওই বাজারে স্কুল-মসজিদ ও অন্যান্য স্থাপনাসহ অন্তত ৬০টি দোকান হুমকিতে রয়েছে। এ ছাড়া সরিষাবাড়ী উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের ঝালুপাড়া থেকে চেচিয়াবাঁধা পর্যন্ত প্রায় ১৩ কিলোমিটার বেড়িবাঁধটিতে বন্যার পানি আঘাত হানছে। ইতিমধ্যে এই বাঁধের বিভিন্ন স্থানে বন্যার পানি ছুঁই ছুঁই করছে।
জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মো. নায়েব আলী জানান, দ্বিতীয় দফা বন্যায় জেলার ৭টি উপজেলায় ১৫৯টি গ্রামের এক লাখ ৯৭ হাজার ৬৫৮ জন মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বন্যা কবলিত এলাকায় পানিবন্দি পরিবারগুলোর মাঝে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ত্রাণ সহায়তা অব্যাহত রয়েছে। বন্যাদুর্গতদের সহায়তায় জেলায় পর্যাপ্ত ত্রাণ সামগ্রী ও নগদ অর্থ মজুদ রয়েছে বলেও জানান তিনি।

Print Friendly, PDF & Email
এ সংক্রান্ত আরও খবর

অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» শেরপুরে মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে যুবলীগের বিক্ষোভ মিছিল

» শেরপুরে স্বাস্থ্য সহকারীদের কর্মবিরতি ॥ ভোগান্তিতে শিশু ও গর্ভবতী নারীসহ সেবাপ্রার্থীরা

» শ্রীবরদীতে স্কুলছাত্রী ধর্ষণ, ধর্ষক পলাতক

» শেরপুরে মেয়র মনোনয়নপ্রত্যাশী আ’লীগ নেতা আধারের গণসংযোগ অব্যাহত

» জয়কে ১নং সদস্য করে পীরগঞ্জ আ’লীগের কমিটি অনুমোদন

» ১৩ তম জাতীয় আয়কর দিবস আজ

» চেলসিকে রুখে দিয়ে শীর্ষে ফিরলো টটেনহ্যাম

» বিয়ে করছেন অঙ্কুশ-ঐন্দ্রিলা

» দ্বিতীয় ধাপে ৬০ পৌরসভার ভোট জানুয়ারির মধ্যভাগে

» শেরপুরে বিএডিসির বীজ হিমাগার পরিদর্শন করলেন জেলা প্রশাসক

» চুল পড়া বন্ধ করবে ভেষজ চা

» ৯০ মিলিয়ন ডলারের সম্পদ রেখে গেছেন ম্যারাডোনা

» ঢাকা থেকে পায়রা বন্দর পর্যন্ত রেলপথ হবে : প্রধানমন্ত্রী

» শেরপুরের মনিরুজ্জামান স্যার আর নেই

» ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ডে বাংলাদেশের মডেল ইশরাত তন্বী

সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

  সন্ধ্যা ৭:৫১ | সোমবার | ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

জামালপুরে বন্যায় প্রায় ২ লাখ মানুষ পানিবন্দি

জামালপুর প্রতিনিধি : জামালপুরে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। যমুনা নদীর পানি বিপদসীমার ১১২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় জেলার ৪ টি উপজেলায় সবচেয়ে বেশি বন্যা দেখা দিয়েছে। জেলা প্রশাসনের হিসেবমতে, বন্যায় জেলার ৭টি উপজেলায় প্রায় ২ লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। অপরদিকে যমুনা নদীর পানি দ্রুত বাড়তে থাকায় জেলার পুরাতন ব্রহ্মপুত্র, জিঞ্জিরাম, ঝিনাই ও দশানী নদীর পানি বাড়ছে। তবে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি এখনও বিপদসীমার অনেক নিচ দিয়ে প্রবাহিত হলেও ব্রহ্মপুত্র অববাহিকার বিস্তীর্ণ নিচু এলাকায় বন্যা দেখা দিয়েছে। স্থানীয় সূত্র জানায়, যমুনার পানি বিপদসীমার ১১২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় গত ২৪ ঘন্টায় যমুনা নদী তীরের জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জ, ইসলামপুর, মাদারগঞ্জ ও সরিষাবাড়ী উপজেলায় সবচেয়ে বেশি বন্যা দেখা দিয়েছে।
এসব এলাকায় যমুনা নদীর পানি আর গ্রামের পর গ্রাম একাকার হয়ে গেছে। এই উপজেলাগুলোর গ্রামীণ রাস্তা-ঘাট, হাট-বাজার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ফসলি জমি বন্যার পানিতে ডুবে গেছে। এ ছাড়া জেলার মেলান্দহ, বকশীগঞ্জ ও জামালপুর সদর উপজেলার বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের বিস্তীর্ণ নিচু এলাকায় বন্যা দেখা দিয়েছে। জেলার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার চিকাজানী ও চুকাইবাড়ি ইউনিয়ন সম্পূর্ণরূপে বন্যা কবলিত হয়েছে। এ দুটি ইউনিয়নের অন্ততপক্ষে ১০ হাজারের অধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে খুবই মানবেতর জীবন যাপন করছে।

img-add

বন্যার পানির প্রবল স্রোতে দেওয়ানগঞ্জ-তারাটিয়া-সানন্দবাড়ী পাকা রাস্তা ভাঙনের হুমকিতে রয়েছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে এই সড়কের ঝালরচর, গুলুর ঘাটসহ বেশ কয়েকটি স্থানে রাস্তার ওপর দিয়ে পানি বইছে। ফলে যেকোনো মুহূর্তে এই পাকা রাস্তায় যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া শঙ্কায় রয়েছেন স্থানীয়রা। জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার আওনা ইউনিয়নের কাবারিয়াবাড়ী বাজারের পেছনে যমুনাপাড়ের বেড়িবাঁধ ভাঙনের ঝুঁকিতে রয়েছে। ওই বাজারে স্কুল-মসজিদ ও অন্যান্য স্থাপনাসহ অন্তত ৬০টি দোকান হুমকিতে রয়েছে। এ ছাড়া সরিষাবাড়ী উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের ঝালুপাড়া থেকে চেচিয়াবাঁধা পর্যন্ত প্রায় ১৩ কিলোমিটার বেড়িবাঁধটিতে বন্যার পানি আঘাত হানছে। ইতিমধ্যে এই বাঁধের বিভিন্ন স্থানে বন্যার পানি ছুঁই ছুঁই করছে।
জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মো. নায়েব আলী জানান, দ্বিতীয় দফা বন্যায় জেলার ৭টি উপজেলায় ১৫৯টি গ্রামের এক লাখ ৯৭ হাজার ৬৫৮ জন মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বন্যা কবলিত এলাকায় পানিবন্দি পরিবারগুলোর মাঝে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ত্রাণ সহায়তা অব্যাহত রয়েছে। বন্যাদুর্গতদের সহায়তায় জেলায় পর্যাপ্ত ত্রাণ সামগ্রী ও নগদ অর্থ মজুদ রয়েছে বলেও জানান তিনি।

Print Friendly, PDF & Email
এ সংক্রান্ত আরও খবর

সর্বশেষ খবর



অন্যান্য খবর



সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

error: Content is protected !!