প্রকাশকাল: 31 জুলাই, 2015

কাঠালিয়ার মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আঃ সালাম আর নেই

ঝালকাঠি প্রতিনিধি : ঝালকাঠির কাঠালিয়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের ডেপুটি কমান্ডার উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সাবেক ইউপি সদস্য কৃতি ফুটবলার,সাবেক প্রধান শিক্ষক মনস্বিতা মহিলা ডিগ্রি কলেজের জমিদাতা,গভনিংবডির সদস্য উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফাতেমা খানমের বড় ভাই মো. আবদুস সালাম হাওলাদার (৭২) আর নেই। তিনি বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২ টা ১০ মিনিটের সময় উপজেলার শৌলজালিয়া গ্রামের বাড়ীতে দীর্ঘদিন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে ইন্তেকাল করেন। মৃতকালে তার বয়স হয়েছিল ৭২ বছর। তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। শুক্রবার বেলা ১১টায় সেন্টারের হাটের বালুর মাঠে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়েছে।
জানাজায় উপজেলা চেয়ারম্যান মো.ফারুক সিকদার, বেতাগী উপজেলা চেয়ারম্যান শাহজাহান কবির, ইউএনও আবুল বাশার মুহাম্মদ আমীর উদ্দিন, ভাইস চেয়ারম্যান এমাদুল হক মনির, ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ মাহমুদ হোসেন রিপনসহ উপজেলা আওয়ামী লীগ ও বিভিন্ন সংগঠনের হাজার হাজার মানুষ জানাজায় অংশ নেয়।
তার মৃততে শোক প্রকাশ করেছেন ঝালকাঠি-১ (কাঠালিয়া-রাজাপুর) আসনের সাংসদ বজলুল হক হারুন, সাবেক আইন প্রতিমন্ত্রী ব্যরিষ্টার মুহাম্মাদ শাহ জাহান ওমর বীরউত্তম।

সকল ধর্মের ও মানুষের ভক্ত কাঁঠালিয়ার হোসেন পাগল আর নেই

ঝালকাঠির কাঠালিয়া উপজেলা সদরের বাক প্রতিবন্ধি আলী হোসেন ওরফে হোসেন পাগলা আর নেই। সবাইকে কান্নায় ভাসিয়ে গতকাল বৃস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার সময় উপজেলা সদরের মানুষের দেয়া তার থাকার ঘরে তিনি ইন্তেকাল করেন ইন্নালিল্লিহি…..রাজিউন। মৃতকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর। সকল ধর্মের লোকজনের প্রিয় ও ভক্ত মানুষ ছিলেন তিনি। সবাইকে কাদিয়ে তিনি চির বিদায় নিলেন। তার মৃতর খবর শুনে শত শত হিন্দু ও মুসলিম তাকে এক নজর দেখার জন্য ভীর করেন। হোসেন পাগলা উপজেলার আমুয়া ইউনিয়নের বাঁশবুনিয়া গ্রামের মোহাম্মদ আলী আকনের ছেলে। কাঠালিয়া শহরের হোটেল ব্যবসায়ী আশরাফ আলী হাওলাদার জানান, পাকিস্থান আমলের শেষ দিকে তিনি কাঠালিয়া শহরের আসেন সেই থেকে মৃত পর্যন্ত এখানেই ছিলেন। সে মানুষিক বিপদগ্রস্থ্য হলেও কাউকে কোন তি করতো না। বরং তার কাছে কেউ এলে হাত বুলিয়ে মাথায় ফু দিতেন। সবার খাবার তিনি নিতেন না। যাকে পছন্দ তার খাবার তিনি খেতেন। মানুষের দেয়া দান খয়রাতের টাকা পয়সা তিনি বিভিন্ন হোটেলে জমা রাখতেন। কথা বলতে না পারলেও তিনি ইশারায় সব কিছু বলতেন এবং সবার কথা বুজতেন। দীর্ঘদিন আমি তাকে গোসল করাইতাম ও খাবার খাওইয়াত। উপজেলা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক মাইনুল হোসেন রিয়াজ সিকদার জানান,এ মানুষটিকে আমি চরম শ্রদ্ধা করতাম। তার জন্য আমি শহরে মধ্যে একখানা টিনসেট ঘর উত্তোলন করে দেই। সেখানেই তিনি থাকতেন। তার মৃত্যুতে আমি বিষন মর্মাহত। আশির দশকে একবার কিছু বিপদগামী মানুষের কারনে তিনি কাঠালিয়া ছেড়ে আমুয়া বন্দরে অবস্থান করেন। কাঠালিয়া শহরের মানুষ তার শুন্যতা উপলদ্ধি করতে পেরে বাজারের গন্যমান্য ব্যাক্তিরা আমুয়া থেকে তাকে কাঠালিয়ায় নিয়ে আসেন। কৃষি ব্যাংক কাঠালিয়া শাখার অফিসার গৌতিম কুমার সেন গুপ্ত জানান,আমি অফিসে ঢোকার পুর্বে হোসেন বাবার সাথে দেখা করে তার দোয়া নিয়ে আসতাম। সারাদিনের কাজে আমার কোন কান্তি আসতো না। আমি তাকে বাবার মত সেবাযতœ করতাম। তার মৃত্যুতে আমি বিষন কষ্ট পেয়েছি। উপজেলার শহরের সকল মানুষের উদ্যোগে দুপুর ২টায় উপজেলা পরিষদ মাঠে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজা শেষে তাকে উপজেলা পরিষদ চত্বরে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্র ভবনের দক্ষিন পার্শ্বে দাফন করা হয়েছে।

স্বেচ্ছাসেবকলীগ সম্পাদক মাসুদ হত্যা

১৬৪ ধারায় আদালতে স্বীকারোক্তি দিলেন আজমল খান

ঝালকাঠির কাঁঠালিয়া উপজেলা আওরাবুনিয়া ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক ব্যবসায়ী মাসুদ সিকদার (৩৫) হত্যা মামলায় ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিলেন মামলার সন্দেহভাজন আসামী আজমল খান (৪০)। এ জন্য গতকাল বৃস্পতিবার বিকেলে তাকে কোটে তোলা হয়। ঝালকাঠি সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিচারক তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন। থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মো.কামরুজ্জামান মিয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেন। গত বুধবার বিকেলে আজমল হোসেনকে আওরাবুনিয়া এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী আওরাবুনিয়া এলাকা থেকে শাহাব উদ্দিন (৪৫) নামের একজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। শাহাব উদ্দিনকে চার দিনের রিমান্ড আবেদন করলে আদালত তা মঞ্জুর করেন।
গত (১০ জুলাই) শুক্রবার রাত সারে ১০টায় স্থানীয় সাতানী বাজারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে বাড়ি ফেরার পথে নিখোঁজ হয় মাসুদ সিকদার। নিখোঁজের দুই দিনপর রোববার (১২ জুলাই) রাতে বিষখালী নদীর চরে তার গালাকাটা মাথা দেখতে পেয়ে স্থানীয় জেলেরা পুলিশে খবর দেয়। রাত সাড়ে ১২টার দিকে শৌলজালিয়া ইউনিয়নের বিষখালী নদীর রগুয়ারচর থেকে তার দেহ থেকে আলাদা করা মাথা উদ্ধার করা হয়। সোমবার দুপুরে পার্শ্ববর্তী ভান্ডারিয়া উপজেলার নয়াখালী মাটিভাঙ্গা গ্রামের সাবেক সচিব খান আমির আলী খানের বাড়ীর সামনের খাল থেকে রশি দিয়ে বাঁধা দুটি হাত ও এদিন সন্ধ্যায় কাঠালিয়া লঞ্চঘাট এলাকার বিষখালী নদী থেকে তার দুটি পা উদ্ধার করে পুলিশ। তবে তার দেহ পাওয়া যায়নি।
জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রতিবেশী রিপন তালুকদার ও তার সহযোগিরা এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে বলে নিহতের স্বজনরা অভিযোগ করেন। নিহত মাসুদের স্ত্রী জুলিয়া বেগম ও বোন হাসনা মোস্তারিয়া মালা জানান, জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধ ও পূর্ব শত্রুতার কারণে মাসুদকে হত্যা করা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর কাছে এ হত্যার সুষ্ঠু বিচার দাবী করেন।
এ ঘটনায় নিহত মাসুদের ছোট ভাই মামুন সিকদার বাদী হয়ে আওরাবুনিয়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি নুরুল ইসলাম কুটি ও তার ভাতিজা সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মহারাজ তালুকদারের ছেলে রিপন তালুকদারসহ সর্বমোট ১০ জনকে আসমী করে সোমবার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

আপনার মতামত দিন

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

error: Content is protected !!