রাত ১০:৫৫ | সোমবার | ২৩শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

উদ্ভিদের শরীরেও কী রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা আছে?

আমাদের শরীরে প্রতিদিন অনেক জীবাণু প্রবেশ করে। কিন্তু আমরা রোগাক্রান্ত হই না। কারণ, আমাদের শরীরে অনেক ধরণের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা আছে। তার মধ্যে অন্যতম হলো- আমাদের শরীরে শ্বেত রক্তকণিকা(WBC) যারা শরীরের জীবাণু ধ্বংস করে দেহকে রোগমুক্ত রাখে। কিন্তু উদ্ভিদের শরীরে এমন বিশেষ কোন কোষ থাকেনা যারা জীবাণুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে। বরং উদ্ভিদের প্রতিটি কোষের মধ্যে রোগ প্রতিরোধের কিছু উপাদান থাকে।

img-add

উদ্ভিদকোষের ক্লোরোপ্লাস্ট, নিউক্লিয়াস, কোষঝিল্লি, এন্ডোপ্লাজমিক রেটিকুলাম এবং পারঅক্সিজোম সম্মিলিতভাবে কোষের রোগপ্রতিরক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তোলে। কিন্তু উদ্ভিদকোষের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখে ক্লোরোপ্লাস্ট। এজন্য কোষে রোগ-জীবাণু প্রবেশ করলে তারা প্রথমে ক্লোরোপ্লাস্টকে আক্রমণ করে। এটাই তো স্বাভাবিক তাইনা? চোরেরা তো পুলিশকেই মারতে চাইবে। যেহেতু রোগ-জীবাণু উদ্ভিদের জন্য ‘চোর’ আর ক্লোরোপ্লাস্ট ‘পুলিশ’। তাই রোগজীবাণু উদ্ভিদের শরীরে প্রবেশ করলে, তারা প্রথমেই ক্লোরোপ্লাস্টকে আক্রমণ করে।

তোমরা লক্ষ্য করবে, গাছে যে কোন রোগ-জীবাণু যেমন-ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস, ছত্রাক যেটাই আক্রমণ করুক না কেন, অধিকাংশ ক্ষেত্রে গাছের পাতা হলুদ হবার প্রবণতা দেখা যায়। এর মানে বুঝো?
-গাছের পাতা হলুদ হচ্ছে মানে, গাছের ক্লোরোপ্লাস্ট কমে যাচ্ছে। তার মানে, জীবাণুগুলো গাছের কোষের ক্লোরোপ্লাস্টকে টার্গেট করে মেরে ফেলছে।

কিন্তু গাছ তো জীবাণুকে এতো সুযোগ দিবেনা। নিশ্চয় জীবাণুর বিরুদ্ধে কোন না কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।
গাছের শরীরে প্রধানত দুই রকমের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা বিদ্যমান।
১। Hypersensitive response
২। Systemic Acquired Resistance
দুটো প্রক্রিয়াতেই ক্লোরোপ্লাস্ট সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কোষের মধ্যে জীবানুর উপস্থিতি টের পেলেই ক্লোরোপ্লাস্ট ইচ্ছাকৃতভাবে সালোকসংশ্লেষণ বন্ধ করে দেয়। এবং Reactive Oxygen Species অর্থাৎ হাইড্রোজেন পার অক্সাইড বা হাইড্রোজেন সুপার অক্সাইড এর মতো বিষাক্ত পদার্থ তৈরি করে।

১। যখন কোন উদ্ভিদ কোষে জীবাণু প্রবেশ করে, তখন যদি কোষটির ক্লোরোপ্লাস্ট বেশি পরিমাণ হাইড্রোজেন-পার-অক্সাইড বা হাইড্রোজেন-সুপার-অক্সাইড তৈরি করে তাহলে পুরো কোষের মৃত্যু ঘটে। কোষের সাথে সাথে জীবানুগুলোর মৃত্যু ঘটে। এই প্রক্রিয়ার জীবণু ধ্বংস করার নাম Hypersensitive response।

২। ক্লোরোপ্লাস্ট যদি কম পরিমাণ পরিমাণ H2O2 , HO2 তৈরি করে, তাহলে সেটা পুরো কোষকে ধ্বংস করে না। বরং সে দেহের সকল কোষকে বিশেষ রাসায়নিক পদার্থ তৈরি মাধ্যমে খবর পাঠায় যে- ‘উদ্ভিদ শরীরে জীবাণু প্রবেশ করেছে’ এতে পুরো উদ্ভিদ দেহ জীবাণুর উপস্থিতির ব্যাপারে সতর্ক হয়। এই ধরণের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার নাম Systemic Acquired Resistance।

গাছের এই রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাগুলোকে আমাদের শরীরের সহজাত প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার সাথে তুলনা করা হয়।

এগুলো ছাড়াও উদ্ভিদ দেহে অনেক প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা আছে। সে গল্প অন্য কোনদিন হবে।

লেখক : নাজমুছ সাকিব, উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।

 


করোনা পরিস্থিতিতে শ্যামলবাংলা২৪ডটকমের বিশেষ আয়োজন ‘শ্রেণিপাঠ’ বিভাগে আপনিও পাঠাতে পারেন শিক্ষার্থীদের পাঠদান বিষয়ক যেকোন লেখা। যোগাযোগ : ড. বিভূতিভূষণ মিত্র, বিভাগীয় সম্পাদক, শ্রেণিপাঠ ই-মেইল : bhushan.bibhutimitra@gmail.com

Print Friendly, PDF & Email
এ সংক্রান্ত আরও খবর

অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» ঝিনাইগাতীতে নির্মাণের ১৩ মাসেই ভেঙে গেল বক্স কালভার্ট

» স্বাস্থ্যসম্মত ও পরিবেশবান্ধব সিটি গড়তে মসিক কাজ করছে ॥ মেয়র টিটু

» বাবার সেবা করতে গিয়ে ফারুকের মেয়ে করোনায় আক্রান্ত

» জেনে নিন ভিটামিন ডি-এর প্রয়োজনীয়তা

» ফারিয়ার নতুন গান ‘এ বাঁধন যাবে না ছিঁড়ে’

» ফ্রিল্যান্সাররা ‘ভার্চুয়াল আইডি কার্ড’ পাচ্ছেন বুধবার থেকে

» জাতীয় দলের নেতৃত্বকে আবারও ‘না’ মুশফিকের

» প্রাথমিকে পড়ুয়ারা পরের ক্লাসে উঠবে একই রোল নিয়ে

» শ্রীবরদীতে তুচ্ছ ঘটনায় মুক্তিযোদ্ধার ওপর হামলা ॥ দোকান ভাঙচুর

» এক বছর পর মাঠে নামছেন সাকিব

» ময়মনসিংহ বিভাগে করোনায় আক্রান্ত ৭ হাজার ছাড়ালো, মৃত্যু ৮২

» নালিতাবাড়ীতে ইয়াবাসহ যুবক গ্রেফতার

» দেশে করোনায় ২৮ মৃত্যু, শনাক্ত ২৪১৯

» শেরপুরে আরও এলাকায় মেয়র মনোনয়নপ্রত্যাশী আ’লীগ নেতা আধারের গণসংযোগ

» শেরপুর পৌরসভার নির্বাচন ॥ তৃণমূলে গড়ালো আ’লীগের মেয়রপ্রার্থী বাছাই

সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

  রাত ১০:৫৫ | সোমবার | ২৩শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

উদ্ভিদের শরীরেও কী রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা আছে?

আমাদের শরীরে প্রতিদিন অনেক জীবাণু প্রবেশ করে। কিন্তু আমরা রোগাক্রান্ত হই না। কারণ, আমাদের শরীরে অনেক ধরণের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা আছে। তার মধ্যে অন্যতম হলো- আমাদের শরীরে শ্বেত রক্তকণিকা(WBC) যারা শরীরের জীবাণু ধ্বংস করে দেহকে রোগমুক্ত রাখে। কিন্তু উদ্ভিদের শরীরে এমন বিশেষ কোন কোষ থাকেনা যারা জীবাণুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে। বরং উদ্ভিদের প্রতিটি কোষের মধ্যে রোগ প্রতিরোধের কিছু উপাদান থাকে।

img-add

উদ্ভিদকোষের ক্লোরোপ্লাস্ট, নিউক্লিয়াস, কোষঝিল্লি, এন্ডোপ্লাজমিক রেটিকুলাম এবং পারঅক্সিজোম সম্মিলিতভাবে কোষের রোগপ্রতিরক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তোলে। কিন্তু উদ্ভিদকোষের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখে ক্লোরোপ্লাস্ট। এজন্য কোষে রোগ-জীবাণু প্রবেশ করলে তারা প্রথমে ক্লোরোপ্লাস্টকে আক্রমণ করে। এটাই তো স্বাভাবিক তাইনা? চোরেরা তো পুলিশকেই মারতে চাইবে। যেহেতু রোগ-জীবাণু উদ্ভিদের জন্য ‘চোর’ আর ক্লোরোপ্লাস্ট ‘পুলিশ’। তাই রোগজীবাণু উদ্ভিদের শরীরে প্রবেশ করলে, তারা প্রথমেই ক্লোরোপ্লাস্টকে আক্রমণ করে।

তোমরা লক্ষ্য করবে, গাছে যে কোন রোগ-জীবাণু যেমন-ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস, ছত্রাক যেটাই আক্রমণ করুক না কেন, অধিকাংশ ক্ষেত্রে গাছের পাতা হলুদ হবার প্রবণতা দেখা যায়। এর মানে বুঝো?
-গাছের পাতা হলুদ হচ্ছে মানে, গাছের ক্লোরোপ্লাস্ট কমে যাচ্ছে। তার মানে, জীবাণুগুলো গাছের কোষের ক্লোরোপ্লাস্টকে টার্গেট করে মেরে ফেলছে।

কিন্তু গাছ তো জীবাণুকে এতো সুযোগ দিবেনা। নিশ্চয় জীবাণুর বিরুদ্ধে কোন না কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।
গাছের শরীরে প্রধানত দুই রকমের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা বিদ্যমান।
১। Hypersensitive response
২। Systemic Acquired Resistance
দুটো প্রক্রিয়াতেই ক্লোরোপ্লাস্ট সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কোষের মধ্যে জীবানুর উপস্থিতি টের পেলেই ক্লোরোপ্লাস্ট ইচ্ছাকৃতভাবে সালোকসংশ্লেষণ বন্ধ করে দেয়। এবং Reactive Oxygen Species অর্থাৎ হাইড্রোজেন পার অক্সাইড বা হাইড্রোজেন সুপার অক্সাইড এর মতো বিষাক্ত পদার্থ তৈরি করে।

১। যখন কোন উদ্ভিদ কোষে জীবাণু প্রবেশ করে, তখন যদি কোষটির ক্লোরোপ্লাস্ট বেশি পরিমাণ হাইড্রোজেন-পার-অক্সাইড বা হাইড্রোজেন-সুপার-অক্সাইড তৈরি করে তাহলে পুরো কোষের মৃত্যু ঘটে। কোষের সাথে সাথে জীবানুগুলোর মৃত্যু ঘটে। এই প্রক্রিয়ার জীবণু ধ্বংস করার নাম Hypersensitive response।

২। ক্লোরোপ্লাস্ট যদি কম পরিমাণ পরিমাণ H2O2 , HO2 তৈরি করে, তাহলে সেটা পুরো কোষকে ধ্বংস করে না। বরং সে দেহের সকল কোষকে বিশেষ রাসায়নিক পদার্থ তৈরি মাধ্যমে খবর পাঠায় যে- ‘উদ্ভিদ শরীরে জীবাণু প্রবেশ করেছে’ এতে পুরো উদ্ভিদ দেহ জীবাণুর উপস্থিতির ব্যাপারে সতর্ক হয়। এই ধরণের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার নাম Systemic Acquired Resistance।

গাছের এই রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাগুলোকে আমাদের শরীরের সহজাত প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার সাথে তুলনা করা হয়।

এগুলো ছাড়াও উদ্ভিদ দেহে অনেক প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা আছে। সে গল্প অন্য কোনদিন হবে।

লেখক : নাজমুছ সাকিব, উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।

 


করোনা পরিস্থিতিতে শ্যামলবাংলা২৪ডটকমের বিশেষ আয়োজন ‘শ্রেণিপাঠ’ বিভাগে আপনিও পাঠাতে পারেন শিক্ষার্থীদের পাঠদান বিষয়ক যেকোন লেখা। যোগাযোগ : ড. বিভূতিভূষণ মিত্র, বিভাগীয় সম্পাদক, শ্রেণিপাঠ ই-মেইল : bhushan.bibhutimitra@gmail.com

Print Friendly, PDF & Email
এ সংক্রান্ত আরও খবর

সর্বশেষ খবর



অন্যান্য খবর



সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

error: Content is protected !!