সকাল ৯:১২ | বুধবার | ২৯শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং | ১৬ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ইতিহাস-ঐতিহ্যের দেশ জাপান

শ্যামলবাংলা ডেস্ক : বিশ্বের অন্য অনেক দেশের চেয়ে ভ্রমণের জন্য জাপান এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে নিরাপদ একটি রাষ্ট্র। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং উন্নত জীবনযাপন পদ্ধতির কারণে এটি অনন্য এক দেশ। নিজেদের ইতিহাস আর ঐতিহ্য বেশ যত্ন সহকারে সংরক্ষণ করছে এ দেশটি। এ কারণে এখানকার বিভিন্ন প্রদেশে হাজারো বছরের পুরনো মন্দির, ভবন দেখা যায় আজও। জাপানের প্রকৃতি তার অফুরন্ত ভাণ্ডার সাজিয়ে রেখেছে পর্যটকদের জন্য। এখানকার প্রকৃতি দেখতে আর ঐহিত্য জানতে প্রতি বছরই জাপানে দেশ-বিদেশ থেকে পর্যটকরা ছুটে আসেন।
জাপানের আরাশিয়ামার বাঁশ বাগানের খ্যাতি রয়েছে বিশ্ব জোড়া। দেশটির কিয়াটো শহরের উপকন্ঠে গড়ে উঠেছে এ বাগান। একে আরও আকর্ষণীয় করে তুলতে বাঁশ বাগানের মাঝখানে তৈরি করা হয়ে পায়ে চলা পথ। গোটা বিশ্ব থেকে অনেক পযর্টকই এ বাগান দেখতে ছুটে আসেন।

img-add

যারা বৈচিত্রময় খাবার পছন্দ করেন তাদের জন্য জাপান আদর্শ একটি স্থান। ভাত থেকে শুরু করে এখানে বিভিন্ন স্বাদের খাবার পাওয়া যায়। বিশেষ করে সামুদ্রিক মাছ, সবজি, নানারকম ফল আর ভিনেগার দেওয়া ভাত দিয়ে তৈরি খাবার ‘সুশি’ অনেক দেশের মানুষের কাছেই প্রিয়।
গোটা জাপান জুড়েই এপ্রিল থেকে মে মাসে চেরি ফুল ফোটে। এসময় পথ ছেয়ে যায় এ ফুলে। যারা ফুল ভালোবাসেন তারা এ সময়ে যেতে পারেন জাপানে। তখন জাপান সেজে ওঠে অনন্য এক সাজে।
যারা অ্যানিমেশন মুভি দেখতে পছন্দ করেন জাপান তাদের জন্য সেরা। এখানকার ক্যাফেটেরিয়া থেকে শুরু করে বিভিন্ন স্থানে অ্যানিমেশনের চরিত্রগুলো আঁকা দেখা যায়। এছাড়া রাজধানী টোকিওতে আছে অ্যানিমেশন সেন্টার। চাইলে সেখানেও ঘুরতে যেতে পারেন।
বন আর প্রকৃতির জন্য জাপানের আলাদা সুখ্যাতি আছে। গোটা দেশে ৬২ টি বন রয়েছে। প্রকৃতির সান্নিধ্য পেতে কিংবা মেডিটেশন করতে নিশ্চিন্তে যেতে পারেন এসব বনে। জাপানে হাজারো বছরের পুরনো সব বাগান রয়েছে।বর্তমানে সে গুলোতে আধুনিকতার ছাপ আনা হয়েছে।
জাপানে সবচেয়ে বেশি চাষ হয় ধানের। ওই দেশের প্রায় সব প্রদেশে ধানের চাষ হয়। এছাড়া উচ্চ ফলনশীল ফল এবং মাংসও উৎপাদন হয় বিভিন্ন ফার্মে। এ কারণে জাপানে কৃষিভিত্তিক পর্যটন কেন্দ্র গড়ে উঠেছে বিভিন্ন স্থানে।
জাপানে স্থানীয়ভাবে বিভিন্ন ধরনের উৎসবের আয়োজন করা হয। প্রায় সারা বছরই স্থানীয়রা নানা ধরনের উৎসবে মেতে থাকে। কোনো দেব-দেবীর উদ্দেশে, বিভিন্ন মৌসুমে. কখনও বা ঐতিহাসিক কোনো কারণে তারা উৎসব উদযাপন করে। কোনো কোনো উৎসব কয়েকদিন ধরে চলে।
জাপান ভ্রমণের সবচেয়ে সেরা সময় মার্চ থেকে মে কিংবা সেপ্টেম্বর থেকে নভেম্বর। কারণ ওই সময়ে জাপানের তাপমাত্রা মাঝারি থাকে, বৃষ্টিপাতও কম হয়।

অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» আইপিএলেও চালু হচ্ছে নতুন নিয়ম

» নকলায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্যের নির্মাণ কাজ উদ্বোধন

» ‘চিরঞ্জীব মুজিব’ চলচ্চিত্রে বঙ্গমাতার চরিত্রে পূর্ণিমা

» পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট দলে ফিরছেন তামিম-তাসকিন

» বিএনপি নেতাদের কাছে ভোট চাইলেন আতিকুল

» আগামী বছরের জুনে পদ্মা সেতু এবং ডিসেম্বরে মেট্রোরেল উদ্বোধন : কাদের 

» গণমাধ্যমকে তরুন প্রজন্মের জন্য আস্থার জায়গা তৈরি করতে হবে : তথ্যমন্ত্রী

» শ্রীবরদীতে ইটভাটায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে অর্ধ লক্ষ টাকা জরিমানা

» ময়মনসিংহে পপুলার ও প্রান্তসহ ৭ ডায়াগনোস্টিককে সাড়ে ২৫ লাখ টাকা জরিমানা

» ‘অংশীদারিত্ব’ এগিয়ে নিতে মার্কিন রাষ্ট্রদূত সুন্দরবনে

» শুরু হচ্ছে ‘মিস আর্থ বাংলাদেশ’

» করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে যা করবেন

» ১৬ বছরে পদার্পণ বাংলা উইকিপিডিয়া

» মইনুল হোসেন প্লাবন’র কবিতা ‌’মনুষ্যত্বের জয় হোক’

» চীন-কোরিয়া থেকে আগতদের পর্যবেক্ষণে রাখবে সরকার : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

  সকাল ৯:১২ | বুধবার | ২৯শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং | ১৬ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ইতিহাস-ঐতিহ্যের দেশ জাপান

শ্যামলবাংলা ডেস্ক : বিশ্বের অন্য অনেক দেশের চেয়ে ভ্রমণের জন্য জাপান এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে নিরাপদ একটি রাষ্ট্র। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং উন্নত জীবনযাপন পদ্ধতির কারণে এটি অনন্য এক দেশ। নিজেদের ইতিহাস আর ঐতিহ্য বেশ যত্ন সহকারে সংরক্ষণ করছে এ দেশটি। এ কারণে এখানকার বিভিন্ন প্রদেশে হাজারো বছরের পুরনো মন্দির, ভবন দেখা যায় আজও। জাপানের প্রকৃতি তার অফুরন্ত ভাণ্ডার সাজিয়ে রেখেছে পর্যটকদের জন্য। এখানকার প্রকৃতি দেখতে আর ঐহিত্য জানতে প্রতি বছরই জাপানে দেশ-বিদেশ থেকে পর্যটকরা ছুটে আসেন।
জাপানের আরাশিয়ামার বাঁশ বাগানের খ্যাতি রয়েছে বিশ্ব জোড়া। দেশটির কিয়াটো শহরের উপকন্ঠে গড়ে উঠেছে এ বাগান। একে আরও আকর্ষণীয় করে তুলতে বাঁশ বাগানের মাঝখানে তৈরি করা হয়ে পায়ে চলা পথ। গোটা বিশ্ব থেকে অনেক পযর্টকই এ বাগান দেখতে ছুটে আসেন।

img-add

যারা বৈচিত্রময় খাবার পছন্দ করেন তাদের জন্য জাপান আদর্শ একটি স্থান। ভাত থেকে শুরু করে এখানে বিভিন্ন স্বাদের খাবার পাওয়া যায়। বিশেষ করে সামুদ্রিক মাছ, সবজি, নানারকম ফল আর ভিনেগার দেওয়া ভাত দিয়ে তৈরি খাবার ‘সুশি’ অনেক দেশের মানুষের কাছেই প্রিয়।
গোটা জাপান জুড়েই এপ্রিল থেকে মে মাসে চেরি ফুল ফোটে। এসময় পথ ছেয়ে যায় এ ফুলে। যারা ফুল ভালোবাসেন তারা এ সময়ে যেতে পারেন জাপানে। তখন জাপান সেজে ওঠে অনন্য এক সাজে।
যারা অ্যানিমেশন মুভি দেখতে পছন্দ করেন জাপান তাদের জন্য সেরা। এখানকার ক্যাফেটেরিয়া থেকে শুরু করে বিভিন্ন স্থানে অ্যানিমেশনের চরিত্রগুলো আঁকা দেখা যায়। এছাড়া রাজধানী টোকিওতে আছে অ্যানিমেশন সেন্টার। চাইলে সেখানেও ঘুরতে যেতে পারেন।
বন আর প্রকৃতির জন্য জাপানের আলাদা সুখ্যাতি আছে। গোটা দেশে ৬২ টি বন রয়েছে। প্রকৃতির সান্নিধ্য পেতে কিংবা মেডিটেশন করতে নিশ্চিন্তে যেতে পারেন এসব বনে। জাপানে হাজারো বছরের পুরনো সব বাগান রয়েছে।বর্তমানে সে গুলোতে আধুনিকতার ছাপ আনা হয়েছে।
জাপানে সবচেয়ে বেশি চাষ হয় ধানের। ওই দেশের প্রায় সব প্রদেশে ধানের চাষ হয়। এছাড়া উচ্চ ফলনশীল ফল এবং মাংসও উৎপাদন হয় বিভিন্ন ফার্মে। এ কারণে জাপানে কৃষিভিত্তিক পর্যটন কেন্দ্র গড়ে উঠেছে বিভিন্ন স্থানে।
জাপানে স্থানীয়ভাবে বিভিন্ন ধরনের উৎসবের আয়োজন করা হয। প্রায় সারা বছরই স্থানীয়রা নানা ধরনের উৎসবে মেতে থাকে। কোনো দেব-দেবীর উদ্দেশে, বিভিন্ন মৌসুমে. কখনও বা ঐতিহাসিক কোনো কারণে তারা উৎসব উদযাপন করে। কোনো কোনো উৎসব কয়েকদিন ধরে চলে।
জাপান ভ্রমণের সবচেয়ে সেরা সময় মার্চ থেকে মে কিংবা সেপ্টেম্বর থেকে নভেম্বর। কারণ ওই সময়ে জাপানের তাপমাত্রা মাঝারি থাকে, বৃষ্টিপাতও কম হয়।

সর্বশেষ খবর



অন্যান্য খবর



সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

error: Content is protected !!