সন্ধ্যা ৭:৩৪ | রবিবার | ২৫শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

আজ শ্যামলবাংলা২৪ডটকম সম্পাদক আধার’র ৫০তম জন্মদিন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আজ ২৩ সেপ্টেম্বর ন্যাশনাল অনলাইন নিউজপোর্টাল শ্যামলবাংলা২৪ডটকম সম্পাদক, সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’র ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক, শেরপুর জেলা আইনজীবী সমিতি ও প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি, বিশিষ্ট সাংবাদিক, আইনজীবী ও রাজনীতিক রফিকুল ইসলাম আধারের ৫০তম জন্মদিন। ১৯৭০ সনের এই দিনে তিনি শেরপুর পৌর শহরের মীরগঞ্জ মহল্লার নানার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। বহুতর প্রতিভার অধিকারী রফিকুল ইসলাম আধারের ৫০তম জন্মদিনে তার জীবনের সাফল্য কামনা করে শুভেচ্ছা জানিয়েছে শ্যামলবাংলা ও ‘সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’ পরিবার।
রফিকুল ইসলাম আধার শিক্ষাজীবন থেকেই সাহিত্য-সাংবাদিকতা ও রাজনীতির সাথে জড়িত। ১৯৮৮ সনে সাহিত্য ও সাংবাদিকতায় তার হাতেখড়ি। ওইসময় তার প্রথম চারণক্ষেত্র ছিল শেরপুর থেকে প্রকাশিত ‘সাপ্তাহিক শেরপুর’। এরপর ‘সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’ ও ময়মনসিংহের ‘দৈনিক আজকের বাংলাদেশ’। ২০০০ সনে শেরপুর জেলা বারে সদস্যভুক্তির মধ্য দিয়ে আইন পেশায় যোগদান করলেও সাংবাদিকতার নেশা ও রাজনীতি চর্চাকে জীবন থেকে মুছে ফেলতে পারেননি তিনি। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৪ সালের ৩১ মে শেরপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি নির্বাচিত হন তিনি। পরবর্তীতে ২০১৬ সালের ৩১ মে দ্বিতীয় দফায় প্রেসক্লাব সভাপতি নির্বাচিত হন তিনি।

img-add

সাংবাদিকতা : ‘সাপ্তাহিক শেরপুর’ এর স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে তার সাংবাদিকতা শুরু। এরপর ‘সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’র স্টাফ রিপোর্টার ও পরবর্তীতে ১৯৯৯ থেকে ২০১১ পর্যন্ত প্রায় ১২ বছর নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। এরপর তিনি স্বল্প সময়ে ‘দৈনিক তথ্যধারা’র প্রধান বার্তা সম্পাদক ছিলেন। এর মাঝেও তিনি ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক লালসবুজ, ‘দৈনিক মাতৃভূমি’ পত্রিকায় কাজ করেছেন দীর্ঘ সময়। বর্তমানে তিনি শেরপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন এবং জাতীয় ‘দৈনিক জনকণ্ঠ’ ও ‘বাংলাদেশ বেতার’ এর শেরপুর জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কমর্রত রয়েছেন। ২০১৩ সালের ৩১ জুলাই থেকে তার সম্পাদনা-প্রকাশনায় অনলাইন নিউজ পোর্টাল শ্যামলবাংলা২৪ডটকম প্রকাশিত হচ্ছে। মফস্বল সাংবাদিকতার বাইরেও তিনি সমকালীন বিভিন্ন প্রসঙ্গ/নিবন্ধ লিখনে সিদ্ধহস্ত। তার লেখা বিশেষ নিবন্ধ ‘২০তম রাষ্ট্রপতির প্রতি প্রত্যাশা : জীবনের ষোলকলা পূর্ণ হোক জাতির ক্রান্তিকাল উত্তরণে’, স্পিকার ড. শিরীন শারমীন চৌধুরীর দায়িত্বভার গ্রহণ প্রসঙ্গে ‘নারীর মতায়নে অগ্রযাত্রা’ এবং ‘রাজনীতিতে চুলতত্বের বাহাস : আর নয় চুলোচুলি, কুলাকুলিতে হোক সমাধান’ বেশ আলোচিত ও পাঠকপ্রিয়তা লাভ করে। সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদানের জন্য ২০১৫ সালে তিনি শেরে বাংলা স্মৃতি পদক ও নেলসন ম্যান্ডেলা সম্মাননা পদক লাভ করেন।
সাহিত্য : স্কুলজীবন থেকেই তিনি সাহিত্য চর্চার সাথে জড়িত। তার লেখা প্রচুর কবিতা, ছোটগল্প ও মিনি উপন্যাস স্থানীয় ও জাতীয় পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। তার অপ্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘বাংলাদেশের চোখে ঘুম নেই’ এবং গল্পগ্রন্থ ‘মাঝখানে নদী’। পেশাগত জীবনে দারুণ ব্যস্ততায় ইদানিং সাহিত্যাঙ্গনের সাথে খুব একটা জড়িত না থাকলেও সাহিত্য জড়িয়ে আছে তার জীবনের সাথে। সাহিত্য বিষয়ক বিভিন্ন আলোচনা ও কবিতা পাঠের আসরে এখনও তার দেদীপ্যমান উপস্থিতি লক্ষ্যণীয়। তিনি অধূনা বিলুপ্ত শেরপুর সাহিত্য পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এছাড়া জাতীয় কবিতা পরিষদসহ বিভিন্ন সাহিত্য সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে একসময় ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন। বর্তমানে তিনি কবি সংঘ’র কার্যকরী সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন। তার দরাজ কণ্ঠের আবৃত্তি কেবল মঞ্চ নয়, দর্শক-শ্রোতাকেও নাড়িয়ে তোলে। তিনি শেরপুর নজরুল পরিষদের সিনিয়র সহ-সভাপতি।
সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠক : তিনি এলাকার মসজিদ, মাদ্রাসা, ঈদগাহ মাঠ, ব্যবসায়ী সমিতি ও ক্রীড়া-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নিবিড়ভাবে জড়িত। কোন কোনটার প্রতিষ্ঠাতাও তিনি। শেরপুরের অন্যতম ক্রীড়া সংগঠন অনির্বাণ তরুণ সংঘ (অতস) এর প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সভাপতি তিনি। তিনি জেলা সংযুক্ত শ্রমিক ঐক্য পরিষদ, জেলা ট্রলিচালক-শ্রমিক সমিতি, জেলা রাজমিস্ত্রী-শ্রমজীবী সমবায় সমিতি, জেলা রাইস মিল মিস্ত্রী শ্রমিক ইউনিয়ন, জেলা ব্রিক ফিল্ড সর্দার সমিতিসহ অন্তত: ১০/১২টি পেশাজীবী সংগঠনের উপদেষ্টার দায়িত্বে রয়েছেন। এলাকাসহ বিভিন্ন অবহেলিত-দারিদ্রপীড়িত আর কন্যাদায়গ্রস্তসহ বিভিন্ন আর্তমানবতার ক্ষেত্রে তার সহযোগিতার হাত কোনোক্রমেই খাটো নয়।
শিক্ষানুরাগী : তিনি নিজ এলাকার এম এ পাবলিক স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান, উত্তরা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি। এছাড়া আইডিয়াল পলিটেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও ডাঃ সেকান্দর আলী মহাবিদ্যালয়ের গভর্নিং বডির সদস্য ছিলেন।
রাজনীতি : তিনি ছাত্রজীবন থেকেই আওয়ামী লীগ সমর্থিত রাজনীতির সাথে জড়িত। এরপর তিনি আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন কৃষক লীগের সদর উপজেলা শাখার নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এ অবস্থায় তিনি শহরের ওয়ার্ড বিভক্তির পর ৮ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি গঠিত হলে তিনি কৃষক লীগ ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের দায়িত্ব ছেড়ে দিয়ে জেলা কমিটির তথ্য ও গবেষণা সম্পাদকের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ২০১৬ সালে দ্বিতীয় দফায় তিনি জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক নির্বাচিত হন। এ দায়িত্বে থেকে তিনি জাতীয় ও স্থানীয় পর্যায়ের বিভিন্ন নির্বাচনে দলের মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে ব্যাপক ভূমিকা রাখেন। ৯৬ সরকার পূর্ববর্তী অসহযোগ আন্দোলনে তিনি একটি হয়রানীমূলক মামলায় জড়িত হয়ে কারাভোগ করেন।
আইন পেশা : ২০০০ সনে আইন পেশায় যোগ দিয়েই তিনি জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাহী কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ৩ দফা নির্বাহী সদস্য, ৩ দফা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, একবার অডিটর, একবার সহ-সভাপতি হওয়াসহ ২০১২ সনে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০১৩ সনে সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হিসেবে অংশ নিয়ে মাত্র এক ভোটের ব্যবধানে হারলেও ২০১৪ সনের নিবার্চনে বিপুল ভোটাধিক্যে ফের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন তিনি। এরপর ২০১৮ সালে জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হন।
পারিবারিক ঘাত-প্রতিঘাতের মাঝেও এ মানুষটির জীবন কাটে নানাবিধ কর্মকান্ডে প্রচন্ড ব্যস্ততায়।

Print Friendly, PDF & Email
এ সংক্রান্ত আরও খবর

অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» শ্রীবরদীতে নির্যাতনে শিশু গৃহকর্মীর মৃত্যু ॥ গৃহকর্তাকে গ্রেফতারসহ দম্পতির ফাঁসি চান স্বজনরা

» ঝিনাইগাতীতে খেলার মাঠ দখল করে চাষাবাদ : ক্রীড়া কর্মকাণ্ড ব্যাহত

» চুলের জন্য সিনেমা থেকে বাদ পড়লেন বাপ্পী

» নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্ল্যান্ট কোম্পানিতে ৩৬৮ জনের নিয়োগ

» সমালোচনা নিত্যসঙ্গী মাহমুদউল্লাহর

» বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ২ ম্যাচের জন্য ব্রাজিল দল ঘোষণা

» ‘খালেদা জিয়ার দণ্ড স্থগিত শেখ হাসিনার মানবিকতায়, বিএনপির আন্দোলনে নয়’

» করোনা: মোবাইল ফোন জীবাণুমুক্ত রাখতে কী করবেন

» স্পিডবোট ডুবিতে নিখোঁজ ৫ জনেরই লাশ উদ্ধার

» ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আর নেই

» শেরপুরে ডা. অমি’র জন্মদিন উপলক্ষে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প ও খাবার বিতরণ

» শেখ হাসিনা অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত করেছেন : কৃষিমন্ত্রী

» শ্রীবরদীতে গৃহকর্ত্রীর নির্যাতন ॥ ২৭ দিন পর মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লো সেই শিশু গৃহকর্মী

» শেরপুরে জেলা মহিলা আ’লীগের সভানেত্রী শামছুন্নাহার কামাল করোনায় আক্রান্ত

» ঝিনাইগাতীতে কৃষকদের প্রযুক্তি হস্তান্তর প্রশিক্ষণ

সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

  সন্ধ্যা ৭:৩৪ | রবিবার | ২৫শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

আজ শ্যামলবাংলা২৪ডটকম সম্পাদক আধার’র ৫০তম জন্মদিন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আজ ২৩ সেপ্টেম্বর ন্যাশনাল অনলাইন নিউজপোর্টাল শ্যামলবাংলা২৪ডটকম সম্পাদক, সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’র ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক, শেরপুর জেলা আইনজীবী সমিতি ও প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি, বিশিষ্ট সাংবাদিক, আইনজীবী ও রাজনীতিক রফিকুল ইসলাম আধারের ৫০তম জন্মদিন। ১৯৭০ সনের এই দিনে তিনি শেরপুর পৌর শহরের মীরগঞ্জ মহল্লার নানার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। বহুতর প্রতিভার অধিকারী রফিকুল ইসলাম আধারের ৫০তম জন্মদিনে তার জীবনের সাফল্য কামনা করে শুভেচ্ছা জানিয়েছে শ্যামলবাংলা ও ‘সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’ পরিবার।
রফিকুল ইসলাম আধার শিক্ষাজীবন থেকেই সাহিত্য-সাংবাদিকতা ও রাজনীতির সাথে জড়িত। ১৯৮৮ সনে সাহিত্য ও সাংবাদিকতায় তার হাতেখড়ি। ওইসময় তার প্রথম চারণক্ষেত্র ছিল শেরপুর থেকে প্রকাশিত ‘সাপ্তাহিক শেরপুর’। এরপর ‘সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’ ও ময়মনসিংহের ‘দৈনিক আজকের বাংলাদেশ’। ২০০০ সনে শেরপুর জেলা বারে সদস্যভুক্তির মধ্য দিয়ে আইন পেশায় যোগদান করলেও সাংবাদিকতার নেশা ও রাজনীতি চর্চাকে জীবন থেকে মুছে ফেলতে পারেননি তিনি। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৪ সালের ৩১ মে শেরপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি নির্বাচিত হন তিনি। পরবর্তীতে ২০১৬ সালের ৩১ মে দ্বিতীয় দফায় প্রেসক্লাব সভাপতি নির্বাচিত হন তিনি।

img-add

সাংবাদিকতা : ‘সাপ্তাহিক শেরপুর’ এর স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে তার সাংবাদিকতা শুরু। এরপর ‘সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’র স্টাফ রিপোর্টার ও পরবর্তীতে ১৯৯৯ থেকে ২০১১ পর্যন্ত প্রায় ১২ বছর নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। এরপর তিনি স্বল্প সময়ে ‘দৈনিক তথ্যধারা’র প্রধান বার্তা সম্পাদক ছিলেন। এর মাঝেও তিনি ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক লালসবুজ, ‘দৈনিক মাতৃভূমি’ পত্রিকায় কাজ করেছেন দীর্ঘ সময়। বর্তমানে তিনি শেরপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন এবং জাতীয় ‘দৈনিক জনকণ্ঠ’ ও ‘বাংলাদেশ বেতার’ এর শেরপুর জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কমর্রত রয়েছেন। ২০১৩ সালের ৩১ জুলাই থেকে তার সম্পাদনা-প্রকাশনায় অনলাইন নিউজ পোর্টাল শ্যামলবাংলা২৪ডটকম প্রকাশিত হচ্ছে। মফস্বল সাংবাদিকতার বাইরেও তিনি সমকালীন বিভিন্ন প্রসঙ্গ/নিবন্ধ লিখনে সিদ্ধহস্ত। তার লেখা বিশেষ নিবন্ধ ‘২০তম রাষ্ট্রপতির প্রতি প্রত্যাশা : জীবনের ষোলকলা পূর্ণ হোক জাতির ক্রান্তিকাল উত্তরণে’, স্পিকার ড. শিরীন শারমীন চৌধুরীর দায়িত্বভার গ্রহণ প্রসঙ্গে ‘নারীর মতায়নে অগ্রযাত্রা’ এবং ‘রাজনীতিতে চুলতত্বের বাহাস : আর নয় চুলোচুলি, কুলাকুলিতে হোক সমাধান’ বেশ আলোচিত ও পাঠকপ্রিয়তা লাভ করে। সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদানের জন্য ২০১৫ সালে তিনি শেরে বাংলা স্মৃতি পদক ও নেলসন ম্যান্ডেলা সম্মাননা পদক লাভ করেন।
সাহিত্য : স্কুলজীবন থেকেই তিনি সাহিত্য চর্চার সাথে জড়িত। তার লেখা প্রচুর কবিতা, ছোটগল্প ও মিনি উপন্যাস স্থানীয় ও জাতীয় পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। তার অপ্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘বাংলাদেশের চোখে ঘুম নেই’ এবং গল্পগ্রন্থ ‘মাঝখানে নদী’। পেশাগত জীবনে দারুণ ব্যস্ততায় ইদানিং সাহিত্যাঙ্গনের সাথে খুব একটা জড়িত না থাকলেও সাহিত্য জড়িয়ে আছে তার জীবনের সাথে। সাহিত্য বিষয়ক বিভিন্ন আলোচনা ও কবিতা পাঠের আসরে এখনও তার দেদীপ্যমান উপস্থিতি লক্ষ্যণীয়। তিনি অধূনা বিলুপ্ত শেরপুর সাহিত্য পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এছাড়া জাতীয় কবিতা পরিষদসহ বিভিন্ন সাহিত্য সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে একসময় ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন। বর্তমানে তিনি কবি সংঘ’র কার্যকরী সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন। তার দরাজ কণ্ঠের আবৃত্তি কেবল মঞ্চ নয়, দর্শক-শ্রোতাকেও নাড়িয়ে তোলে। তিনি শেরপুর নজরুল পরিষদের সিনিয়র সহ-সভাপতি।
সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠক : তিনি এলাকার মসজিদ, মাদ্রাসা, ঈদগাহ মাঠ, ব্যবসায়ী সমিতি ও ক্রীড়া-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নিবিড়ভাবে জড়িত। কোন কোনটার প্রতিষ্ঠাতাও তিনি। শেরপুরের অন্যতম ক্রীড়া সংগঠন অনির্বাণ তরুণ সংঘ (অতস) এর প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সভাপতি তিনি। তিনি জেলা সংযুক্ত শ্রমিক ঐক্য পরিষদ, জেলা ট্রলিচালক-শ্রমিক সমিতি, জেলা রাজমিস্ত্রী-শ্রমজীবী সমবায় সমিতি, জেলা রাইস মিল মিস্ত্রী শ্রমিক ইউনিয়ন, জেলা ব্রিক ফিল্ড সর্দার সমিতিসহ অন্তত: ১০/১২টি পেশাজীবী সংগঠনের উপদেষ্টার দায়িত্বে রয়েছেন। এলাকাসহ বিভিন্ন অবহেলিত-দারিদ্রপীড়িত আর কন্যাদায়গ্রস্তসহ বিভিন্ন আর্তমানবতার ক্ষেত্রে তার সহযোগিতার হাত কোনোক্রমেই খাটো নয়।
শিক্ষানুরাগী : তিনি নিজ এলাকার এম এ পাবলিক স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান, উত্তরা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি। এছাড়া আইডিয়াল পলিটেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও ডাঃ সেকান্দর আলী মহাবিদ্যালয়ের গভর্নিং বডির সদস্য ছিলেন।
রাজনীতি : তিনি ছাত্রজীবন থেকেই আওয়ামী লীগ সমর্থিত রাজনীতির সাথে জড়িত। এরপর তিনি আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন কৃষক লীগের সদর উপজেলা শাখার নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এ অবস্থায় তিনি শহরের ওয়ার্ড বিভক্তির পর ৮ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি গঠিত হলে তিনি কৃষক লীগ ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের দায়িত্ব ছেড়ে দিয়ে জেলা কমিটির তথ্য ও গবেষণা সম্পাদকের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ২০১৬ সালে দ্বিতীয় দফায় তিনি জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক নির্বাচিত হন। এ দায়িত্বে থেকে তিনি জাতীয় ও স্থানীয় পর্যায়ের বিভিন্ন নির্বাচনে দলের মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে ব্যাপক ভূমিকা রাখেন। ৯৬ সরকার পূর্ববর্তী অসহযোগ আন্দোলনে তিনি একটি হয়রানীমূলক মামলায় জড়িত হয়ে কারাভোগ করেন।
আইন পেশা : ২০০০ সনে আইন পেশায় যোগ দিয়েই তিনি জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাহী কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ৩ দফা নির্বাহী সদস্য, ৩ দফা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, একবার অডিটর, একবার সহ-সভাপতি হওয়াসহ ২০১২ সনে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০১৩ সনে সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হিসেবে অংশ নিয়ে মাত্র এক ভোটের ব্যবধানে হারলেও ২০১৪ সনের নিবার্চনে বিপুল ভোটাধিক্যে ফের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন তিনি। এরপর ২০১৮ সালে জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হন।
পারিবারিক ঘাত-প্রতিঘাতের মাঝেও এ মানুষটির জীবন কাটে নানাবিধ কর্মকান্ডে প্রচন্ড ব্যস্ততায়।

Print Friendly, PDF & Email
এ সংক্রান্ত আরও খবর

সর্বশেষ খবর



অন্যান্য খবর



সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

error: Content is protected !!