রাত ২:৪৮ | শুক্রবার | ১০ই জুলাই, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

অনলাইন নিউজ পোর্টাল : নিবন্ধন পেতে থাকতে হবে ৪ যোগ্যতা

শ্যামলবাংলা ডেস্ক : দ্রুত, সঠিক ও নির্ভুল সংবাদ প্রচার করায় অনলাইন নিউজ পত্রিকাগুলো (পোর্টাল) দেশে এখন বেশ জনপ্রিয়। অধিকাংশ অনলাইন গণমাধ্যম বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করলেও বেশ কিছু অনলাইন তা করছে না। এতে অনেক সময় সরকারসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে। তাই অনলাইন গণমাধ্যমগুলোকে এক ছাতার নিচে আনতে নিবন্ধন দিতে যাচ্ছে সরকার। নিবন্ধন পেতে অন্তত ৪ টি যোগ্যতা (বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন, অফিসসহ চাহিদা মাফিক জনবল, নিয়মিত বেতনভাতা পরিশোধ, আবেদনকারীর কর শনাক্ত নম্বর টিআইএন) থাকতে হবে একটি প্রতিষ্ঠানকে। সেগুলোর ভিত্তিতেই দেওয়া হবে নিবন্ধন। ওই কার্যক্রম খুব সহসাই শুরু হবে বলে জানিয়েছে তথ্য মন্ত্রনালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্র।
সূত্র জানায়, তথ্যপ্রযুক্তির প্রসারে দেশের মানুষ ক্রমেই দেশে ইন্টারনেট নির্ভর হয়ে পড়ছে। ফুটপাতের দোকানদার থেকে কোটিপতি সবার হাতেই ইন্টারনেট। ক্ষমতাসীন দলের নির্বাচানী ইশতেহার ছিল ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণ করা। আর বর্তমান সরকারের নির্বাচনী ইশতেহার ডিজিটাল বাংলাদেশের পথে এগিয়ে চলছে। পাশাপাশি অনলাইন গণমাধ্যমগুলো বিশ্বের যেকোনো প্রান্তে বসে যে কোনো খবর পাওয়া যাচ্ছে নিমেষেই।
অনলাইন গণমাধ্যমে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের জন্য মনিটরিং জন্য অনলাইন পোর্টালের নিবন্ধন দেওয়া হবে। বর্তমানের একটি দৈনিক পত্রিকা বের করতে নামের ক্লিয়ারেন্সসহ অনুমতি নিতে হয় ঠিক একই প্রক্রিয়া অনুসরণ করে অনলাইন পত্রিকার নিবন্ধন দেওয়া হবে।
অনলাইন নিবন্ধনের জন্য প্রায় আট হাজার আবেদন করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রাথমিকভাবে তিন হাজার ৫৯৭টি আবেদন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে তদন্তের জন্য পাঠানো হয়। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে সেগুলো সরকারের বিভিন্ন সংস্থার কাছে ইনভেস্টিগেশন করতে পাঠানো হয়। তারা ইতোমেধ্যে কয়েকশ’ অনলাইনের তদন্তকাজ শেষ করে পাঠিয়েছে। তথ্য মন্ত্রণালয় এগুলোর মধ্য থেকে যাচাই-বাছাই করে ধাপে ধাপে নিবন্ধন দেওয়া শুরু করবে।
দেখা গেছে ঘরে বসে কয়েকজন মিলে একটা অনলাইন নিউজ পোর্টাল চালু করে দেয়। তবে এখন আর এসব নাম সর্বস্ব অনলাইন পত্রিকা করতে দেওয়া হবে না। পাশাপাশি যারা বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করে না, এসব ভুয়া পোর্টালের বিরুদ্ধে অ্যাকশনে যাবে সরকার। নিবন্ধনের পর থেকে এভাবে আর অনলাইন পত্রিকা চালানো যাবে না। অনলাইন সংবাদমাধ্যমের জন্য গাইডলাইন তৈরি করা হয়েছে। সে আলোকেই তাদের চলতে হবে। নিবন্ধন পাওয়ার পর বেশ কিছু শর্ত মেনে চলতে হবে।

img-add

তথ্য মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করে বলেন, ‘একটি দৈনিক পত্রিকাকে যেভাবে অনুমোদন নিতে হয়, সেই আদলেই অনলাইন পোর্টাল পত্রিকাকে নিবন্ধন দেওয়া হবে। ইতোমধ্যে সরকারের কয়েকটি সংস্থার তদন্ত শেষে বেশ কিছু অনলাইন পোর্টালের সার্বিক তথ্য এসেছে। এগুলোর মধ্যে যাচাই-বাছাই করে নিবন্ধন দেওয়া শুরু হবে। অধিকাংশ অনলাইন মনিটরিং করা হচ্ছে। যেসব অনলআইনগুলো বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করছে এবং অফিস, পর্যাপ্ত সংবাদকর্মী আছে তাদের নিবন্ধন প্রথমে দেওয়া হবে।’
তিনি বলেন, ‘‘আবেদনের মধ্যে এমন অনেক পোর্টাল আছে, যেসব পোর্টাল যারা চালাচ্ছেন তাদের সাংবাদিকতাসহ অন্য কোনো পেশায় কাজ করার যোগ্যতা নেই। তারা অনলাইন খুলে বসে কার্ড বানিয়ে সাংবাদিক হিসেবে পরিচয় দিচ্ছে নিজেদের। তাদের মতো কয়েক জনের জন্য বৃহত্তর সাংবাদিক পরিবারের বদনাম হয়। ‘এটি যাতে না হয় সেজন্য অনলাইন নিবন্ধন দেওয়া হচ্ছে। নিবন্ধন দেওয়ার পর যেসব গুজব কিংবা মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করাসহ এগুলোর ডোমেইন বন্ধ করে দেওয়া হবে।”
তথ্য অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘‘বর্তমান সরকার গণ্যমাধ্যম সরকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গণমাধ্যমের ব্যাপক বিকাশ ঘটেছে। ১১ বছর আগে পত্রিকার সংখ্যা ছিল ৭৫০টি, এখন এক হাজার ৩০০ এর বেশি। টেলিভিশন চ্যানেলের সংখ্যা ছিল ১০টি। এখন ৩৪টি সম্প্রচারে আছে এবং ৪৫টির লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে। আমাদের দেশে ১১ বছর আগে হাতে গোনা কয়েকটি অনলাইন ছিল। এখন কয়েক হাজার অনলাইন পত্রিকা রয়েছে। ‘অনলাইন পত্রিকাকে স্বীকৃতিসহ মনিটরিং করতে নিবন্ধন দেওয়া হচ্ছে। কেননা অনলাইন পরিচালনার জন্য নিবন্ধন নিতে হচ্ছে না। তাই যে কেউ একটি ডোমেইন কিনে অনলাইন পত্রিকা খুলছে।” তিনি বলেন, ‘দেশে নয় কোটির বেশি মানুষ সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে। সোশ্যাল মিডিয়ার যেমন ভালো দিক আছে, তেমনি খারাপ দিকও আছে। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে গুজবও ছড়ানো হচ্ছে। এটিকে শৃঙ্খলায় আনার জন্য নিবন্ধন দেওয়া হবে।’
তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘সহসাই অনলাইন সংবাদ পোর্টালের নিবন্ধন (রেজিষ্ট্রেশন) হবে। আর যেসমস্ত অনলাইন বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করে না, হীন উদ্দেশ্যে জনমনে বিভ্রান্তি ছড়ায় ও নানা অনৈতিক কাজে লিপ্ত, তাদের বিরুদ্ধে তদন্তসাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর যেসমস্ত অনলাইন বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করে আসছে, গণমাধ্যম জগতে সত্যিকার ভূমিকা রাখছে, তারা রেজিস্ট্রেশন পাবে। সহসাই এসব অনলাইনগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে নিবন্ধন দেওয়া শুরু করব।’

Print Friendly, PDF & Email
এ সংক্রান্ত আরও খবর

অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» শেরপুরে এবার সিজেএম’র ‘জাস্টিস অব দি পিস’ আদেশে ২শ হতদরিদ্র মানুষ পেল খাদ্য সহায়তা

» এবার তদন্তের মুখোমুখি ঝিনাইগাতী মহিলা আদর্শ ডিগ্রি কলেজের সেই অধ্যক্ষ

» শেরপুরে সেতু ও রাস্তা নির্মাণে অনিয়ম ॥ তদন্ত কমিটির পরিদর্শন

» আমরাই ধরি আবার আমাদেরকেই দোষারোপ : প্রধানমন্ত্রী

» দেশে করোনায় আরও ৪১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩৩০৭

» শিগগিরই এইচএসসিতে ভর্তি : শিক্ষামন্ত্রী

» ঝিনাইগাতীতে কৃষকলীগের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত

» বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত ১ কোটি ২০ লাখ

» আবদুল হালিম উকিল : পাহাড় সমুদ্র নদী সমর্পিত ঝর্ণা ধারা

» শ্রীবরদীতে ৭টি বিদ্যালয়ে ড্রামস সেট বিতরণ

» শেরপুরের আকাশে দিন-রাত উড়ছে বাহারি রঙের ঘুড়ি

» ঝিনাইগাতীতে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

» প্রয়োজনে সীমিত আকারে ভার্চুয়াল আদালত পরিচালনা, সংসদে বিল পাস

» ৮৫টি শূন্যপদে নিয়োগ দেবে বিআইডব্লিউটিএ

» ভাঙছে এফডিসি, প্রস্তুত কবিরপুরের ফিল্ম সিটি

সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

  রাত ২:৪৮ | শুক্রবার | ১০ই জুলাই, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

অনলাইন নিউজ পোর্টাল : নিবন্ধন পেতে থাকতে হবে ৪ যোগ্যতা

শ্যামলবাংলা ডেস্ক : দ্রুত, সঠিক ও নির্ভুল সংবাদ প্রচার করায় অনলাইন নিউজ পত্রিকাগুলো (পোর্টাল) দেশে এখন বেশ জনপ্রিয়। অধিকাংশ অনলাইন গণমাধ্যম বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করলেও বেশ কিছু অনলাইন তা করছে না। এতে অনেক সময় সরকারসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে। তাই অনলাইন গণমাধ্যমগুলোকে এক ছাতার নিচে আনতে নিবন্ধন দিতে যাচ্ছে সরকার। নিবন্ধন পেতে অন্তত ৪ টি যোগ্যতা (বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন, অফিসসহ চাহিদা মাফিক জনবল, নিয়মিত বেতনভাতা পরিশোধ, আবেদনকারীর কর শনাক্ত নম্বর টিআইএন) থাকতে হবে একটি প্রতিষ্ঠানকে। সেগুলোর ভিত্তিতেই দেওয়া হবে নিবন্ধন। ওই কার্যক্রম খুব সহসাই শুরু হবে বলে জানিয়েছে তথ্য মন্ত্রনালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্র।
সূত্র জানায়, তথ্যপ্রযুক্তির প্রসারে দেশের মানুষ ক্রমেই দেশে ইন্টারনেট নির্ভর হয়ে পড়ছে। ফুটপাতের দোকানদার থেকে কোটিপতি সবার হাতেই ইন্টারনেট। ক্ষমতাসীন দলের নির্বাচানী ইশতেহার ছিল ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণ করা। আর বর্তমান সরকারের নির্বাচনী ইশতেহার ডিজিটাল বাংলাদেশের পথে এগিয়ে চলছে। পাশাপাশি অনলাইন গণমাধ্যমগুলো বিশ্বের যেকোনো প্রান্তে বসে যে কোনো খবর পাওয়া যাচ্ছে নিমেষেই।
অনলাইন গণমাধ্যমে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের জন্য মনিটরিং জন্য অনলাইন পোর্টালের নিবন্ধন দেওয়া হবে। বর্তমানের একটি দৈনিক পত্রিকা বের করতে নামের ক্লিয়ারেন্সসহ অনুমতি নিতে হয় ঠিক একই প্রক্রিয়া অনুসরণ করে অনলাইন পত্রিকার নিবন্ধন দেওয়া হবে।
অনলাইন নিবন্ধনের জন্য প্রায় আট হাজার আবেদন করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রাথমিকভাবে তিন হাজার ৫৯৭টি আবেদন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে তদন্তের জন্য পাঠানো হয়। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে সেগুলো সরকারের বিভিন্ন সংস্থার কাছে ইনভেস্টিগেশন করতে পাঠানো হয়। তারা ইতোমেধ্যে কয়েকশ’ অনলাইনের তদন্তকাজ শেষ করে পাঠিয়েছে। তথ্য মন্ত্রণালয় এগুলোর মধ্য থেকে যাচাই-বাছাই করে ধাপে ধাপে নিবন্ধন দেওয়া শুরু করবে।
দেখা গেছে ঘরে বসে কয়েকজন মিলে একটা অনলাইন নিউজ পোর্টাল চালু করে দেয়। তবে এখন আর এসব নাম সর্বস্ব অনলাইন পত্রিকা করতে দেওয়া হবে না। পাশাপাশি যারা বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করে না, এসব ভুয়া পোর্টালের বিরুদ্ধে অ্যাকশনে যাবে সরকার। নিবন্ধনের পর থেকে এভাবে আর অনলাইন পত্রিকা চালানো যাবে না। অনলাইন সংবাদমাধ্যমের জন্য গাইডলাইন তৈরি করা হয়েছে। সে আলোকেই তাদের চলতে হবে। নিবন্ধন পাওয়ার পর বেশ কিছু শর্ত মেনে চলতে হবে।

img-add

তথ্য মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করে বলেন, ‘একটি দৈনিক পত্রিকাকে যেভাবে অনুমোদন নিতে হয়, সেই আদলেই অনলাইন পোর্টাল পত্রিকাকে নিবন্ধন দেওয়া হবে। ইতোমধ্যে সরকারের কয়েকটি সংস্থার তদন্ত শেষে বেশ কিছু অনলাইন পোর্টালের সার্বিক তথ্য এসেছে। এগুলোর মধ্যে যাচাই-বাছাই করে নিবন্ধন দেওয়া শুরু হবে। অধিকাংশ অনলাইন মনিটরিং করা হচ্ছে। যেসব অনলআইনগুলো বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করছে এবং অফিস, পর্যাপ্ত সংবাদকর্মী আছে তাদের নিবন্ধন প্রথমে দেওয়া হবে।’
তিনি বলেন, ‘‘আবেদনের মধ্যে এমন অনেক পোর্টাল আছে, যেসব পোর্টাল যারা চালাচ্ছেন তাদের সাংবাদিকতাসহ অন্য কোনো পেশায় কাজ করার যোগ্যতা নেই। তারা অনলাইন খুলে বসে কার্ড বানিয়ে সাংবাদিক হিসেবে পরিচয় দিচ্ছে নিজেদের। তাদের মতো কয়েক জনের জন্য বৃহত্তর সাংবাদিক পরিবারের বদনাম হয়। ‘এটি যাতে না হয় সেজন্য অনলাইন নিবন্ধন দেওয়া হচ্ছে। নিবন্ধন দেওয়ার পর যেসব গুজব কিংবা মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করাসহ এগুলোর ডোমেইন বন্ধ করে দেওয়া হবে।”
তথ্য অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘‘বর্তমান সরকার গণ্যমাধ্যম সরকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গণমাধ্যমের ব্যাপক বিকাশ ঘটেছে। ১১ বছর আগে পত্রিকার সংখ্যা ছিল ৭৫০টি, এখন এক হাজার ৩০০ এর বেশি। টেলিভিশন চ্যানেলের সংখ্যা ছিল ১০টি। এখন ৩৪টি সম্প্রচারে আছে এবং ৪৫টির লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে। আমাদের দেশে ১১ বছর আগে হাতে গোনা কয়েকটি অনলাইন ছিল। এখন কয়েক হাজার অনলাইন পত্রিকা রয়েছে। ‘অনলাইন পত্রিকাকে স্বীকৃতিসহ মনিটরিং করতে নিবন্ধন দেওয়া হচ্ছে। কেননা অনলাইন পরিচালনার জন্য নিবন্ধন নিতে হচ্ছে না। তাই যে কেউ একটি ডোমেইন কিনে অনলাইন পত্রিকা খুলছে।” তিনি বলেন, ‘দেশে নয় কোটির বেশি মানুষ সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে। সোশ্যাল মিডিয়ার যেমন ভালো দিক আছে, তেমনি খারাপ দিকও আছে। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে গুজবও ছড়ানো হচ্ছে। এটিকে শৃঙ্খলায় আনার জন্য নিবন্ধন দেওয়া হবে।’
তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘সহসাই অনলাইন সংবাদ পোর্টালের নিবন্ধন (রেজিষ্ট্রেশন) হবে। আর যেসমস্ত অনলাইন বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করে না, হীন উদ্দেশ্যে জনমনে বিভ্রান্তি ছড়ায় ও নানা অনৈতিক কাজে লিপ্ত, তাদের বিরুদ্ধে তদন্তসাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর যেসমস্ত অনলাইন বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করে আসছে, গণমাধ্যম জগতে সত্যিকার ভূমিকা রাখছে, তারা রেজিস্ট্রেশন পাবে। সহসাই এসব অনলাইনগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে নিবন্ধন দেওয়া শুরু করব।’

Print Friendly, PDF & Email
এ সংক্রান্ত আরও খবর

সর্বশেষ খবর



অন্যান্য খবর



সম্পাদক-প্রকাশক : রফিকুল ইসলাম আধার
উপদেষ্টা সম্পাদক : সোলায়মান খাঁন মজনু
নির্বাহী সম্পাদক : মোহাম্মদ জুবায়ের রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১ : ফারহানা পারভীন মুন্নী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : আলমগীর কিবরিয়া কামরুল
বার্তা সম্পাদক-১ : রেজাউল করিম বকুল
বার্তা সম্পাদক-২ : মোঃ ফরিদুজ্জামান।
যোগাযোগ : সম্পাদক : ০১৭২০০৭৯৪০৯
নির্বাহী সম্পাদক : ০১৯১২০৪৯৯৪৬
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-১: ০১৭১৬৪৬২২৫৫
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-২ : ০১৭১৪২৬১৩৫০
বার্তা সম্পাদক-১ : ০১৭১৩৫৬৪২২৫
বার্তা সম্পাদক -২ : ০১৯২১-৯৫৫৯০৬
বিজ্ঞাপন : ০১৭১২৮৫৩৩০৩
ইমেইল : shamolbangla2013@gmail.com.

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । ওয়েবসাইট তৈরি করেছে- BD iT Zone

error: Content is protected !!