অধিকার বঞ্চিত নিস্পাপ শিশু :এদের ভবিষ্যত কোথায় ?বেড়েই চলেছ শিশু হত্যা ॥ শিশু অপরাধ

shishu news

“শিশু” ছোট্ট একটি শব্দ। এর আবিধানিক অর্থ সহজ-সরল,সাবলিল,অবুঝ,নিস্পাপ। প্রতিটি শিশুই দুনিয়ার জান্নাতী মেহমান। শশিুর জন্মে মানুষ স্বভাবগত কারণে যে আনন্দ-উচ্ছ্বাস করতে চায়, তা প্রকাশার্থে ইসলাম আককিার বধিান দয়িছে।ে ‘আককিা’ শব্দরে অর্থ হচ্ছে নবজাতকরে মাথার চুল। শরয়িতরে পরভিাষায় নবজাতকরে সইে চুল ফলোর দনিে বশিষে র্শতাবলরি প্রতি লক্ষ রখেে যে পশু জবাই করা হয়, এটকিে ‘আককিা’ বল।েমহানবী হযরত মোহাম্মদ (সঃ) ইরশাদ করেছেন, প্রতিটি শিশু তার আকিকার দায়ে আবদ্ধ থাকে। শশিুর মননে আধ্যাত্মকি বকিাশরে প্রাথমকি ক্ষত্রে হচ্ছে পরবিার। একটি শশিু সুন্দর মহৎ মানব হওয়ার পছেনে পরবিাররে প্রভাব অতীব গুরুত্বর্পূণ। শশিুরা জন্ম থকেে ছয়-সাত বছর র্পযন্ত যা শোন,ে যা দখে,ে তা-ই তার মানসকি বকিাশরে প্রাথমকি ভত্তি।ি একটি শশিুর পরপর্িূণ বকিাশরে জন্য জাতসিংঘ ‘শশিু অধকিার সনদ’-এর ২৭ নম্বর ধারায় প্রতটিি শশিুর শারীরকি, মানসকি, আত্মকি, সামাজকি ও নতৈকি উন্নয়নরে বষিয়ে তাদরে র্পযাপ্ত মানসম্মত জীবনযাপনরে অধকিার অর্ন্তভুক্ত করা হয়ছে।ে আধুনকি যুগে পরবিারই শশিুর মূল শক্ষিাকন্দ্রে হওয়া উচতি। মা-বাবাই শশিুর জন্য জগতরে শ্রষ্ঠে শক্ষিক, আর ঘর হলো শ্রষ্ঠে পাঠশালা। শশিুদরে মনরে মতো করে গড়ে তোলা খুবই কঠনি। শান্ত হলওে শশিু শশিুই। তারা অনুভূতপ্রিবণ ও অনুকরণপ্রয়ি। শশিুর সামনে যা কছিুই বলা হবে বা করা হব,ে এর একটা চত্রি তার মনে অঙ্কতি হয়ে যায়; যা ভবষ্যিতে বহঃিপ্রকাশ ঘট।ে আজকের শিশুকে যদি আমরা আগামীর ভবিষ্যত ভাবি,তবে শিশুর মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করা ও শিশু হত্যা ॥ শিশু অপরাধ বন্ধ করা অতিভ জরুরী।

   ॥ শেরপুরে আলোচিত শিশু হত্যা ॥

মাদ্রাসা ছাত্রী হত্যা : গত ২৯ এপ্রিল শুক্রবার বিকেলে বানেশ্বর্দী গ্রামের কৃষক রোহান মিয়ার কন্যা ও স্থানীয় দাখিল মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী রিমা আক্তারের লাশ পাওয়া যায় বসতঘরের ধর্নায় শাড়ী দিয়ে গলায় পেচানো অবস্থায়। গত ৮ মে ময়নাতদন্তে তাকে গলা টিপে হত্যার আলামত পাওয়া যায়। দারনা করা হচ্ছে তাকে প্রথমে ধর্ষণ এবং পরে গলা টিপে হত্যা করা হয়েছে। সরেজমিনে অনুসন্ধানে জানা যায়,জমিজমা নিয়ে ৩ দিন ধরেই রোহান মিয়ার সাথে নিজ সহোদর বড় ভাই জোসনাবালির সাথে ঝগড়া হয়ে আসছে।ওই দিন রোহান নকলা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি ও করে।রোহানের অভিযোগ,প্রতিপক্ষের মারপিটের কারণে স্ত্রীসহ সে হাসপাতালে ভর্তি থাকার সুযোগে রিমাকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করে তার লাশ ঝুলিয়ে রাখার চেষ্টা করা হয়েছ্।েহয়তবা ধর্ষনের পর হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে।
এ ব্যাপারে নকলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গোলাম হায়দার মঙ্গলবার বিকেলে জানান,ময়নাতদন্তে গলা টিপে হত্যার আলামত পাওয়া গেছে,দ্রুতই আসামীদের বিচারের আওতায় আনা হবে।
নবজাতক হত্যা ঃ গত ৭ মার্চ সোমবার দুপুরে শেরপুর শহরের নবীনগর বাসস্ট্যান্ড থেকে এবং সম্প্রতি ২৬ এপ্রিল মঙ্গলবার সকালে শহরের কৃষি প্রশিক্ষণ ইনিস্টিটিউটের সামনে পৌর ড্রেন থেকে নবজাতকের লাশ উদ্ধার করা হয়। যাদের কারণে এই নিস্পাপ শিশুরা পৃথিবীর আলো-বাতাস থেকে বঞ্চিত হলো পরকালে তাদের কঠিন শাস্তিতো অপেক্ষা করছেই। দুনিয়াতেও তাদের কোন দিনই সুখ হবে না । দুনিয়ার আইনেও তাদের খুঁজে বের করে শাস্তি নিশ্চিত করা হোক। প্রশাসনের কাছে জোরালো আবেদন, এদের ব্যাপারে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করুন।

স্কুল ছাত্র,শিশু নূরে আলম হত্যা : সুপারি চুরির অজুহাতে স্কুল ছাত্র শিশু নূরে আলমকে(১২) ঘাড় মটকে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা । শিশু নূরে আলম সদর উপজেলার মুন্সীরচর পূর্বপাড়া এলাকার হতদরিদ্র গোপন মিয়ার ছেলে ও স্থানীয় সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থী। পূর্বশত্রুতার জের ধরে ৩১শে জানুয়ারি রবিবার সন্ধ্যার পর প্রতিবেশি উমেদ আলীর ছেলে মতি মিয়া ও তার বাড়ীর লোকজন ত্র বাগানের সুপারি চুরির অজুহাতে আটক করে সারা রাতব্যাপী শারীরিক নির্যাতন চালায়। পরদিন সকালে পার্শ্ববর্তী একটি কাঁঠাল গাছের ডালে নিজ গায়ের জ্যাকেট মোরানো অবস্থায় শিশু নূরে আলমের লাশ দেখা যায়। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘাড় মটকানো,মুকে,গলায় ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখমের চিহ্নসহ নূরে আলমের লাশ উদ্ধার করলেও ওই ঘটনায় হত্যা মামলা না নিয়ে একটি অপমৃত্যুর মামলা রেকর্ড করে। ফলে শিশু নূরে আলমের বাবা বাদী হয়ে মতি মিয়া(৪৫) সহ ৭ জনকে আসামী করে ৪ ফেব্রুয়ারী আদালতে মামলাটি দায়ের করেন । উল্লেখ্য, গত ৭ ফেব্রুয়ারী জেলা সদর হাসপাতালে ময়নাতদন্তে স্কুল ছাত্র শিশু নূরে আলমকে ‘ঘাড় মটকে হত্যা’র আলামত পাওযা যায়। এখন পর্যন্ত একটি আসামীও পুরিশ ধরতে পারেনি। হতদরিদ্র নূরে আলমের বাবা-মা ছেলে হারানোর ব্যাথা নিয়ে অসহায় জীবন-যাপন করছেন এবং আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনার জন্য প্রশাসনের প্রতি আকুল আবেদন জানিয়েছেন।
শিশু রাহাত হত্যা : গত ২-৮-২০১৫ ইং দুপুরে শেরপুর শহরের শিববাড়ী এলাকার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী শহীদুল ইসলাম খোকনের ছেলে এবং স্থানীয় বিপ্লব-লোপা মেমোরিয়ার স্কুলের প্রথম শেণির ছাত্র আরাফাত ইসলাম রাহাতকে (৮) তার আপন খালু আব্দুল লতিফসহ কয়েকজন দুর্বৃত্ত অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবি করে । অপহরণের ৬ দিন পর ৮ আগস্ট দুপুরে নালিতাবাড়ীর মধুটিলা ইকোপার্ক সংলগ্ন পাহাড় থেকে অপহৃত শিশু রাহাতের কঙ্কাল উদ্ধার করে পুলিশ। ওই ঘটনায় নিহত রাহাতের খালু লতিফসহ অপর তিন আসামী রবিন মিয়া,আসলাম বাবু ও ইমরান আদালতে স্বীকাররোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। তদন্ত শেষে পুলিশ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৭/৮/৩০ ধারা এবং তৎসহ দঃবিঃ ৩০২/২০১/৩৪ ধারায় ২৯ নভেম্বর লতিফসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে আদালত চার্জশিট দাখিল করে। অবশেষে ২৯ মার্চ মঙ্গলবার দুপুরে হত্যার ৮ মাসের মাথায় ৩ ঘাতকের ফাঁসি এবং ১ জনের যাবজ্জীবন কারাদ-ের আদেশ দেয় ট্রাইব্যুনাল। একই সাথে প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে অর্থদ-ও দেওয়া হয়। ফাঁসির দ-প্রাপ্তরা হচ্ছে আব্দুল লতিফ, রবিন মিয়া ও আসলাম বাবু । যাবজ্জীবন দ-ীত হচ্ছে ইমরান হোসেন। এ চাঞ্চল্যকর মামলার রায়ে শিশু রাহাতের পরিবার তথা শেরপুরবাসী সন্তোশ প্রকাশ করেন এবং এ ধরনের ঘটনা ভবিষ্যতে যেন আর না ঘটে সে ব্যপারে সরকারের সাহায্য কামনা করেন।
শিশু আলম হত্যা : গ্রাম্য সালিশে পাতিল চুরির অভিযোগ তুলে শিশু আলমকে প্রথমত বেধড়ক মারপিট এবং পরদিন ১৪ আগস্ট রহস্যজনকভাবে ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার হোসেনপুর গ্রামে ঢাকা-শেরপুর মহাসড়ক থেকে তার লাশ পাওয়া যায়। উল্লেখ্য, ঝিনাইগাতী উপজেলার বিশুপুর গ্রামের কৃসক বাচ্চু মিয়ার ছেলে শিশু আলম গত বছরের ১৩ আগস্ট শ্রীবরদী উপজেলার রানীশিমুর ইউনিয়নের ভায়াডাঙ্গা দক্ষিণপাড়াস্থ নানার বাড়ী থেকে ফেরার পথে পাতিল চুরির অভিযোগে আটক হয়। পরে ইউনিয়ন পরিষদ মাঠে তথাকথিত গ্রাম্য সালিশে প্রভাবশালী ইউপি চেয়ারম্যান আবু সামা কবির তাকে দোষী সাব্যস্ত করে তার শরীরে বেত্রাঘাতসহ বেধড়ক মারপিটে গুরতর আহত করে। ওই অবস্থায় সালিশ ভেঙ্গে ইউপি পরিষদের একটি কক্ষে আটকে রাখা হয়। খবর পেয়ে আলমের পরিবার তাকে নিতে গেলে ‘আলমকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে বলে জানানো হয়। পরদিন ১৪ আগস্ট রহস্যজনকভাবে ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার হোসেনপুর গ্রামে ঢাকা-শেরপুর মহাসড়ক থেকে তার লাশ পাওয়া যায়। সালিশে বেত্রাঘাতের ভিডিও চিত্রসহ সংবাদটি মিডিয়াতে প্রচারে আলোচিত হয়ে ওঠে।এর ভিডিও চিত্রটি ফেসবুক ও টুইটারে স্থান পায়। ওই ঘটনায় এলাকায় তোলপার সৃষ্টি হযে উঠে।
থানায় মামলা না নেওয়ায়,আলমের বাবা বাচ্চু মিয়া বাদী হয়ে ২৩ আগস্ট ইউপি চেয়ারম্যান আবু সামা কবির ও ইউপি সদস্য মিল্লাত হোসেনসহ নাম না জানা ৭/৮ জনের বিরুদ্ধে আদালতে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে মামলাটি রেকর্ড হলেও তদন্তে অগ্রগতি নেই দীর্ঘ ৬ মাসেও।

  ॥ শেরপুরে আলোচিত শিশু অপরাধ ॥

শিশু অপরাধ কি : শিশুর উপর যে অসংবিধানিক কাজ গুলো করা হয় তাই শিশু অপরাধ। যেমন: শিশু ধর্ষণ, শিশু শ্রম, বাল্য বিয়ে, শিশু নির্যাতন, ইভটিজিং, বলাৎকার, শিশু পাচার ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

আট(৮)বছরের শিশুকে ধর্ষণ : গত ১৫ এপ্রিল শুক্রবার বিকেলে শ্রীবরদী উপজেলার রোপারপাড়া গ্রামের হামিদুর রহমানের লম্পট ছেলে শাকিল (১৭) আপন চাচাতো বোন ৮ বছরের শিশুকে নিয়ে পাশ্ববর্তী ধান ক্ষেতে ধর্ষণ করে।
শিশুটির ডাক-চিৎকারে পরিবারের লোকজন রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে। ধর্ষিতা হতদরিদ্র পরিবারের সন্তান এবং স্থানীয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থী।
ঘটনাটিকে ধামাচাপা দিতে ধর্ষকের প্রভাবশালী বাবাসহ আরো কয়েকজন ধর্ষিতার পরিবারকে হুমকি-ধামকি দিতে শুরু করে । ওই রাতেই শিশুটির অবস্থার অবনতি হলে শেরপুর সদর হাসপাতালে শিশু ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। হয়। শিশুটিকে ধর্ষণের পর প্রচুর রক্তপাত হয়েছে এবং আঘাতজনিত স্থানে কয়েকটি সেলাই দিতে হয়েছিল। হাসপাতালে ওই শিশুর পাশে থাকা তার মা অভিযোগ করে বলেন, ‘নিজেদের মধ্যে ঘটনা’ এ কথা বলে ধর্ষকের পরিবার ঘটনাটি আপোস-মীমাংসার নামে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করে।
জেলা সদর হাসপাতারে আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডাঃ মোঃ মোবারক হোসেন দশকাহনীয়াকে জানিয়েছিলেন, ধর্ষণের কথা ঘোপন রেখে দুর্ঘটনাজনিত আঘাতের কথা বলে এই শিশুকে ভর্তি করা হলেও পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ধর্ষণজনিত আঘাত ধরা পড়ে। ধর্ষণেরপর প্রচুর রক্তপাত হয়েছে এবং আঘাতজনিত স্থানে কয়েকটি সেলাই দিতে হয়েছে। তিনি আরও জানান,ধর্ষণের বিষয়টি হাসপাতালের পক্ষ থেকেই পুলিশকে জানানো হয়েছে।
এ ব্যাপারে শ্রীবরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এস. আলম জানান, বিষয়টি শুনেছি,তবে এখনও কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে অবশ্যই দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এখন প্রশ্ন হলোÑ বিষয়টি কি আড়ালেই রয়ে যাবে ; নাকি সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে দোষীকে বিচারের আওতায় আনা হবে ???
প্রথম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টা :গত ৬ এপ্রিল বুধবার দুপুরে শেরপুর শহরের খরমপুর এলাকায় প্রথম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে শবকদর (১৫) নামে এক লম্পটকে আটক করে পুলিমে সোপর্দ করে স্থানীয় এলাকাবাসী। লম্পট সদর উপজেলার ভাটিপাড়া এলাকার জয়নাল মিয়া ওরফে ইদুর ছেলে। পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে,ওই শিশুটি স্কুল থেকে ফিরে বাড়ির আঙ্গিনায় খেলছিল। ওই সময় শবকদর তাকে ফুঁসলিয়ে পাশের একটি রাস্তায় নিয়ে ধর্র্র্র্ষণ করার চেষ্টা করলে শিশুটি চিৎকার করতে থাকে। ওইসময় স্থানীয় বাসিন্দারা গিয়ে তাকে উদ্ধার করে এবং অভিযোক্ত শবকদরকে পুলিশে সোপর্দ করে।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাজহারুল করিম বলেন, ওই ঘটনায় থানায় একটি ধর্ষণ চেষ্টা মামলা হয়েছে।গ্রেফতার হওয়া শবকদর ঘটনার সাথে সম্পৃক্ততার কথা স্বীকারও করেছে।

শিশু অপরাধ বন্ধে করণীয় : শিশু অপরাধ ‘একটি সামাজিক ব্যাধি’ শিশুর সোনালী ভবিষ্যত গড়তে এর ব্যবহার বন্ধ করা অতি জরুরী। সরকারের স্বদিচ্ছা,সংশ্লিষ্টদের দায়িত্ব ও কত্যব্য সঠিক ভাবে পালন,আইনের যথাযথ প্রয়োগ এবং দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির বিধান নিশ্চিত করতে পারলে আমরা উল্লেখিত সামাজিক ব্যাধী বন্ধ করতে সক্ষম হবো।

বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিক্রিয়া : জেলা মানবাধিকার সভাপতি এড. প্রদিপ দে কৃষ্ণ তার প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, শিশুরাই আগামীর ভবিষ্যত। প্রত্যেকটি শিশুর মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করা সরকারের দায়িত্ব ও কর্তব্য। শেরপুরে যে হারে শিশু হত্যা ও শিশু অপরাধ বেড়ে চলেছে তা অত্যন্ত হতাশাজনক। তিনি আরও বলেন,রাহাত হত্যার মত প্রত্যেকটি হত্যার দ্রুত বিচার ও দ- কার্যকর দাবি করছি।

জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা মোঃ আসলাম খান তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন…..শিশুরাই আগামীর ভবিষ্যত। শিশুদের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত,শিশু হত্যা ও শিশু শ্রম প্রতিরোধে আমরা কঠোর অবস্থানে আছি।
ওয়ার্ল্ড ভিশন কর্মকর্তা সুজিত বনোয়ারী বলেন, জাতি সংঘ সনদ এবং বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী শিশুর অধিকার সমূহের মধ্যে রয়েছে শিশুর সুস্থ্যভাবে বাঁচার অধিকার, সকল প্রকার সহিংসতা,নির্যাতন,শোষণ থেকে সুরক্ষিত হওয়ার অধিকার,শিক্ষা, খেলাধুলা এবং বিনোদন করার অধিকার।
তিনি আরও বলেন, ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশে শিশুর অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচী বাস্তবায়ন করছে। শেরপুরে যে হারে শিশু হত্যা ও শিশু অপরাধ বেড়ে চলেছে তা অত্যন্ত দুঃখজনক। এর প্রতিকার ও প্রতিরোধ অতি জরুরী। শিশুরা সোনালী ভবিষ্যত নিযে বেঁচে উঠুক এটাই আমাদের প্রত্যাশা।
শিশু সংগঠক হাকিম বাবুল বলেন, শিশুরা পাপশূণ্য, নিস্পাপ এবং জান্নাতী। শিশুদের উপর যে বর্বরতা শুরু হয়েছে তা কবে শেষ হবে তা একমাএ আল্লাহই জানেন। সরকার,প্রশাসন এবং গন-মানুষের কাছে বিশেষ আবেদন,
আর একটি শিশুও যেন হত্যার শিকার না হয় সে ব্যাপারে বিশেষ দৃষ্টি দিবেন। শিশু হত্যার সাথে জরিত সকল নরঘাতকদের দ্রুত বিচারের আওতায় এনে রায়ের বাস্তবায়ন কামনা করছি।

লেখকঃ মইনুল হোসেন প্লাবন, স্টাফ রির্পোটার ॥ সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া ও শ্যামলবাংলা২৪ডটকম

আপনার মতামত দিন

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

অবাধে মাছ নিধন অমানবিক নির্যাতনে শিশুর মৃত্যু আত্মহত্যা আহত ইয়াবা উদ্ধার উড়াল সড়ক খুন গাছে বেঁধে নির্যাতন গাছের চারা বিতরণ ঘূর্ণিঝড় 'কোমেন' চাঁদা না পেয়ে স্কুলে হামলা ছিটমহল জাতির জনকের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জাতীয় শোক দিবস জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষার সূচি প্রকাশ ঝিনাইগাতী টেস্ট ড্র ড. গোলাম রহমান রতন পাঞ্জাবের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিহত প্রত্যেক বিভাগে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রধানমন্ত্রী বন্যহাতির তান্ডব বন্যহাতির পায়ে পিষ্ট হয়ে নিহত বাল্যবিয়ের হার ভেঙে গেছে ব্রিজ মতিয়া চৌধুরী মাদারীপুর মির্জা ফখরুলের মেডিকেল রিপোর্ট রিমান্ডে লাশ উদ্ধার শাবলের আঘাতে শিশু খুন শাহ আলম বাবুল শিশু রাহাত হত্যা শেরপুর শেরপুরে অপহরণ শেরপুরে বন্যা শেরপুরের নবাগত জেলা প্রশাসক শ্যামলবাংলা২৪ডটকম’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী সংঘর্ষে নিহত ৫ স্কুলছাত্র রাহাত হত্যা স্কুলছাত্রী অপহরণ হাতি বন্ধু কর্মশালা হুইপ আতিক হুমকি ২ স্কুলছাত্রী হত্যা
error: Content is protected !!